কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ড চেয়ারম্যান ও পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের পদত্যাগের দাবিতে বিক্ষোভ করেছে ছাত্ররা | আমাদের নাঙ্গলকোট
সর্বশেষ সংবাদ
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ বিশ্ব পর্যটন দিবস ও আমাদের সম্ভাবনা ◈ মোল্লা নিয়ে আলোচনা -সমালোচনা- এ,কে,এম মনিরুল হক ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ

কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ড চেয়ারম্যান ও পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের পদত্যাগের দাবিতে বিক্ষোভ করেছে ছাত্ররা

12 May 2017, 12:47:46

 এবছরের এসএসসি পরীক্ষায় কুমিল্লা শিক্ষাবোর্ডের ফলাফল বিপর্যয়ের কারণে কুমিল্লা শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান ও পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের পদত্যাগের দাবিতে বিক্ষোভ করেছে কুমিল্লার শিক্ষার্থীরা। এর আগে মঙ্গলবার সকালে কুমিল্লা টাউনহলের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করে খাতা পুন:মূল্যায়নের জন্য শিক্ষামন্ত্রী বরাবর আবেদন জানায় তারা।

এসময় শিক্ষার্থীরা জানায়, পরীক্ষায় ফেল করবো বলে আমরা পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করিনি। অনেকেই এক নম্বরের জন্য এক বিষয়ে ফেল করেছে। কেউ আবার ঐচ্ছিক বিষয়ে ফেল করেছে। বেশীরভাগ ফলাফলেই ১-২ নম্বরের জন্য ফেল করিয়ে দেয়া হয়েছে। আমরা এই ফলাফল মানি না। এসময় ফলাফল পুন:মূল্যায়ন করার জন্য শিক্ষামন্ত্রীর নিকট অনুরোধ জানান শিক্ষার্থীরা।  

মানববন্ধন শেষে তারা কুমিল্লা শিক্ষাবোর্ডের সামনে জড়ো হয়ে কুমিল্লা শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান ও পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের পদত্যাগের দাবিতে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। 

উল্লেখ্য, গত ৪ মে এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফলাফলে কুমিল্লা শিক্ষাবোর্ডে গত বছরর তুলনায় পাশের হার ২৪ দশমিক ৯৭ শতাংশ কমে দাড়ায় ৫৯ দশমিক ০৩ শতাংশে। ২০১৬ সালে কুমিল্লা শিক্ষাবোর্ডের পাসের হার ছিল ৮৪ শতাংশ।

কুমিল্লা শিক্ষাবোর্ডে এ বছর কেবল গণিতেই ফেল করেছে ৩৪ হাজার ৬শ ৮৯জন। আর ইংরেজি বিষয়ে উৎরাতে পারেনি ২৫ সহস্রাধিক শিক্ষার্থী। কুমিল্লা বোর্ডে যেখানে মোট অকৃতকার্য শিক্ষার্থী ৭৪ হাজার ৮৬৮ জন সেখানে গণিত ও ইংরেজিতেই ফেল করেছে ৬০ হাজার ২৯৫ জন। এছাড়াও বাংলায় ফেল করেছে প্রায় ৬ হাজার শিক্ষার্থী। মূলত এ তিন বিষয়ের অকৃতকার্যতাই কুমিল্লা বোর্ডের সার্বিক ফলাফলে ভয়াবহ বিপর্যয় বয়ে এনেছে বলে মনে করছেন শিক্ষকরা। আর এসব বিষয়ে ১ থেকে ৩ নম্বরের জন্য ফেল করেছে সবচেয়ে বেশি। 

Amader Nangalkot'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকা তথ্য মন্ত্রনালয়ের তালিকাভক্তি নং- ১০৫।

পাঠকের মন্তব্য: