নাঙ্গলকোট ফোরকানিয়া মাদ্রাসার জায়গায় জোরপূর্বক কেজি স্কুল স্থাপন! | Amader Nangalkot
শিরোনাম...
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ জমকালো আয়োজনে বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র ওমান শাখার কমিটি গঠন ◈ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ কুমিল্লা দক্ষিণ জেলার কমিটিতে ভোলাকোটের দুই রতন ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ

For Advertisement

নাঙ্গলকোট ফোরকানিয়া মাদ্রাসার জায়গায় জোরপূর্বক কেজি স্কুল স্থাপন!

1 January 2020, 9:28:02

সিনিয়র রিপোর্টার

কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলার দৌলখাড় ইউনিয়নের কান্দাল গ্রামের পূর্ব পাড়া ফোরকানিয়া মাদ্রাসা জায়গায় কতিপয় ব্যক্তিবর্গ জোরপূর্বক কেজি স্কুল স্থাপন করে।
এ ব্যাপারে আদালতে বাপ্পি মজুমদের ইউনুস বাদী হয়ে মামলা করেছেন। মামলার এজাহার ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার কান্দাল মৌজার ৯ নম্বর বিএস খতিয়ানভূক্ত ও হাল দাগ নম্বর ১৪৬৮, ভূমির পরিমাণ ১৬ শতক।

নালিশি ভূমির মূল মালিক ছিলেন আনোয়ার আলী গং।
যাহা বিগত প্রায় ৫০/৬০ বছর পূর্বে মামলার বাদী বাপ্পি মজুমদার ইউনুসের পূর্বপুরুষ।
১৯৮ নম্বর সি এস খতিয়ান এ তার নাম রয়েছে আনোয়ার আলীর। আনোয়ার আলীর মৃত্যুকালে রুস্তম আলীকে পুত্র ওয়ারিস রাখিয়া ইন্তেকাল করেন। তার মৃত্যুর পর ওয়ারিশ সূত্রে মালিক দখলদার থাকিয়া রুস্তম আলীসহ অপরাপর অংশীদারগণ নালিশি ভূমিতে একটি মাদ্রাসা করার সংকল্প করিয়া অপরাপর ব্যক্তিগণের সহযোগিতায় একটি সেমি পাকা টিনসেড ঘর নির্মাণ করিয়া কান্দাল পূর্বপাড়া ফোরকানিয়া মাদ্রাসা নামে একটি মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করেন এবং তাদের উক্ত ভূমি মাদ্রাসার নামে ওয়াকফ করার সংকল্প ব্যক্ত করেন। ১৯৯১ সালে বি এস জরিপ চলাকালীন সময় নালিশি ভূমি কান্দাল পূর্বপাড়া মাদ্রাসা নামে খতিয়ানে অন্তর্ভুক্ত হয়।
কমিটির পক্ষে
সেক্রেটারি হিসেবে ছিলেন বাদী বাপ্পি মজুমদার ইউনুসের, জেঠা, পরবর্তীতে তার বাবা
হেদায়েতুল্লাহ মজুমদার। ফোরকানিয়া মাদ্রাসার সেক্রেটারি থাকিয়া মাদ্রাসাটি পরিচালনা করে আসছিলেন। হেদায়েতুল্লাহ বয়স ও শারীরিকভাবে অসুস্থতার কারণে স্বাভাবিক চলাফেরা করার অসমর্থ হওয়া বিদায় ১৮/০৮/২০১৯ তারিখে তার ছেলে বাপ্পি মজুমদার ইউনুসকে সেক্রেটারি নিযুক্ত করেন।
মামলার বাদী বাপ্পি মজুমদার ইউনুস এর বাবা হেদায়েতুল্লাহ মজুমদার।
আর্থিক অভাবের কারনে ফোরকানিয়া মাদ্রাসার কার্যক্রম বন্ধ হলে ফোরকানিয়া কমিটি থেকে সাময়িক সময় নিয়ে একটি কেজি স্কুল স্হাপন করে।
ফোরকানিয়া মাদ্রাসার ভূমির উত্তর-পূর্ব কোনে বি এন পি নেতা আব্দুল হাই দুই শতক জায়গা দখল করে একটি দোকান স্থাপন করেন। এইসব অবৈধ অনিয়মের বিরুদ্ধে বাদীপক্ষ বাপ্পি মজুমদের ইউনুস গংরা প্রতিবাদ করলে সামাজিকভাবে উভয় পক্ষ সালিশে বসে। সালিশে কেজি স্কুলটি ২/৩ বছরের মধ্যে অন্যত্রে সরিয়ে নিবে বলে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

উক্ত সময় অতিবাহিত হওয়ার পরও কেজি স্কুল টি না সরালে বাপ্পি মজুমদার ইউনুস আদালতে প্রতিকার চেয়ে মামলা করে।

মামলা চলা অবস্থায় অবস্থা প্রতিপক্ষ আবুল খায়ের ও হুমায়ুন কবির গং হিংস্রাত্মক মনোভাব পোষণ করে বাপ্পি মজুমদার ইউনূসের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সংবাদপত্র ও অনলাইন পত্রিকায় তার সুনাম ক্ষুন্ন করে সংবাদ প্রকাশ করে। এই বিষয়ে বাপ্পি মজুমদার ইউনুস বলেন, নালিশি ভূমির আমার পূর্বপুরুষগণ ১৬ শতক ভূমি ফোরকানিয়া মাদ্রাসার নামে দান করেন
। গত বিএস জরিপে
ফোরকানিয়া মাদ্রাসার নামে খতিয়ান অন্তর্ভুক্ত হয়।
এর পক্ষে সেক্রেটারি ছিলেন আমার বাবা হেদায়েত উল্লাহ মজুমদার। বর্তমানে কেজি স্কদেুলটি আমাদের গ্রামের আব্দুল মজিদের ছেলে আবুল খায়ের ও হুমায়ুন কবির জোরপূর্বক দখল করে তাদের পারিবারি সম্পত্তিতে পরিণত করেছে।। আমরা প্রতিবাদ করলে গ্রাম্য সালিশের মাধ্যমে ২/৩ বছরের মধ্যে কেজি স্কুলটি সরিয়ে নিবে বলে সিদ্ধান্ত হয়।

কিন্তু উক্ত সময় অতিবাহিত হওয়ার পরও কেজি স্কুলটি সরাতে বিভিন্নভাবে গড়িমসী ও তালবাহানা করিলে আমি প্রতিকার চেয়ে আদালতের শরণাপন্ন হই । আদালতে মামলা চলাকালীন সময়ে তারা আমার সামাজিক ও পারিবারিক সম্মান ক্ষুন্ন করার জন্য সাংবাদিকদেরকে মিথ্যা তথ্য দিয়ে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা ও বানোয়াট সংবাদ প্রকাশ করে। যে সংবাদের সাথে আমি বিন্দুমাত্র সম্পৃক্ত নই। আমি এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। এ ব্যাপারে স্থানীয় মেম্বার আইয়ুব আলীকে জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন আমি জানি উক্ত জায়গাটি মাদ্রাসার নামে খতিয়ানভুক্ত হয়েছে।

প্রায় ৫০ বছর পূর্বে বাপ্পি মজুমদার ইউনূসের পূর্বপুরুষগণ জায়গাটি ফোরকানিয়া মাদ্রাসার নামে দান করেন। পরবর্তীতে জায়গাটি ফোরকানিয়া মাদ্রাসার নামে খতিয়ানে অন্তর্ভুক্ত হয়। আমি নিজেও উক্ত মাদ্রাসায় পড়াশোনা করেছি।

For Advertisement

Unauthorized use of news, image, information, etc published by Amader Nangalkot is punishable by copyright law. Appropriate legal steps will be taken by the management against any person or body that infringes those laws.

Comments: