নাঙ্গলকোটে বিএনপির বিবাদে জ্বলছে ‘তুষের আগুন’ | Amader Nangalkot
শিরোনাম...
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ জমকালো আয়োজনে বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র ওমান শাখার কমিটি গঠন ◈ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ কুমিল্লা দক্ষিণ জেলার কমিটিতে ভোলাকোটের দুই রতন ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ

For Advertisement

নাঙ্গলকোটে বিএনপির বিবাদে জ্বলছে ‘তুষের আগুন’

5 October 2016, 1:19:04

বাপ্পি মজুমদার ইউনুস-
কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে বিএনপির রাজনীতিতে জ্বলছে তুষের আগুন। চলে আসছে পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি, হামলা,মামলা। ২০০৮ সালের সংসদ নির্বাচনের পূর্ব থেকেই এ দ্বন্ধ চলে আসছে আজ অবধি। এ দ্বন্ধ দলের বিভিন্ন অঙ্গসংগঠন থেকে শুরু করে মাঠপর্যায় পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়েছে। উপজেলা বিএনপির রাজনীতি এখন দুই-ধারায় বিভক্ত। তবে বিএনপির নেতা-কর্মীদের দাবি, এখানকার বিএনপিতে কোন প্রকার দ্বন্ধ নেই।

বিএপির রাজনীতির সাথে যুক্ত আছে বিশাল একটি অংশ। বিএনপি ক্ষমতা ছাড়ার পর থেকে চলে আসা এ দ্বন্ধ’র অবসান ঘটাতে পারিনি।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, নাঙ্গলকোট উপজেলা বিএনপির মূল দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন কুমিল্লা জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ও উপজেলা বিএনপির আহবায়ক  মোবাশ্বের আলম ভূঁইয়া। অন্যদিকে নাঙ্গলকোট বিএনপির বিশাল অংশের নেতৃত্ব দিচ্ছেন কুমিল্লা জেলা বিএনপির উপদেষ্টা ও সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আবদুল গফুর ভূঁইয়া।
২০০১ সালে নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ায় কুমিল্লা-৯ বর্তমান-১০ (নাঙ্গলকোট ও সদর দক্ষিনের একাংশ) এলাকা জুড়ে আলহাজ্ব আব্দুল গফুর ভূইয়ার ব্যাপক পরিচিতি ও জনপ্রিয়তা রয়েছে। তিনি দলের পদে না থেকেও বিশাল অংশের নেতৃত্ব দিয়ে আসছে সেই প্রথম থেকেই।

এলাকা সুত্রে ধরে জানতে পারা যায় যে, মোবাশ্বের আলম রাজনীতিতে আসে গফুর ভুঁইয়ার হাত ধরে। পরর্বতীতে নিজেই দখলে করে বসে নাঙ্গলকোট বিএনপির অভিবাকের দায়িত্ব। আর সে থেকে চলে বিএনপির এই দু-গ্রুপের দ্বন্ধ সামালা দিতে পারিনি বিএনপির কেন্দ্রীয় বা জেলা’র নেতারা।

তিনি গত নির্বাচনে পরাজিত হলেও মনোবল না হারিয়ে দলের পক্ষে সব ধরনের কাজ করে যাচ্ছেন। সাধারণ মানুষসহ এলাকার তৃর্ণমূল থেকে শুরু করে দেশের উচ্চ পর্যায়ের দলীয় নেতাদের সাথে সর্বদা যোগাযোগ রাখছেন। এ কারণে মাঠ পর্যায়ের রাজনীতিতে সাধারন জনগণ ও নেতাদের কাছে তিনি জনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন। অন্যদিকে বিভিন্ন সময় নেতাদের দূর্দিনে তাদের পাশে দাঁড়ানোর কারণে নাঙ্গলকোটে আবদুল গফুর ভূঁইয়ার আলাদা একটি বলয় রয়েছে। তবে  সাবেক সংসদ সদস্য ডাঃ এ,কে,এম কামরুজ্জামানের সাথে দ্বন্ধের কারণেও তার জনপ্রিয়তা কিছুটা হ্রাস পেয়েছে।
উপজেলা বিএনপির আহবায়ক মোবাশ্বের আলম ভূঁইয়া জানায়, আমাদের যেহেতু বড় দল, সেহেতু দলের মধ্যে কোন্দল কিছু থাকতেই পারে। কিছু লোক দলের বিরুদ্ধে কাজ করছে। বিগত নির্বাচনেও এসব লোক ধানের শীষ প্রতীকের বিরুদ্ধে কাজ করেছে। দলের আনুগত্যে আমি বিশ্বাসী। ঝামেলা যতটুকু আছে, তা অচিরেই মীমাংসা হয়ে যাবে ইনশাল্লাহ। দল যাকে মনোনয়ন দিবে আমি তার পক্ষেই কাজ করব। আপনারা শুধু আমার জন্য দোয়া করবেন।

 

এব্যাপারে আবদুল গফুর ভূঁইয়ার দৈনিক আমাদের নাঙ্গলকোটকে জানান, স্বাধীনতার পর থেকে আজ অবধি নাঙ্গলকোট রাজনীতির ইতিহাসে আমি যে বিপ্লব ঘটিয়েছি তা স্বরন কালের ইতিহাস। আমি দলের প্রতি আনুগত্যশীল বিদায় এখনো হাল ছাড়িনি, এবং নাঙ্গলকোটের মাটি ও মানুষ আমাকে ভুলতে পারিনি তাই তাদের ঋনশোধ করার প্রত্যয় আমি এখনো রাজনীতি ছাড়িনি। আর বর্তমানে চলে আসা দ্বন্ধ কেন্দ্রীয় বা জেলা পর্যায়ে সমাধানে আসলে আশা করি এটি আর থাকবে না।

সাধারন জনতার কাছ থেকে বিষয়টি জানতে চাইলে তারা জানান, তাদের উভয়ের ঝামেলার কারনে বিএনপির রাজনীতি এবং নেতাকর্মীরা অনেক কষ্ট পোহাতে হচ্ছে।

For Advertisement

Unauthorized use of news, image, information, etc published by Amader Nangalkot is punishable by copyright law. Appropriate legal steps will be taken by the management against any person or body that infringes those laws.

Comments: