ঝিনাইদহে ১৯ বছর যাবত একটি রাস্তা চলাচলে অনুপযোগি | আমাদের নাঙ্গলকোট
সর্বশেষ সংবাদ
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ বিশ্ব পর্যটন দিবস ও আমাদের সম্ভাবনা ◈ মোল্লা নিয়ে আলোচনা -সমালোচনা- এ,কে,এম মনিরুল হক ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ
প্রচ্ছদ / সারাদেশ / বিস্তারিত

ঝিনাইদহে ১৯ বছর যাবত একটি রাস্তা চলাচলে অনুপযোগি

18 June 2017, 8:48:56

 

ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃ

ঝিনাইদহ সদর উপজেলার কালা-লক্ষীপুর গ্রামের রাস্তা টি দীর্ঘ প্রায় ১৯ বছর যাবত এই ইটের রাস্তাটি মেরামতের কোন আলামত পাওয়া যায়নি। এলাকায় একমাত্র চলাচলের রাস্তাটি গ্রামের প্রধান যোগাযোগ মাধ্যম। গ্রামটির প্রধান সড়ক সচল না থাকার কারনে তারা বিভিন্ন প্রকার ভোগান্তির শিকার হচ্ছে। কিন্তু এলাকার জনপ্রতিনিধিরা রাস্তার হালহকিকত দেখার পর ও তারা বিষয়টি আমলে নিচ্ছে না। এ রাস্তা তাদের শহর ও বাজারে যাবার এক মাত্র পথ। এ রাস্তা দিয়ে এখন ভ্যান, রিক্সা, বাইসাইকেল, মোটর সাইকেল, ট্রাক ও পায়ে হেটে চলাচলে অনুপযোগি হয়ে পড়েছে। গ্রামের মনিুষ তাদের ক্ষেতের ফসল বিক্রি করতে শহরে নিতে পারছে না। রাস্তার অবস্থা বেহাল থাকার কারনে কোন যানবাহন কুষকদের মালামাল নিতে চাচ্ছে না। একটু বর্ষা হলে তো রাস্তা দিয়ে চলতে গেলে মানুষদের পড়তে হয় নানা ভোগান্তিতে। প্রায় ১৯ বছর আগে রাস্তাটিতে ইটের কাজ হয়েছে। এর পর থেকে এ রাস্তায় মেরামতের কোন কাজ সহয়নি। গ্রামবাসি স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের কাছে রাস্তার ব্যাপারে জানালে, তাদের কে জানিয়ে দেয় দ্রুত মেরামতের কাজ হবে ।

ঝিনাইদহ সদর উপজেলার কালা-লক্ষিপুর রাস্তাটি খুবই ব্যাস্ততম থাকে সর্বসময়। গ্রামবাসি ও স্কুল ,কলেজের শিক্ষার্থীদের আসা যাওয়ার একমাত্র রাস্তা এটাই।একটু বর্ষা হলে শিক্ষার্থীরা তাদের প্রতিষ্ঠানে যেতে পারে না। রাস্তার দু,পাশে কাদা পানিতে ভর্তি থাকে । রাস্তার ইট উঠে গেছে অনেক আগ থেকে। কাদা পানিতে ভোরে থাকে। কিন্তু ভাগ্যের কি পরিহাস দেখার কেউ নেই। বিভিন্ন নির্বাচনের প্রার্থীরা ভোট নেবার জন্য বলে থাকেন তারা পাশ করার পর তাদের নাকি প্রথম কাজ হবে এ রাস্তা মেরামত । কিন্তু ভোটে পাশ করার পর কেউ মনে রাখেনি দেওয়া সেই প্রতিশ্রুতি। আগে এলাকাবাসি স্তর ভিত্তিক জনপ্রতিনিধিদের কাছে রাস্তার ব্যাপারে গেলে তাদের কে জানিয়ে দেওয়া হয় আপনাদের রাস্তার কাজ তাড়াতাড়ি করা হবে । কিন্তু হাজারো প্রতিশ্রুত শুনার পর ও কেউ তাদের কথা রাখেনি ।

Amader Nangalkot'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকা তথ্য মন্ত্রনালয়ের তালিকাভক্তি নং- ১০৫।

পাঠকের মন্তব্য: