তেরখাদায় গরু চুরির হিড়িকঃ নেপথ্যের নায়ক কারা? | আমাদের নাঙ্গলকোট
সর্বশেষ সংবাদ
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ বিশ্ব পর্যটন দিবস ও আমাদের সম্ভাবনা ◈ মোল্লা নিয়ে আলোচনা -সমালোচনা- এ,কে,এম মনিরুল হক ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ
প্রচ্ছদ / সারাদেশ / বিস্তারিত

তেরখাদায় গরু চুরির হিড়িকঃ নেপথ্যের নায়ক কারা?

28 April 2018, 11:47:20

রাসেল আহমেদ, বিশেষ প্রতিবেদক ঃ
একের পর এক গরু চুরির মত ঘটনা ঘটেই চলছে তেরখাদা উপজেলার বিভিন্ন এলাকাতে। সম্প্রতি ২৬ এপ্রিল গরু চুরির সাথে প্রত্যক্ষ ভাবে জড়িত থাকার অভিযোগে উপজেলার বারাসাত ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও একই ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য প্রনবেশ বালা জুয়েল সহ দুজন গ্রেফতার হওয়ার ঘটনা জানানানি হলে এলাকায় ব্যপক চাঞ্চল্যকরের সৃষ্টি হয়। এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, থানা পুলিশের একটি দল বিশেষ অভিজান পরিচালনা করে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে ৮টি চোরাই গরু উদ্ধার করে। এর পর ২৬ এপ্রিল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ কাগদী এলাকার মৃত কৃষ্ণ বালার ছেলে প্রনবেশ বালা জুয়েল ও মন্ডলগাতী এলাকার নুরুল হকের ছেলে মোঃ বাচ্চু শেখ কে গরু সহ আটক করে। আটককৃত ব্যক্তিরা পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে ইখড়ি গোরুর হাটের ভূয়া রশিদ পাশ দেখিয়ে প্রতারনার মাধ্যমে গরু ও আটককৃতদের ছাড়ানোর চেষ্টা করলে থানা পুলিশ গরুর হাটের পাশ বইয়ের মুড়ি যোগাড় করে দেখতে পায় বইটিতে তাদের কোন গরু কেনার পাশ নেই। ইখড়ির গরু হাট কমিটি সিন্ডিকেটের মাধ্যমে অগ্রীম পাশ বই থেকে পেছনের ১৬/০৩/২০১৮ তারিখে গরু বিক্রয়ের পাশ বই দেখানো হয়েছে। যা সম্পূর্ণ সরকারি নীতি বহির্ভূত কর্মকান্ড। এ ঘটনায় থানার এস আই শহিদুল ইসলাম বাদী হয়ে জুয়েল বালা সহ ৯ জনের নাম উল্লেখ করে আরও ৫/৬ জন অজ্ঞত ব্যক্তির বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-৭। গ্রেফতারকৃতরা এক জেলা থেকে অন্য জেলায় চোরাই গরু পাচার-আনায়ন করা সহ মিনিট্রাকে অথবা ট্রলি, নসিমনে এক স্থান থেকে অন্য স্থানে বহন করে দুরের কোন হাটে বা কসাইখানায় দীর্ঘদিন ধরে সিন্ডিকেটের মাধ্যমে বিক্রি করে আসছে বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গুরুত্বপূর্ণ এ তথ্য দিয়েছে পুলিশের কাছে। থানা পুলিশ তদন্তের স্বার্থে নাম প্রকাশ সহ আরও অনেক তথ্য জানাননি। পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত ২৪ এপ্রিল থানার এস আই হারুনর রশীদ সঙ্গীয় এ এস আই আবু তাহের ও ফোর্স নিয়ে উপজেলার আবনালী গ্রামের দক্ষিণ বিলের মধ্য হোগলা বাগান থেকে গাভী বাছুর সহ ৫টি গরু উদ্ধার করে। থানার এস আই পলাশ কুমার দাস উপজেলার বারাসাত গ্রাম থেকে ট্রলিতে চোরাই করু ওঠানোর সময় হাতেনাতে আন্তঃ জেলা গরু চোর সিন্ডিকেটের ৪ সদস্যকে গ্রেফতার করে। এর পর আটলিয়া বিলের মধ্য থেকে ৫টি গরু উদ্ধার থেকে। থানার এস আই শহিদুল ইসলাম উপজেরার নাচুনিয়া এলাকার মোঃ রানা শেখের বাড়ীর পূর্ব পাশ থেকে ২টি চোরাই গরু উদ্ধার করে। তেরখাদা থানার পুলিশ একই ভাবে গত মার্চ মাসে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে কমপক্ষে ২০ টি গরু উদ্ধার করেছে। গরুর মালিক উপযুক্ত প্রমান দিতে পারলে তাদেরকে গরু ফেরত দেওয়া হচ্ছে অথবা মালিক না পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। উপজেলার আটলিয়া, রামমাঝি, নাচুনিয়া, আবনালী, ইখড়ি, আজগড়া, কাটেংগা, হাড়িখালী, গাজিপুর, কাগদী, শেখপুরা, কোলাপাটগাতী উপজেলা সদর সহ বিভিন্ন এলাকায় গরু চোরের বিভিন্ন সিন্ডিকেটের সদস্য রয়েছে। আর এ সকল সিন্ডিকেটের সহযোগিতায় রয়েছে এলাকার জনপ্রতিনিধি ও কিছু রাজনৈতি ব্যক্তি। এদের ছত্রছায়ায় একের পর এক গরু চুরির মত ঘটনা ঘটলেও রয়ে যাচ্ছে অপরাধীরা ধরা ছোয়ার বাইরে। নেপথ্যে থাকা রাঘব বোয়াল মদদ দাতাদের আইনের আওতায় এনে বিচারের দাবি উঠেছে এলাকাবাসীর। এদিকে বাইরের উপজেলার গরু চুরি করে এনে তেরখাদার হাট বাজার গুলোতে কসাইরা অতি ভোরে গরু জবই করে গরুর মাংস বিক্রি করে বলে অভিযোগ রয়েছে। চুরি আতঙ্কিত গরুর মালিকরা গরু চুরির সহযোগি ব্যক্তিদের ও চোর সিন্ডিকেটের সদস্যদের গ্রেফতারের ব্যবস্থার জন্য আইন প্রয়োগকারী সংস্থার হস্তক্ষেপ কামনা।

Amader Nangalkot'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকা তথ্য মন্ত্রনালয়ের তালিকাভক্তি নং- ১০৫।

পাঠকের মন্তব্য:

x