নাঙ্গলকোটে ইয়াবার রমরমা ব্যবসা! | আমাদের নাঙ্গলকোট
সর্বশেষ সংবাদ
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ বিশ্ব পর্যটন দিবস ও আমাদের সম্ভাবনা ◈ মোল্লা নিয়ে আলোচনা -সমালোচনা- এ,কে,এম মনিরুল হক ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ

নাঙ্গলকোটে ইয়াবার রমরমা ব্যবসা!

26 November 2016, 11:34:18

বাপ্পি মজুমদার ইউনুস:
কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলার যুবসমাজ থেকে শুরু করে উঠতি বয়সের তরুনরা মাদকাসক্ত হয়ে নষ্ট করে দিচ্ছে নিজের ভবিষ্যত। শুধু যুব সমাজ নয় স্কুল কলেজ পড়ুয়া ছেলেরাও নানা ধরণের নেশায় আসক্ত হয়ে পড়ছে। এসব নেশার টাকা যোগাড় করতে জড়িত হচ্ছে বিভিন্ন ধরণের অপরাধমুলক কর্মকান্ডে। উপজেলার বিভিন্ন ঔষধের দোকান এবং হোমিওপ্যাথিক দোকান থেকে বিভিন্ন ধরণের নেশা জাতীয় দ্রব্য কিনে তারা নেশা করছে। পাশ্ববর্তী ভারত থেকে অবাধে আসা নেশা জাতীয় দ্রব্য গাঁজা, ফেনসিডিল, ইয়াবা ও হিরোইনের মত নেশার দ্রব্য পাওয়া যাচ্ছে হাতের নাগালে।

 

জানা যায়- ভারত থেকে অবৈধ পথে আসা মাদক দ্রব্যের নিরাপদ রুট হিসাবে নাঙ্গলকোটের বিভিন্ন সড়ক ব্যবহার করা হয়। এ রুট দিয়ে নোয়াখালীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে মাদক পাচার করা হয় বলে অভিযোগ উঠেছে। তাছাড়া উপজেলার যে সব এলাকায় মাদকের বাজার হিসাবে পরিচিত সে গুলো হচ্ছে.দৌলখাড় বাজার,বটতলী বাজার, ঢালুয়া বাজার, শিহর চিওড়া বাজার, ঝাঁটিয়াপাড়া বাজার, নাঙ্গলকোট বাজার, বাঙ্গড্ডা পশ্চিম বাজার সিএনজি ষ্ট্যান্ড,বাঙ্গড্ডা দীঘির পাড়. বাঙ্গড্ডা গান্ধাচী মোড়, বক্সগঞ্জ বাজার, মিয়ার বাজার, সাতবাড়ীয় বাজার, মৌকারা সরকার বাজার মোড়, মৌকারা মধ্যপাড়া উল্লেখযোগ্য। মাদক স্পটগুলোতে পাশ্ববর্তী উপজেলা লাকসাম, সেনবাগ, চৌদ্দগ্রাম সহ বিভিন্ন এলাকার মাদবসেবীরা নিয়মিত এসে আসরে বসেন বলে অভিযোগ রয়েছে। মাঝে মধ্যে এসব স্পট থেকে পুলিশ হানা দিয়ে মাদক পাচারকারীদের ধরে এনে দুর্বল ধারায় কোটে চালান দেয়ার কারনে সহজেই তারা জামিন পেয়ে যায়। জামিনে এসে আবারও তারা মাদক ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ে। মাদক নিয়ন্ত্রনে পুলিশের ভুমিকা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। এদিকে এ উপজেলায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রনে অধিদপ্তরের কোন কার্যক্রম নেই। এতে জনসাধারণে মাঝে চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে।

চেয়ারম্যান নাজমুল হাসান বাছির ভুইয়া বলেন, মাদকের ব্যবহার যে হারে বাড়ছে এ নিয়ে এখনি কোন প্রদক্ষেপ নেয়া না হলে ভবিষ্যত প্রজম্ম অন্ধকারে ডুবে যাবে। মাদক দ্রব্য পাচার ও সেবন বন্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তর সহ সংশ্লিষ্ট কর্তপক্ষ জরুরী ভিক্তিতে ব্যবস্থা না নিলে এর ভয়াবহতাা আরো বেড়ে যাবে বলে এলাকার সচেতন মহল মনে করেন।

Amader Nangalkot'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকা তথ্য মন্ত্রনালয়ের তালিকাভক্তি নং- ১০৫।

পাঠকের মন্তব্য: