পুকুর তুমি কার? | Amader Nangalkot
শিরোনাম...
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ জমকালো আয়োজনে বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র ওমান শাখার কমিটি গঠন ◈ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ কুমিল্লা দক্ষিণ জেলার কমিটিতে ভোলাকোটের দুই রতন ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ

For Advertisement

পুকুর তুমি কার?

9 November 2014, 9:34:07

 

আজিম উল্যাহ হানিফ


কুমিল্লার লাকসাম উপজেলার নরপাটি ইউনিয়নের পশ্চিম সাহেবপাড়া গ্রামে আজ থেকে সাড়ে ৬০০ বছর আগে আসা হযরত শাহজালাল রহমতুল্লাহ আলাইয়ের সাথে ৩৬০ তথা ৩৬৯ অলি-আউলিয়ার একজন হযরত দেওয়ান শাহ ইসরাঈলি (রহ)। তিনি ১৩৭০ সালে ততকালীন সময়ে এই এলাকায় এসে কিছু ভূমি নিজে (যেভাবে হোক কিনেছেন) আয়ত্তে এনে একটি মুসলিমদের নামাজ পড়ার সুবিধার্থে মসজিদ,একটি পুকুর,একটি কবরস্থান,একটি রাস্তাসহ একটি বাগান তৈরি করে দিয়ে যান। তিনি ঐ সময় বেশ কিছুদিন যাবত এগুলো দেখাশুনা করে স্বাভাবিক মৃত্যুর পেয়ালা পান করেন। তারপর এগুলো তার ওছিয়তমতে পাশের বাড়ির লোকেরা দেখাশুনার ভার পায়। এরপর থেকে দীর্ঘ ৫শত বছর ধরে তারা দেখাশুনা করে আসছিল। কিন্তু হঠাত করে গত ৫ বছর ধরে তারা (বর্তমানে কাজী বাড়ির লোকেরা) নিজেদের এগুলো সম্পদ বলে এলাকায় গুজব ছড়িয়ে আসছে। এলাকাবাসী ও প্রমাণ দেখতে চাইলে তারা তাদের বানানো কিছু ডকুমেন্ট দেখালেও বর্তমান সময়ে এসে বিশাল পুকুরসহ আশেপাশের জায়গায়গুলো উদ্ধারে টক অব দ্যা লাকসাম উপজেলা ছাড়িয়ে এখন আধুনিক প্রযুক্তির ছোয়ায় দেশ হতে দেশান্তরে ছাড়িয়ে এখন সারা বিশ্বের মানুষের মুখে মুখে। কিন্তু তারপরও তাদের দম্ভোক্তি এগুলো তাদের জায়গা,তাদের পিতৃক সম্পত্তি। দেশের জাতীয় দৈনিক, কুমিল্লার আঞ্চলিক পত্রিকা, স্থানীয় সাপ্তাহিক পত্রিকাগুলোসহ অনলাইন পত্রিকার মাধ্যমে এখন ঘটনাটি এখন সবাই জানে। কিন্তু জানতে ও মানতে চায় না জোর পূর্বক দখলকারী কথিত দেখাশুনার দাবিদার কাজী বাড়ির উত্তরসূরী মাওলানা ইউসুফগংরা।
জানা গেছে, মোঘল আমল পেরিয়ে বিট্টিশদের প্রায় ১৯০ বছরের শাসনামল, পাকিস্তানিদের ২৪ বছরের আমল পেরিয়ে বর্তমান স্বাধীন বাংলাদেশের প্রায় ৪৪ বছর শেষেও জনপ্রতিনিধিসহ সরকারী ভাবে পুকুরটিকে আয়ত্তে এনে খাসভূমি হিসেবে লিজ দেওয়া কিংবা রাজস্ব আদায়ের চিন্তা করেনি। করলে এতে করে সরকারের যেমন স্বাধীন বাংলাদেশেই লাখ লাখ টাকা রাজস্ব আদায় হতো,তেমনি পুকুর চাষ করে চাষীরা ও উপকৃত হতো। কিন্তু বছরের পর পুকুরটি কখনো মাছ দিয়ে কখনো বা খালি পানিতে পড়ে থাকছে বলে সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে। এলাকা তথা উপজেলার পুরাতন কিছু নথিপত্র ঘেটে জানা গেছে, ৩৬০ জনের অন্যতম সেই আউলিয়ার কোন সন্তানাদি না থাকায় পরবর্তীকালে এগুলো দেখাশুনা করার জন্য তিনি মৌলভী আবু আল আবু বরকত আমানুল্লাহ ও তার পিতা মৌলভী আবু আল মুজাফফর আবদুল্লাহকে মোতয়াল্লী নিযুক্ত করে যান। কালের বিবর্তনে কাজী পরিবার সু-কৌশলে মোতয়াল্লীর পদবী গ্রহন করে নেন। বিভিন্ন ভাবে ভূয়া কাগজপত্র তৈরি করে পুকুরসহ আশেপাশে জায়গাগুলো তাদের বলে আজগুবি কথাবার্তা এলাকায়সহ আশেপাশে ছড়াতে থাকেন। জানা গেছে,পুকুরটির পরিসংখ্যান ১ একর ৩২ শতক। দাগ নং ১৮৯২ আর খতিয়ান নং ৪৩৭। পুকুরটি জনগণের কল্যাণের জন্য খনন করা হয়েছিল বলে ও বিভিন্ন কাগজপত্রে উল্লেখ করা হয়েছে। এছাড়া পুকুরের পাড় ৫৭ শতক,জনগনের চলার পথ ১৮৯ শতক, সি এস খতিয়ানে ১৮৯ শতক,যেহেতু দেওয়ান শাহ (র) কোন সন্তানাদি ছিল না সেহেতু ইউসুফগংরা  একতরফাভাবে পরিকল্পিতভাবে আর  এ এস তাদের নামে করে নেন। এবং বি এস এখনো গেজেট হয়নি। এলাকাবাসী ভূমি মন্ত্রনালয়সহ থানা,জেলা ভূমি কর্মকর্তাদের কাছে এ ব্যাপারে দরখাস্ত করেন। তারই সুবাদে লাকসাম এসিল্যান্ড আয়েশা বেগম নরপাটি ভূূমি অফিসে কর্মকর্তা সুত্রধরকে সরেজমিনে গিয়ে মাওলানা ইউসুফ গংদের কাগজপত্র দেখাতে বললে বৈধ কোন কাগজপত্র দেখাতে পারেনি। বৈধ কোন কাগজপত্র না থাকায় উক্ত পুকুরটি সরকারের ১নং খাল খতিয়ানে অন্তর্ভূক্ত করার জন্য এসিল্যান্ডকে অনুরোধ করেন। এদিকে এসিল্যান্ড আয়েশা বেগমের সাতে যোগাযোগ করা হলেও তার ব্যবহৃত মুঠোফোন কখনো বন্ধ,কখনো খোলা হয়ে আবার বন্ধ হয়ে যাওয়ায় টানা এক সপ্তাহেও কোন প্রতিক্রিয়া জানতে পারিনি। তবে এলাকার শিানুরাগী পেয়ার আহমেদ জানান পুকুরটি যেভাবে হোক এলাকায় আছে,যদি এটি খাস হয়ে থাকে তবে এটি লিজ দিলে কৃষক তথা চাষী ও উপকৃত হবে,সরকারও রাজস্ব আদায় করতে পারবে।্ এলাকার মেম্বার আবু তাহের বলেন আমরা আইনি প্রক্রিয়া চালিয়ে যাচ্ছি,পুকুর যদি খাস বা সরকারি হয়ে থাকে,তাহলে সরকারি ভাবে প্রশাসনকেও পুকুর উদ্ধারে এগিয়ে আসা উচিত। এদিকে মাওলানা ইউসুফকে মুঠোফোনে কল করলে তিনি জানান পুকুর কার সম্পত্তি তা কাগজপত্রেই দেখতে পাবেন। আমি এ ব্যপারে বেশিকিছু মন্তব্য করবো না। তবে এইটুকু বলবো যারা আমার সম্পত্তিকে খাস বা দেওয়ানশাহ (র) এর স¤পত্তি বানাতে এলাকায় ও পত্রপত্রিকায় লেখালেখি করছে সবাই এই সম্পত্তি ভোগ দখল করতে চায়। আমি বেচে থাকতে তা হতে দেবো না।
এদিকে গত ঈদের পর এক বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের সাথে এলাকার মানুষদের এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছিল। আগামী শুক্রবারও হওয়ার কথা রয়েছে। এতে করে এলাকাবাসীর একটিই কথা মাওলানা ইউসুফ সরকারি খাস তথা হযরত দেওয়ানশাহ (র) এর সম্পত্তি কিভাবে নিজের নামে জাল দলিল তথা কাগজপত্র করলেন? এটি জানতে চোখ রাখুন আগামী সংখ্যায়।


আজিম উল্যাহ হানিফ
মোবাইল-০১৮৩৪৩৮৯৮৭১
তাং-০৯-১১-২০১৪

 

 

 

For Advertisement

Unauthorized use of news, image, information, etc published by Amader Nangalkot is punishable by copyright law. Appropriate legal steps will be taken by the management against any person or body that infringes those laws.

Comments: