সর্বশেষ সংবাদ
◈ মারছে মানুষে মানুষ!- মোঃ: জহিরুল ইসলাম ◈ নাঙ্গলকোট উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদকের নামে ভূয়া আইডি খুলে প্রতারনার ফাঁদ ◈ “কাজী জোড়পুকুরিয়া সমাজকল্যাণ পরিষদ” কমিটি গঠন ◈ ছাত্রদলের সভাপতি পদে জনপ্রিয়তার শীর্ষে বাগেরহাটের ছেলে হাফিজুর রহমান ◈ চৌদ্দগ্রাম থানার ওসির নির্দেশে কবরে রেখে যাওয়া বৃদ্ধ মহিলাকে হাসপাতালে ভর্তি করলো পুলিশ ◈ নাঙ্গলকোটে ইভটিজিংয়ে প্রতিবাদ করায় সন্ত্রাসী হামলা প্রতিবাদে মানববন্ধন ◈ আজ টাইগারদের দায়িত্ব বুঝে নেবেন ডোমিঙ্গো ◈ জাতীয় দিবসগুলো শিক্ষকদের ছুটি হিসেবে গণ্য করা হচ্ছে কেন? ◈ কুমিল্লা মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় বাড়ছে লাশের সারি; নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৮ জনে; পরিচয় মিলেছে সবার ! ◈ কুমিল্লার লালমাই উপজেলায় বাসের সঙ্গে সিএনজিচালিত অটোরিকশার সংঘর্ষে ৭ যাত্রী নিহত

পরিকল্পনা মন্ত্রী লোটাস কামাল’র সংক্ষিপ্ত জীবনী

১৮ মে ২০১৬, ১০:৩৭:২৬

 

বাপ্পি মজুমদার ইউনুস।
বিশিষ্ট ক্রিকেটানুরাগী যিনি দু'দশকের উপর আবাহনী ক্রিকেট কমিটির চেয়ারম্যান ছিলেন, দেশের একজন খ্যাতনামা চাটার্র্ড একাউন্ট্যান্ট জনাব আ হ ম মুস্তফা কামাল ১৯৪৭ সালের ১৫ জুন কুমিল্লা জেলায় জন্ম গ্রহণ করেন। তাঁর পিতা মরহুম হাজী বাবরু মিয়া এবং মাতা মিসেস সায়েরা খাতুন।

 

জনাব লোটাস কামাল ১৯৭০ সালে তদানিন্তন সমগ্র পাকিস্তানের চার্টার্ড এ্যাকাউন্ট্যান্সি পরীক্ষায় সম্মিলিত মেধা তালিকায় ১ম স্থান অর্জন করেন। এর আগে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৬৭ সালে কমার্সে সম্মান স্নাতক ডিগ্রী এবং ১৯৬৮ সালে এ্যাকাউন্টিংয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রী অর্জন করেন। এছাড়া, আইন শাস্ত্রেও তিনি স্নাতক ডিগ্রীর অধিকারী।

 

Lotas kanal

 

 

 

 

 

 

রাজনীতিতে জনাব কামালের হাতেখড়ি ছাত্র জীবন থেকেই। কলেজ জীবনের পুরোসময়ই তিনি ছাত্র রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন। ১৯৬৬ সালের ৬ দফা আন্দোলন, ৬৯'র গণঅভ্যুত্থান এবং ৭০'র ঐতিহাসিক নির্বাচনের সময় তিনি তাঁর এলাকায় আওয়ামীলীগের একজন বিশিষ্ট সংগঠক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন।

জনাব লোটাস কামাল আওয়ামীলীগের প্রার্থী হিসেবে ১৯৯৬ সালে কুমিল্লা-৯ নির্বাচনী এলাকা থেকে প্রথমবারের মত সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এ সময়ে তিনি পাবলিক একাউন্টস কমিটির সদস্য, বিনিয়োগ বোর্ডের সদস্য, প্রাইভেটাইজেশন কমিশনের সদস্য, অর্থ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য, যাকাত বোর্ডের সদস্য এবং চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট সদস্য হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন।

২০০৪ সাল থেকে তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন। পাশাপাশি ২০০৬ সাল থেকে তিনি কুমিল্লা জেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন কর আসছেন। বর্তমিানে তিনি কুমিল্লা দক্ষিন জেলা আ,লীগের সভাপিতি। জনাব কামাল বর্তমানে আওয়ামীলীগের অর্থ ও পরিকল্পনা সম্পাদক  হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন। এর আগের Term এও তিনি দলের এই পদে আসীন ছিলেন।

২০০৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জনাব কামাল কুমিল্লা-১০ নির্বাচনী এলাকা থেকে আওয়ামীলীগের প্রার্থী হিসেবে দ্বিতীয় বারের মত সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি ২০০৯-১৩ এই সময়কালে অর্থ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। ২০১৩ সাল থেকে এখন পর্যন্ত তিনি পরিকল্পনা মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

জনাব লোটাস কামাল ২০০৯ সালের সেপ্টেম্বর থেকে ২০১৩ সালের অক্টোবর পর্যন্ত বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তাঁর সময় বাংলাদেশে ২০১১ এ অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপ ক্রিকেট সারা বিশ্বে প্রশংসিত হয় এবং বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে এই event'টির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানটি (১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১১) আন্তর্জাতিক Ranking এ দ্বিতীয় স্থান অর্জন করার গৌরব লাভ করে।

তিনি ১লা জুলাই ২০১৪ এর আগ পর্যন্ত আইসিসি'র নির্বাচিত সহ-সভাপতি। ১লা জুলাই ২০১৪ থেকে তিনি এই সংগঠনটির নির্বাচিত সভাপতি হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। এর আগে তিনি আইসিসি'র Audit Committee'র সভাপতি এবং এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল এর সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।তিনি সভাপতির মেয়াদ থাকাকালীন অবস্থায় এ পদ থেকে পদত্যাগ করেন। বিশ্বকাপ’র সময় আইসিসি’র নেক্কার জনক কর্মকোন্ডের জন্য তিনি এ পদ ছাড়তে বাধ্য হোন। আর সারা বিশ্বের ন্যায় বাংলাদেশীদের কাছে প্রসংসার দাবিদার হোন তিনি।

জনাব কামাল দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কুমিল্লা-১০ আসন থেকে তৃতীয়বারের মতো বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের প্রার্থী হিসেবে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন এবং তিনি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

 

cropped-Bappy.jpg
বাপ্পি মজুমদার ইউনুস
সম্পাদক
দৈনিক আমাদের নাঙ্গলকোট

Amader Nangalkot'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকা তথ্য মন্ত্রনালয়ের তালিকাভক্তি নং- ১০৫।

পাঠকের মন্তব্য: