শিরোনাম
◈ ক্ষমতার পতন ও অপেক্ষার মিষ্টি ফল-মহসীন ভূঁইয়া ◈ নাঙ্গলকোটে দুই গ্রামের মানুষের চলাচলের প্রধান রাস্তাকে খাল বানিয়ে নিরুদ্দেশ ঠিকাদার! ◈ নাঙ্গলকোটের তিনটি প্রতিষ্ঠান পরিদর্শনে শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের টিম ◈ নাঙ্গলকোটে শত বছরের পানি চলাচলের ড্রেন বন্ধ ,বাড়িঘর ভেঙ্গে ২’শ গাছ নষ্টের আশংকা ◈ পদ্মা সেতুর রেল সংযোগে খরচ বাড়লো ৪ হাজার কোটি টাকা ◈ অরুণাচল সীমান্তে বিশাল স্বর্ণখনির সন্ধান! চীন-ভারত সংঘাতের আশঙ্কা ◈ কুমিল্লার বিশ্বরোডে হচ্ছে দৃষ্টিনন্দন ইউলুপ- লোটাস কামাল ◈ দুই মামলায়খালেদার জামিন আবেদনের শুনানি আজ ◈ মাদকবিরোধী অভিযানএক রাতে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ১১ ◈ নাঙ্গলকোটে চলবে ৩ দিন ব্যাপী মাটি পরীক্ষা

নাঙ্গলকোট থানার উজ্জল নক্ষত্র ওসি মোহাম্মদ আইয়ুব

২৩ এপ্রিল ২০১৮, ২:৪৯:০৮
কাউছার আলম মিয়াজী. 
কুমিল্লা জেলার মধ্যে নাঙ্গলকোট একটি অন্যতম উপজেলা।  বৃহত্তর লাকসামের ৬টি ও চৌদ্দগ্রামের ৫টি ইউনিয়ন সর্ব মোট ১১ টি ইউনিয়ন নিয়ে ১৯৮০ সালে নাঙ্গলকোট উপজেলা গঠন হয়। উপজেলা গঠনের পর যতজন ওসি এই (নাঙ্গলকোট) থানায় দায়িত্ব পালন করেছেন তাদের সবার চেয়ে মেধাবী,নিরপেক্ষ আর পরিশ্রমী সাহসী পুলিশ অফিসার হচ্চে বর্তমান ওসি আইয়ুব । সকল অপরাধীদের সনাক্তকরন প্রকৃত শক্তির উৎস সহ নিরপেক্ষ ভুমিকায় আদালতে প্রেরণ যাদের হাতে ন্যস্ত থাকে তারা হলো পুলিশ বাহিনী। সাংবাদিকতার ছোট্র জীবনে পুলিশ বাহিনী নিয়ে অনেক লেখা পড়েছি,তবে পুলিশ বাহিনীর মধ্যে অনেক সৎ নিষ্ঠাবান কর্মকর্তা রয়েছে যারা জীবন বাঁজি রেখে সততার সাথে দায়ত্বি পালন করে আসছে। আজ এমনই একজন সাফল্যের বরপুত্রকে নিয়ে আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকার আজকের এই উৎসাহ মূলক প্রতিবেদন।

আর তিনি হচ্ছেন নাঙ্গলকোট থানার বর্তমান ওসি আইয়ুব। পুলিশ ঘুষ খায়না এমন দৃষ্টান্ত খুজে পাওয়া বিরল। আর এই বিরল দৃষ্টান্তই স্থাপন করেছেনন তিনি।
পুলিশের গুরুত্বপূর্ণ পদে থেকে তিনি সকল পার্থীব লোভ-লালসা ত্যাগ করে ধার্মিক সৎ যোগ্য ন্যায় পরায়ন ও আদর্শের প্রতিক হিসেবে পুলিশ বিভাগে নিজেকে প্রতিষ্ঠা করেছেন। তাই খুব অল্প দিনেই তিনি নাঙ্গলকোট বাসীর মন জয় করে নিয়েছেন। রিকশা চালক থেকে শুরু করে ব্যবসায়ী, চাকরিজীবী, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ও বুদ্ধিজীবী মহল তাদের এক বাক্যে সৎ মানুষ হিসেবে চেনেন জানেন। উনার (আইয়ুব) এর কাছে এসে উপকার পাননি এমন লোক খুজে পাওয়া দূরুহ।
খোজ নিয়ে জানা যায়, দিন মজুর ভিখারী থেকে শুরু করে সব শ্রেণি পেশার মানুষ উনার (আইয়ুব) এর সাথে খুব সহজে দেখা করে নিজের সমস্যা তুলে ধরতে পারেন। তিনি প্রতিটি ব্যক্তির সমস্যা হাসি মুখে আন্তরিকতার সাথে গুরুত্ব দিয়ে শোনেন এবং দ্রুত সমস্যা সমাধানের ব্যবস্থা করেন। সর্বদা হাস্যজ্জল ও বিনয়ী এই ব্যক্তির কাজের বিনিময়ে কখনো কারো কাছ থেকে একটি পয়সা ঘুষ নিয়েছেন এমন দৃষ্টান্ত খুজে পাওয়া যাবেনা। তার সৎ উপর্জনের অর্থ দিয়ে পরিবার পরিজনের ভরন-পোশন করে থাকেন। সকল প্রকার হারাম উপার্জন ত্যাগ করে সদা-সর্বদা হালাল পথে নিজেকে সপে দিয়েছেন।

২০১৬ ইং সালের ১৬ই জুলাই তিনি ওসি হিসাবে যোগদান করেন।
নাঙ্গলকোট থানায় যোগদান করেই তিনি সন্ত্রাস ও মাদকের বিরুদ্ধে জেহাদ ঘোষনা করেন। তিনি থানার চৌকস অফিসারদের ( মেধাবী ও সাহসী আশরাফুল ইসলাম – ওসি তদন্ত, ইসমাইল হোসেন – ওসি অপারেশন, এস আই রতন দেব, হাবিব, সোহেল, মাইন উদ্দীন, এ এস আই এনামুল, শামীম, মোজাম্মেল, রহিম, এয়াকুব) সহ অন্যন্যদের নিয়ে রাত দিন কঠোর পরিশ্রম করেন, নিজের সাহসী পদক্ষেপ আর কোটকৌশলে নাঙ্গলকোট উপজেলায় মাদকপাচার, যুদ্ধাপরাধী, ছিনতাইকারী, অপহরণকারী, জাল টাকা ব্যবসায়ী, অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী, চোর, ডাকাত, বিভিন্ন সময়ে রাজনৈতিক ইস্যুতে আইনশৃঙ্খলা বিঘ্নকারীকে গ্রেপ্তারে বিশেষ অবদান রেখেছেন।
যার ফলে স্থানীয় থানা ও পুলিশ বিভাগের প্রতি নাঙ্গলকোটের জনগনের স্বস্তি আসা ও বিশ্বাসের সৃষ্টি হয়েছে। ইতিপূর্বে নাঙ্গলকোটে অন্য কোন পুলিশ সদস্য এমন বিশ্বাস ও আস্থা অর্জন করতে সমপন্ন হয়নি। এ ছাড়া এ থানায় দীর্ঘদিন ধরে ঝুলে থাকা শত শত মামলার তদন্ত দ্রুত সম্পন্ন করে মামলা নিষ্পত্তিতে সহায়ক ভুমিকা পালন করেছেন।
ওয়ারেন্ট ভুক্ত ও তামিল আসামিদের গ্রেফতার করে যথা সময়ে আদালতে সোপর্দ করেছেন। এতে এলাকার অপরাধ বহু অংশে কমে গেছে। তাদের কাজে উর্ধ্বতন কর্তাব্যক্তিরাও তাদের কাজ কর্মে অত্যন্ত খুশি। তারা নাঙ্গলকোটের সামাজিক ও সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক অঙ্গনেও কৃতিত্ব বেশ স্বাক্ষর রেখেছেন। ফলে সাংস্কৃ তিক অঙ্গনেও রয়েছে ব্যাপক সুনাম। সব মিলিয়ে তারা একজন আদর্শবাদী ন্যায়পরায়ন ও ধার্মিক পুলিশ কর্মকর্তা। এমন সৎ পুলিশ কর্মকর্তা পুলিশ বিভাগে পাওয়া বিরল।
ওসি আইয়ুব একান্ত স্বাক্ষরকারে বলেন পুলিশকে যেন মানুষ ভয় না করে। ওরা যেন ভালোবাসে, সেভাবে কাজ করে সাধারণ মানুষের শ্রদ্ধা অর্জন করতে বলেছেন। কারণ, স্বাধীন দেশের পুলিশ, শোষকদের নয়, ওরা (পুলিশ) জনগণের সেবক। তাই পুলিশের কাজ জনগণকে ভালোবাসা ও দুর্দিনে সাহায্য করা। যেন মানুষ শান্তিতে ঘুমাতে পারে।
আর আমি যত দিন বাঁচি যেন সততার পথে থেকে পত্যক্ষ ও পরোক্ষ ভাবে মানুষের সেবা করতে পারি।

Amader Nangalkot'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকা তথ্য মন্ত্রনালয়ের তালিকাভক্তি নং- ১০৫।

পাঠকের মন্তব্য: