নাঙ্গলকোটে করোনা উপসর্গে নিহত -৪, সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন করোনা আক্রান্ত ৩ স্বাস্থ্যকর্মীসহ ৬ জন | আমাদের নাঙ্গলকোট
সর্বশেষ সংবাদ
◈ ‘করোনা প্রতিরোধে ছাত্রলীগ নয়, সাংগঠনিক কার্যক্রমে ছাত্রদল এগিয়ে’ ◈ সকালে বাবার মৃত্যু, বিকেলে ছেলের ◈ নাঙ্গলকোট সাংবাদিক সমিতির বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত ◈ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় হতে গৃহীত তেরখাদায় ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ ◈ মানবতার ফেরিওয়ালা এমপি আব্দুস সালাম মুর্শেদী ◈ সুন্দরবন থেকে হরিণের মাংস,মাথা,ও পা উদ্ধার ◈ করোনার চাইতেও ভয়াবহ রূপ নিয়েছে ধর্ষণ ◈ মরচেপড়া মানুষ ____ মোঃ মাহমুদুল হাসান কিরণ ◈ ধর্ষণ মামলার মাস হতে চললেও এখনো গ্রেপ্তার হয়নি আসামি ◈ বাংলাদেশে করোনার ভ্যাকসিন আবিষ্কারের ঘোষণা দিল গ্লোব বায়োটেক লিমিটেড।

নাঙ্গলকোটে করোনা উপসর্গে নিহত -৪, সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন করোনা আক্রান্ত ৩ স্বাস্থ্যকর্মীসহ ৬ জন

7 June 2020, 8:02:28

সাইফুল ইসলাম শাহীন

নাঙ্গলকোটে দুই দিনের ব্যবধানে করোনা উপসর্গ জ্বর ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে চারজন নিহত হয়েছে। শুক্রবার ও শনিবার রাতে তাদের মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। রবিবার ও শনিবার বিকেলে নমুনা সংগ্রহ ছাড়া বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গাইড লাইন অনুযায়ী করোনাসহ বিভিন্ন অসুস্থতায় দাফনে নিয়োজিত মানবিক সংগঠন পেড়িয়া ইউনিয়ন ওলামা পরিষদ স্বাস্থ্যবিধি মেনে নিহতদের দাফন সম্পন্ন করেন।
করোনা উপসর্গ জ্বর ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে শুক্রবার রাতে নিহতেরা হলেন, উপজেলার পেড়িয়া ইউনিয়নের উত্তর শাকতলী গ্রামের সর্দার বাড়ির মৃত আসলাম হোসেনের ছেলে আলমগীর ড্রাইভার (৩৫), পৌরসভার বাতুপাড়া গ্রামের আবুল হাশেমের স্ত্রী রহিমা বেগম (৬৫)। রহিমা বেগম ঢাকার মিরপুর মারা যায়। পরে গ্রামের বাড়িতে এনে লাশ দাফন করা হয়।
শনিবার রাতে নিহতরা হলেন, উপজেলার আদ্রা দক্ষিণ ইউনিয়নের পদুয়া গ্রামের মীর হোসেনের ছেলে অটোচালক জাহাঙ্গীর আলম (৩৫) এবং মক্রবপুর ইউনিয়নের বাননগর দক্ষিণপাড়া গ্রামের সাগর হোসেনের ছেলে আলমগীর হোসেন (২৫)।
আদ্রা দক্ষিণ ইউনিয়নের ইউপি সদস্য আবুল বশর বলেন, জাহাঙ্গীর আলমের জ্বর হয়ে ভালো হওয়ার পর সে অটো চালানোসহ স্বাভাবিক কাজকর্ম করে আসছিল। শনিবার সন্ধ্যায় বুকে ব্যাথা ও শ্বাসকষ্ট দেখা দিলে লাকসাম হাসপাতালে নেয়ার পথে সে মারা যায়। মক্রবপুর ইউনিয়নের ইউপি সদস্য ছোয়াব মিয়া বলেন, আলমগীর হোসেন শনিবার সন্ধ্যায় চট্রগ্রাম থেকে বাড়ি আসার পর রাতে হঠাৎ বুকে ব্যাথা দেখা দিলে নাঙ্গলকোট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়ার পথে সে মারা যায়।
এদিকে উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ ঢাকা আইইডিসিআরের নির্দেশনা অনুযায়ী করোনা পজিটিভ শনাক্ত ৬ জনের ১৪ দিনের হোম আইসোলেশন শেষে দ্বিতীয় ও তৃতীয়বার নমুনা সংগ্রহ করে নেগেটিভ ফলাফল পাওয়ার পর ৬ জনকে সুস্থ ঘোষণা করেন। তারা হলেন, উপজেলার রায়কোট দক্ষিণ ইউনিয়নের পূর্ববামপাড়া গ্রামের মৃত আবদুল করিমের স্ত্রী রশিদা আক্তার ও পুত্রবধু সুমি আক্তার, ঢালুয়া ইউনিয়নের চিওড়া গ্রামের ও নাঙ্গলকোট বেসরকারি নিউ এ্যাপোলো হাসপাতালের মার্কেটিং কর্মকর্তা এনায়েত উল্ল্যা। অন্য তিন জন হলেন, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সেনিটারী ইন্সপেক্টর এবায়দুল হক, সিনিয়র স্টাফ নার্স নাছরিন আক্তার ও উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ দেব দাস দেবের গাড়ি চালক আজহারুল ইসলাম।
করোনা আক্রান্তদের লাশ দাফনে নিয়োজিত মানবিক সংগঠন পেড়িয়া ইউনিয়ন ওলামা পরিষদের হাফেজ মাওলানা জাকির হোসাইন বেলালী বলেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নির্দেশ পেয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে আমরা লাশগুলো দাফন করি।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার লামইয়া সাইফুল বলেন, স্থানীয়রা নিহতদের ব্যাপারে বলেছেন, কিডনি, হার্ট, লিভারের সমস্যা ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে তারা মারা গেছেন। পরীক্ষা ছাড়াতো করোনায় মারা গেছেন বলা যাবে না। তারপরও আমরা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গাইড লাইন অনুযায়ী আমদের লাশ দাফনে নিয়োজিত টিম পাঠিয়ে তাদের দাফন সম্পন্ন করেছি। কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পিসিআর ল্যাব বন্ধ থাকায় তাদের নমুনা সংগ্রহ করা হয়নি। তাদের পরিবারের সদস্যদের নমুনা সংগ্রহ করা হবে।

Amader Nangalkot'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকা তথ্য মন্ত্রনালয়ের তালিকাভক্তি নং- ১০৫।

পাঠকের মন্তব্য: