নাঙ্গলকোট কাশিপুরের যৌতুকের বলি গৃহবধূ অতঃপর হত্যা! | আমাদের নাঙ্গলকোট
সর্বশেষ সংবাদ
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ ◈ অনুকূল পরিবেশ হলে এইচএসসি পরীক্ষা ◈ কুমিল্লায় বিপুল ইয়াবাসহ দম্পতি আটক!

নাঙ্গলকোট কাশিপুরের যৌতুকের বলি গৃহবধূ অতঃপর হত্যা!

26 December 2016, 12:34:10

 

বাপ্পি মজুমদার ইউনুস- ক্যামরায় ছিলেন সহকর্মী মানিক নিজাম উদ্দিন-
কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলার কাশিপুর গ্রামে বিয়ের ছয় মাসের মাথায় নাদিয়া সুলতানা রুবি (১৫) নামের এক গৃহবূধ যৌতুকের বলি হয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

গত রবিবার উপজেলার কাশিপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে।
এ ব্যাপারে নাঙ্গলকোট  থানার কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আইয়ূব দৈনিক আমাদের নাঙ্গলকোটকে বলেন, লাশ দেখে মনে হয়েছে, গৃহবধূকে নির্যাতন করা হয়েছে আর নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে ফাঁসি দিয়ে আত্মহত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় নিহত নাদিয়া সুলতানা রুবি’র বাবা কোবাত মোল্লা আমাদের নাঙ্গলকোট কে বলেন, আমার ছোট্র মেয়ে ১৪ বছর বয়সে প্রেমের ফাঁদে পেলে রবিউল হোসেন রনি- আমার মেয়ে কে নিয়ে পালিয়ে বিয়ে করে আর আমরা এই বাল্য বিবাহ মেনে নিতে অস্বিকার জানাই। তখন আমার মেয়ে ক্লাস সিক্স এ ছাত্রী- কয়েক মাস পর জানতে পারি মেয়ে তার শশুড় বাড়ি এসেছে। আর তার শাশুড়ি তার কাছে যৌতুক হিসাবে টাকা দাবি করলে সে জানায় আমি বাবা মার সাথে সর্ম্পক শেষ করে আপনার ছেলের হাত ধরে বাড়ি ছেড়েছি আর আমার পরিবারের কাছে এতো টাকা নেই যে তারা তা দিবে। অবশেষে মেয়ে নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে আমার কাছে আসে এবং সব খুলে বললে আমি নাঙ্গলকোট থানাতে একটি জিডি করি কিন্তু তাতেও আমার মেয়ের জীবন রক্ষা হলো না, আমি এই হত্যাকান্ডের সঠিক বিচার চাই।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ছয় মাস আগে কাশিপুর গ্রামের রবিউল হোসেন রনি (১৯) সঙ্গে একই গ্রামের নাদিয়া সুলতানা রুবির পালিয়ে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে বিভিন্ন সময় যৌতুক ও বিদেশ যাওয়ার জন্য রবিউল হোসেন ও তাঁর পরিবারের লোকজন রুবির পরিবারের কাছে দুই লাখ টাকা দাবি করেন। তাঁদের এ দাবি পূরণ করতে ব্যর্থ হওয়ায় রুবি ওপর অমানুষিক নির্যাতন চালানো হতো। এরই একপর্যায়ে গ্রামবাসীর দেওয়া সংবাদ পেয়ে সোমবার সকালে নাঙ্গলকোট থানা-পুলিশ শোয়ার ঘর থেকে রুবির ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে।

রুবির পরিবারের দাবি এটা আত্মহত্যা নয়, তাকে হত্যা করে লাশ ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে।

ময়নাতদন্তের জন্য লাশ কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

Amader Nangalkot'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকা তথ্য মন্ত্রনালয়ের তালিকাভক্তি নং- ১০৫।

পাঠকের মন্তব্য: