নাঙ্গলকোটে সরকারি নিয়ম ভেঙ্গে ক্যাবল টিভিতে হারবাল চিকিৎসার বিজ্ঞাপন প্রচার | আমাদের নাঙ্গলকোট
সর্বশেষ সংবাদ
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ মোল্লা নিয়ে আলোচনা -সমালোচনা- এ,কে,এম মনিরুল হক ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ ◈ অনুকূল পরিবেশ হলে এইচএসসি পরীক্ষা
প্রচ্ছদ / নাঙ্গলকোট / বিস্তারিত

নাঙ্গলকোটে সরকারি নিয়ম ভেঙ্গে ক্যাবল টিভিতে হারবাল চিকিৎসার বিজ্ঞাপন প্রচার

27 August 2014, 8:48:36

মোঃ আলাউদ্দিন, নাঙ্গলকোট (কুমিল্লা) ঃ

কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে হারবাল আর নানা প্রকার কবিরাজি চিকিৎসার নামে চলছে অনিয়ম ও প্রতারণা। সরকারি নিয়মনীতি লংঘন করে যত্রতত্র গড়ে উঠেছে হারবাল প্রতিষ্ঠান। এসব প্রতিষ্ঠান নিয়মনীতি উপো করে অশ্লীল ভাষায় পত্রপত্রিকা, সিডির ক্যাসেট, ডিভিডির ক্যাসেট ও ক্যাবল টিভি চ্যানেল (ডিস) মালিকদের সঙ্গে চুক্তি করে বিজ্ঞাপন প্রচার ও যেখানে সেখানে লিফলেট ছড়িয়ে ব্যবসার পরিধি বৃদ্ধি করছে। বড় বড় দালানের ও দেয়ালগুলোতে চোখে পড়ে অশ্লীল ভাষায় মুদ্রিত লিফলেট। এতে বিব্রতকর অবস্থায় পড়ছে সাধারণ মানুষ ও স্কুল-কলেজের শিার্থীরা। কিন্তু এদিকে প্রশাসনের কোনো নজরদারি নেই। ফলে তাদের ব্যবসার পরিধি আরও বৃদ্ধি পাচ্ছে। চিকিৎসার নামে প্রতারণার মাধ্যমে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে হাতিয়ে নিচ্ছে ল ল টাকা। বিশেষ করে মাুনষের যৌন শিা সচেতনতা কম থাকাকেই তারা প্রতারণার প্রধান মাধ্যম হিসেবে বেছে নিয়েছে। ওষূধ খাওয়ার পর পরই বিভিন্ন রোগের ১শ ভাগ নিরাময়ের নিশ্চয়তা দিচ্ছে। আর এতেই হুমড়ি খেয়ে পড়ছে রোগীরা। নাঙ্গলকোট পৌর বাজারসহ উপজেলার প্রধান প্রধান বাজারগুলোতে প্রায় শতাধিক হারবাল প্রতিষ্ঠান রয়েছে।

অভিযোগ উঠেছে, হারবাল চিকিৎসার নামে এরা যৌন উত্তেজক মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত। মূলত ভারতীয় গরুর ট্যাবলেট ও যৌন উত্তেজক ট্যাবলেট গুলো করে হালুয়া বানিয়ে হারবাল ওষুধ হিসেবে চালিয়ে দিচ্ছে। হারবাল প্রতিষ্ঠানের মালিক ও চিকিৎসকরা রোগীদের আকৃষ্ট করতে নিজেরাই ওষুধের নাম তৈরী করে। বাহারী আর ইসলামী কায়দার নামে দেখে রোগীরা হারবাল ওষুধের প্রতি আকৃষ্ট হচ্ছে। হারবাল প্রতিষ্ঠানগুলো এত অনিয়ম, দূর্নীতি এবং সাধারণ রোগিদের সাথে প্রতারণা করে গেলেও এখনো পর্যন্ত প্রশাসনের টনক নড়েনি। প্রশাসনিক কোনো বাঁধা বিপত্তি না থাকায় হারবাল ব্যবসায়ীরা নির্বিগ্নে তাদের অবৈধ কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছে। কোন কোন প্রতিষ্ঠান ড্রাগ লাইসেন্সের আড়ালে ভেজাল ওষুধ তৈরী করে বিকিকিনি করছে। আবার কারো ড্রাগ লাইসেন্সও নেই।


এসব হারবাল প্রতিষ্ঠানের মধ্যে নাঙ্গলকোট পৌর বাজারের কাজী মার্কেটের ২য় তলায় অবস্থিত তিব্বি ইউনানী দাওয়াখানা অন্যতম। তারা সরকারী নিয়মনীতি তোয়াক্কা না করে সিডি ক্যাসেট, ডিভিডি ক্যাসেট ও ক্যাবল অপারেটরদের সাথে চুক্তি ভিত্তিক উপজেলার সবকটি ক্যাবল টিভি (ডিস) চ্যালেনে রোগ নিরাময়ে শতভাগ গ্যারান্টি দিয়ে বিজ্ঞাপন প্রচার করে আসছে। তাদের দেখাদেখিতে ব্যবসার প্রসার বাড়াতে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে গড়ে উঠা অন্য হারবাল প্রতিষ্ঠানের মালিক ও চিকিৎসকরাও এপথ বেছে নিয়েছে। তাই তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে প্রশাসনের হস্তপে কামনা করেছেন এলাকার সচেতন ব্যক্তিমহল।

 

Amader Nangalkot'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকা তথ্য মন্ত্রনালয়ের তালিকাভক্তি নং- ১০৫।

পাঠকের মন্তব্য: