দৌলখাঁড় ইট ভাটা মালিকের বিরুদ্ধে আইন অমান্য ও পরিবেশ দূষণের অভিযোগ! | Amader Nangalkot
শিরোনাম...
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ জমকালো আয়োজনে বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র ওমান শাখার কমিটি গঠন ◈ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ কুমিল্লা দক্ষিণ জেলার কমিটিতে ভোলাকোটের দুই রতন ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ

For Advertisement

দৌলখাঁড় ইট ভাটা মালিকের বিরুদ্ধে আইন অমান্য ও পরিবেশ দূষণের অভিযোগ!

22 March 2017, 8:43:36

বিশেষ প্রতিনিধি-
কুমিল্লায় নাঙ্গলকোট উপজেলার দৌলখাঁড়ে অবস্থিত মেসার্স কালাম ব্রিক্স ম্যানুফ্যাকচারিং কোম্পানী কেবিএম) এর বিরুদ্ধে আইন অমান্য করে ইটভাটা নির্মাণ করে পরিবেশ দূষণের অভিযোগ দায়ের করেন। এলাকাবাসীর পক্ষে অভিযোগ দায়ের করেন দৌলখাঁড় গ্রামের মো. শহীদ উল্লাহ নামের জনৈক ব্যক্তি। পরিবেশ অধিদপ্তরের মহা- পরিচালক ববরাবরে অভিযোগ পত্রে উল্লেখ করেন দৌলখাঁড় বাজার সংলগ্ন কৃষি জমিতে মেসার্স কালাম ব্রিক্সের ইটের ভাটায় দূষিত বায়ুতে আশেপাশের বসবাসকারী জনসাধারণেররোগ বালাই লেগেই আছে। এছাড়া দূষিত বায়ু ও কালো ধোঁয়া মৌসুমি ফল ও কৃষি জমির ফসলের মারাত্মক ক্ষতিসাদন হচ্ছে। অভিযোগে আরো উল্লেখ করেন বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে ইটভাটা নির্মাণ করা আবশ্যক হলেও এক্ষেত্রে পরিবেশ অধিদপ্তর কর্তৃক জারিকৃত স্মারক নং পরিবেশ/প্রচার/বিজ্ঞপ্তি- গণবিজ্ঞপ্তি ১১/২০১২/১৫০ বিধিবিধান আমলে না নিয়ে ভাটার মালিক আবুল কালাম ২০ বছর ধরে ভাটাটি চালিয়ে যাচ্ছে। ভাটার মালিক ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ নেতা। দলের প্রভাব খাটিয়ে ভাটার ভিতরে পুকুর খনন করে প্রতি বছর বালু উত্তোলন করছে। স্থানীয় প্রশাসন দেখেও না দেখার ভান করে। অভিযোগকারী অভিযোগ পত্রে আরো উল্লেখ করেন যে, ভাটার মালিক বিভিন্ন কুটকৌশলে অন্যের জমি দখল করে পরে নামে মাত্র মূল্যে পরিশোধে নিজের করে নিচ্ছে। এবং বালু উত্তোলনের দরূন আশেপাশের কৃষি জমি ভেঙ্গে তার পুকুরের সাথে একত্রিত হচ্ছে।
অভিযোগকারী মো. শহিদ উল্লাহ অভিযোগ পত্রের অনুলিপি বিভিন্ন মিডিয়ায় হস্তগত হবার পর দরখাস্তে উল্লেখিত ফোন  নাম্বারে ফোন করে তার সাথে যোগযোগ করলে তিনি অভিযোগ দিয়েছেন স্বীকার করেন এবং দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

অপরদিকে ইট ভাটার মালিক আবুল কালামের ফোন এ বিষয়ে জানতে চাইলে দৈনিক আামাদের নাঙ্গলকোটকে বলেন, আমার বিরুদ্ধে সকল অভিযোগ মিথ্যা। তিনি সকল কিছু মেনেই ভাটা নির্মাণ করেছেন। তিনি দাবী করে বলেন সকল প্রতিষ্ঠানের ছাড়পত্র নিয়ে ভাটা করেছেন। অভিযোগকারীর সাথে তার পূর্ব শত্রুতা রয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।
তবে একাধিক সূত্রে জানা যায়, ভাটার অনিয়মের কারণে এলাকার পরিবেশ ক্ষতির মুখে পড়ছে। আর সাধারণ জনগনের কথা চিন্তা করে এই অনিয়মের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে আহব্বান জানান এলাকার সর্বসাধারণ।

For Advertisement

Unauthorized use of news, image, information, etc published by Amader Nangalkot is punishable by copyright law. Appropriate legal steps will be taken by the management against any person or body that infringes those laws.

Comments: