তিতাসে যৌতুকের বলি গৃহবধূ ॥ আটক ১ | আমাদের নাঙ্গলকোট
সর্বশেষ সংবাদ
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ বিশ্ব পর্যটন দিবস ও আমাদের সম্ভাবনা ◈ মোল্লা নিয়ে আলোচনা -সমালোচনা- এ,কে,এম মনিরুল হক ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ

তিতাসে যৌতুকের বলি গৃহবধূ ॥ আটক ১

22 January 2017, 10:44:36

এমএ কাশেম ভূইয়া
কুমিল্লার তিতাসে হাওয়া বেগম (৩০) নামে যৌতুকের বলি এক গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করেছে তিতাস থানা পুলিশ। গতকাল রবিবার স›ন্ধ্যায় উপজেলার জিয়ারকান্দি গ্রামের রাস্তা থেকে ওই গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করে থানা পুলিশ। নিহত গৃহবধু ওই গ্রামের সৌদি প্রবাসী আমীর হোসেনের স্ত্রী এবং দাউদকান্দি উপজেলার সুন্দুলপুর ইউনিয়নের চমকখোলা গ্রামের মৃত মোর্শেদ মিয়ার মেয়ে। পুলিশ এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে একই গ্রামের সুনো মিয়ার পুত্র সাঈদকে গ্রেফতার করেছে।
পুলিশ ও নিহত গৃহবধুর স্বজনরা জানান, জিয়ারকান্দি গ্রামের মৃত গোলাম আলীর ছেলে প্রবাসী আমির হোসেনের স্ত্রী হাওয়া বেগমকে বিয়ের সময় দের লাখ টাকা যৌতুক দিয়ে বিয়ে দেয়। বিয়ের পর স্বামী বিদেশ চলে যায়। পরে শ্বাশুড়ী বানু বেগম, ননদ রুবী আক্তার এবং ভাসুরের ছেলে শামীম যৌতুকের জন্য প্রায় নির্যাতন করত। পরে স্বামী প্রবাসে থাকায় নিহতের পিতা মেয়ের সুখের কথা ভেবে দালান নির্মাণের জন্য আট লাখ টাকা দেয়। সেই টাকায় দালান নির্মাণ করলেও থাকতে পারতো না গৃহবধু হাওয়া। উল্টো দালানের আসবাব পত্রের জন্য চাপ দেয়া হতো এবং পুনরায় টাকা আনতে রাজি না হওয়ায় চলতো অমানুষিক নির্যাতন। সবশেষ গতকালও পৈষাচিক নির্যাতন করে মেরে হাওয়া বেগমের লাশ দালানের পাশে রাস্তায় ফেলে বাড়ি তালা দিয়ে পরিবারের সবাই পালিয়ে যায়। পরে খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।
গৃহবধূর মা পরশী বেগম মেয়ের হত্যার খবর পেয়ে বার বার মূর্ছা যান। তারপরও কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন, মেয়ের সুখের জন্য বিয়ের সময় দের লাখ টাকা জামাইকে দিয়ে বিদেশ পাঠাই। বাড়িতে দালান নির্মাণ করার সময় জামাইর দেওয়া রোজগারের টাকাসহ আমরা আরোও আট লাখ টাকা দিয়ে দালান করে দেই। আর সেই দালানের মধ্যে আমার মেয়েকে থাকতে না দিয়ে অনেক নির্যাতন করত। আবার দালান সাজানোর জন্য ফার্ণিচারের টাকার লাইগা নির্যাতন করে আমার মেয়েকে দিন দুপুরে মেরে ফেলেছে। আমি এ জল্লাদগো বিচার চাই।
তিতাস থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ মনিররুল ইসলাম বলেন, আমরা খবর পেয়ে গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে এসেছি। লাশের ময়না তদন্তের জন্য কুমিল্লা প্রেরণের প্রস্তুতি চলছে। ওই পরিবারের লোকজন বাড়ি থেকে পালিয়ে গেছে। তবে ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে একজনকে আটক করা হয়েছে।

Amader Nangalkot'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকা তথ্য মন্ত্রনালয়ের তালিকাভক্তি নং- ১০৫।

পাঠকের মন্তব্য: