দৌলখাঁড় চেয়ারম্যানকে ফাঁসানোর চেষ্টায় ৩ জনের ভিজিডি কার্ড বাতিল! | আমাদের নাঙ্গলকোট
সর্বশেষ সংবাদ
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ মোল্লা নিয়ে আলোচনা -সমালোচনা- এ,কে,এম মনিরুল হক ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ ◈ অনুকূল পরিবেশ হলে এইচএসসি পরীক্ষা

দৌলখাঁড় চেয়ারম্যানকে ফাঁসানোর চেষ্টায় ৩ জনের ভিজিডি কার্ড বাতিল!

29 May 2017, 9:36:12

স্টাফ রির্পোটার-
দৌলখাড় ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম সরকারী চাউল বিক্রি করেছেন স্বরজমীন তদন্তে তাহার কোন সত্যতা পাওয়া যায় নেই। তদন্তে পাওয়া যায় ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডের আবদুল লতিফের স্থী রহিমা বেগম, সাহাবুদ্দিনের স্থী ফাতেমা বেগম এবং ৬ নং ওয়ার্ডের বাবুলের স্থী তাহেরা বেগম এক সাথে সরকারী চাউল স্থানীয় ইউনিয়ন অফিস থেকে উত্তোলন করে। পরে তারা হাসপাতাল রোড ফাতেমার ছেলে নিজামের মুরগী দোকানে যায়। সন্ঞ্চয়ের টাকা পরিশোধ করার নিমিত্তে মা ছেলে ও অন্য দুই জন তাদের পাওনা সরকারী চাউল গুলো বিক্রি করার উদ্দ্যশে চাউলের বস্তা গুলো দোকানের বাহিরে রেখে নিজামের সাথে কথা বলার জন্য দোকানের ভিতরে প্রবেশ করে। ঐ সময়ে আবুল কাশেম ভূইয়া নামে জৈনিক এক তৈল ব্যবসায়ী সরকারী চাউল চেয়ারম্যান বাজারে বিক্রি করিতেছে বলে গুজব উঠায় এবং মৎস অফিস কর্মকর্তা এসে চাউলের বস্তা গুলো জব্দ করে বলে পরিষদের বর্তমান এক মেম্বারের কাছ থেকে জানা যায়। অন্য দিকে গ্রাম পুলিশ সফিকের নিকট এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান আমার একটা বি জি ডি কার্ড আছে। আমিও চাউল পাই তাহলে আমার ঘরে খালি বস্তা থাকবে নাতো কার ঘরে থাকবে। নাটকীয় এই ঘটনার সত্যতা জানতে গিয়ে এলাকার স্থানীয় জনসাধারনের সাথে কথা বলে জানা যায়, আমাদের চেয়ারম্যান অনেক ভাল মানুষ, উনি চেয়ারম্যান হয়েছেন সেই দিন তার আগেও তিনি পত্যক্ষ ও পরোক্ষ ভাবে মানুষের উপকার করেছেন। এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার উল্লেখিত তিন মহিলাকে ডেকে পাঠান এবং তাদের কার্ড বাতিলের নির্দেশ প্রদান করেন। চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, আমি চেয়ারম্যান হয়েছি জনগনকে রক্ষন করার জন্য – বক্ষন করার জন্য নয়। একটি চক্র আমাকে পারিবারিক, সামাজিক ও রাজনৈতিক ভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্যই ঘটনাটি ঘটিয়েছে। তিনি আরো বলেন, যারা আমার বিরুদ্ধে এ সব করেছেন তাদের প্রতি আমার কোন মান-অভিমান নেই। তিনি বলেন আপনারা আমাকে সহযোগিতা করুন। আমি-আপনি ও আপনারা মিলে আমাদের ইউনিয়নটাকে সুন্দর ভাবে সাজাই। যেখানে থাকবেনা হিংসা ও প্রতিহিংসা। থাকবে সবার মধ্যে ভ্রাতৃত্ত বন্ধন।

Amader Nangalkot'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকা তথ্য মন্ত্রনালয়ের তালিকাভক্তি নং- ১০৫।

পাঠকের মন্তব্য: