নীরবে কাঁদছে বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম | আমাদের নাঙ্গলকোট
সর্বশেষ সংবাদ
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ বিশ্ব পর্যটন দিবস ও আমাদের সম্ভাবনা ◈ মোল্লা নিয়ে আলোচনা -সমালোচনা- এ,কে,এম মনিরুল হক ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ
প্রচ্ছদ / খেলাধুলা / বিস্তারিত

নীরবে কাঁদছে বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম

5 September 2016, 8:27:21

পরশু বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে মেয়েদের খেলা দেখে বিস্মিত অনেকে। খেলার অনুপযোগী কাদাযুক্ত মাঠে মেয়েরা যে নৈপুণ্য দেখাল সেটাই বিস্ময়ের বড় কারণ। কাদায় বল আটকে যাচ্ছিল বারবার। জয়ের তীব্র ইচ্ছা নিয়েই সেই বাধা পেরোল মেয়েরা। চীনা তাইপের বিপক্ষে ৪-২ গোলে দারুণ জয়ে তারা উঠে গেল এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ ফুটবলের চূড়ান্ত পর্বে।
মেয়েদের সাফল্যে সবাই খুশি। কিন্তু অলক্ষ্যে ঢাকা পড়েছে বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামের মাঠের দুরবস্থা। গত ২৭ আগস্ট মেয়েদের এই টুর্নামেন্টের শুরু থেকেই এক দিন পরপর দৈনিক তিনটি করে ম্যাচ হচ্ছে এই মাঠে। ১০ দিনে মোট ম্যাচ ১৫টি! পৃথিবীর আর কোনো মাঠের ওপর এমন ‘অত্যাচার’ হয় কি না গবেষণার বিষয়।
মেয়েদের টুর্নামেন্টে বিরতি ছিল বলে কাল বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম নিয়ে টানাটানি হলো বাংলাদেশ ও ভুটান দলের মধ্যে। শেষ পর্যন্ত বাফুফের বদান্যতনায় জাতীয় দলের কোচ টম সেন্টফিট মালদ্বীপে ৫ গোল খেয়ে আসা তাঁর দল নিয়ে অনুশীলন করতে হাজির বিকেল চারটায়। এই মাঠে অনুশীলন না করলে নাকি ভুটানকে হারাতে পারবেন না। এমন একটা অদম্য মনোভাব নিয়ে তিনি ‘রুদ্ধদ্বার’ অনুশীলন করলেন।
কিন্তু নির্ধারিত সময়ের একটু আগেই স্টেডিয়ামে এসে পড়া ভুটান মাঠে ঢুকতেই রেগে গেলেন সেন্টফিট। বাংলাদেশ দলের গোলরক্ষক কোচ রায়ান স্যান্ডফোর্ড ১০০ মিটার স্প্রিন্ট দিয়ে ছুটে ভুটানকে দিলেন বের করে। নাটকীয় দৃশ্য! অতিথি দল শেষমেশ সাড়ে ৬টার পর অনুশীলনে নামল।
ওই পর্ব শেষে আজ সকালেই মেয়েদের এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ টুর্নামেন্টের বাছাইপর্বে বাংলাদেশের শেষ ম্যাচ। বিকেল ও সন্ধ্যায় আছে আরও দুটি ম্যাচ। ২৩ ঘণ্টা পর আগামীকাল সন্ধ্যা ৭টায় এই মাঠে এশিয়ান কাপের প্লে-অফে ভুটানের সঙ্গে বাংলাদেশের জীবন-মরণ ম্যাচ। বৃষ্টি থাকলে মাঠের কী দশা হবে, তা বোঝাই যাচ্ছে।
বিকল্প কোনো মাঠ গড়ে তোলা হয়নি বলেই সব চাপ সবেধন নীলমণি বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামের ওপর। কমলাপুরে টার্ফ বসানো হয়েছে। আছে আর্মি স্টেডিয়ামও। চাইলে এই দুটি মাঠের কোনো একটিতে মেয়েদের কিছু ম্যাচ দেওয়া যেত কি না প্রশ্ন উঠছেই। বাফুফের মহিলা কমিটির প্রধান মাহফুজা আক্তার কিরণ অবশ্য বলছেন, সেটা সম্ভব ছিল না, ‘টুর্নামেন্টের আগে এএফসির পরিদর্শক এসে আন্তর্জাতিক সুযোগ-সুবিধা থাকায় বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামকেই পছন্দ করেছেন। কাজেই অন্য কোথাও ম্যাচ দেওয়ার সুযোগ নেই।’
সুযোগ তৈরি করে নেওয়ার চেষ্টাও অবশ্য দৃশ্যমান নয় কর্তাব্যক্তিদের মধ্যে। বাফুফের কাছে মাঠ কখনো অগ্রাধিকারও পায় না। আজ পর্যন্ত বাফুফের কোনো সভায় মাঠ নিয়ে আলোচনা হয়েছে বলে শোনা যায়নি। ফেডারেশনের মাঠ কমিটির প্রধান ফজলুর রহমান বাবুলের তাই বিস্তর আক্ষেপ, ‘মাঠ নিয়ে কারও মাথাব্যথা নেই। একের পর এক খেলার কারণে মাঠের পরিচর্যা ঠিকভাবে করা যায় না। তাই মাঠের এই অবস্থা।’
ঘরোয়া-আন্তর্জাতিক সবকিছুর কেন্দ্রবিন্দু বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম। কনসার্ট ও জাতীয় দিবসের অনুষ্ঠানের ভেন্যুও এটি। পাইওনিয়ার ফুটবলের ফাইনাল কিংবা ছোট ছেলেমেয়েদের খেলার জন্যও চাই বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম। অবস্থা এমন যে, বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে চাইলে কমিউনিটি সেন্টারের মতো বিয়ের অনুষ্ঠানও সম্ভব!
ফুটবলের এই বহুল ব্যবহৃত মাঠের প্রাণ থাকলে হয়তো বলত, ‘দয়া করে আর স্টিমরোলার চালাবেন না আমার ওপর।’ কিন্তু মাঠের ওই নীরব ভাষা কে বোঝে! কে দেখে মাঠের কান্না!

Amader Nangalkot'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকা তথ্য মন্ত্রনালয়ের তালিকাভক্তি নং- ১০৫।

পাঠকের মন্তব্য: