কিশোর-কিশোরীদের জন্য মাহে রমজানে চিকিৎ​সকের পরামর্শ | আমাদের নাঙ্গলকোট
সর্বশেষ সংবাদ
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ বিশ্ব পর্যটন দিবস ও আমাদের সম্ভাবনা ◈ মোল্লা নিয়ে আলোচনা -সমালোচনা- এ,কে,এম মনিরুল হক ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ

কিশোর-কিশোরীদের জন্য মাহে রমজানে চিকিৎ​সকের পরামর্শ

7 June 2017, 12:49:11

আমাদের নাঙ্গলকোট :-

রমজান এলে যে শুধু বড়রা রোজা থাকা নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েন তা নয়, বরং কিশোর-কিশোরীদের মাঝে রোজা থাকার ঝোঁকটা আরও বেশি দেখা যায়। তাই তাদের ক্ষেত্রে রোজা রাখা কতখানি উপকারী বা স্বাস্থ্যগত কী কী উপকারীতা রয়েছে, তা নিয়ে আমাদের আজকের পরামর্শ।

যদিও কিশোর-কিশোরীদের খাদ্যের চাহিদাটা অনেক বেশি থাকে, তারপরও কিছু কিছু দিক থেকে রোজা তাদের জন্য সুফল বয়ে আনে। যেমন— অনেকের ফাস্টফুডের প্রতি একটু বেশি আসক্তি থাকে। দেখা যায়, তারা পরিবারের সবাইকে ফাঁকি ‍দিয়ে দিনের বেলা তা বেশি খায়। আর রোজা থাকলে এই সম্ভাবনা কমে যায়। ফলে সে মুটিয়ে যাওয়া এবং আরও অনেক রোগ থেকে রক্ষা পায়।

রোজা যে শুধু শারীরিক সুস্থতার সাথে জড়িত তা নয়, এর সাথে মানসিক স্বাস্থ্যরও একটা যোগ আছে। এতে আত্মশুদ্ধি হওয়া যায়। আর মন ভালো থাকলে শরীরটাও ভালো থাকবে। রোজা তাদেরকে আরও মনোযোগ বাড়াতে এবং আত্মনির্ভশীল করতে সহায়তা করবে।

এ ছাড়া সুন্দর পারিবারিক শিক্ষা বা এর চর্চা তাকে সুস্থ এবং সুশৃঙ্খল জীবন যাপনে সাহায্য করবে।

কিশোর-কিশোরীদের ক্ষেত্রে দেখা যায়, তারা অনেক সময় সাহরী না খেয়েই রোজা রাখতে চায়। এটা কোনো ভাবেই হতে দেওয়া যাবে না। কারণ, সারা দিন তাদেরকে স্কুল, প্রাইভেট, এক্সট্রা কারিকুলাম কাজে অনেক সময় দিতে হয়। তাই বাবা-মাকে খুব সচেতন ভাবে এটা খেয়াল রাখতে হবে।

শুধু সাহরী নয়, ইফতারে শরবত, জ্যুস, পানি, ফল খাচ্ছে কিনা সে ব্যাপারেও বাবা-মা খেয়াল রাখবেন। এছাড়া রাতের খাবারে এবং সাহরীতে পরিমাণ মতো শাকসবজি, প্রোটিনের ব্যবস্থাও তার জন্য রাখতে হবে। কারণ, রোজা থাকলেও তার শারীরিক বৃদ্ধির বিষটিও তো সব সময় মাথায় রাখতে হবে।

কিছু কিছু কিশোর-কিশোরীকে দেখা যায়, কম বয়সেই অনেক বেশি মোটা। তাদের জন্য রোজা ওজন কমাতে সাহায্য করবে। যদি সে সঠিক খাদ্যাভাস মেনে চলে এবং রোজার পরও রোজার রুটিন কিছুটা ধরে রাখে।

ডা. নয়নমনি সরকার, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল

 

Amader Nangalkot'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকা তথ্য মন্ত্রনালয়ের তালিকাভক্তি নং- ১০৫।

পাঠকের মন্তব্য: