বটিয়াঘাটায় ইউএনও হস্তক্ষেপে ৭শ টাকার বীজ ধান ৩৫০ টাকায় বিক্রি | আমাদের নাঙ্গলকোট
সর্বশেষ সংবাদ
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ বিশ্ব পর্যটন দিবস ও আমাদের সম্ভাবনা ◈ মোল্লা নিয়ে আলোচনা -সমালোচনা- এ,কে,এম মনিরুল হক ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ
প্রচ্ছদ / সারাদেশ / বিস্তারিত

বটিয়াঘাটায় ইউএনও হস্তক্ষেপে ৭শ টাকার বীজ ধান ৩৫০ টাকায় বিক্রি

14 July 2017, 10:37:49

বটিয়াঘাটা প্রতিনিধি :

উপজেলার বারোআড়িয়া বাজারের সার ও বীজ ধানের ডিলার বিদ্যুৎ মল্লিক দির্ঘ দিন যাবৎ ডেট ফেল কীটনাশক ও সরকারী মুল্যের চেয়ে দিগুণ দামে বীজ ধান বিক্রি করার অভিযোগ উঠেছে। এ ব্যাপারে এলাকা বাসি তার ডিলারশীপ বাতিলের দাবী করেছন। এলাকাবাসী জানান সুজন কৃষি ষ্টোরের মালিক বিদ্যুৎ দির্ঘ দিন যাবৎ সরকারী বীজ ধান যার মুল্য ৩শ পঞ্চাশ টাকা সেটা ৭শ পঞ্চাশ টাকা আর যে ধানের সুল্য ৪ টাকা সে ধান প্রায় ৮ শ টাকা বিক্রি করে চলেছে। বিষয়টি জানাজানি হলে এলাকার লোকজন গোপনে ধান কিনতে যায় ঐ ডিলারের কাছে কিন্ত সুচতুর ডিলার ধান নাই বলে এলাকার লোকদের সাফ জানিয়ে দেন। কিন্ত গতকাল শুক্রবার সকাল ১০ টার সময় স্হানীয় মেম্বর জাহিদুর রহমান দেখতে পান ভ্যান যোগে পাইকগাছা ও ডুমুরিয়ার কিছু লোক বীজধান নিয়ে যাচ্ছে তখন মেম্বর তাদের কাছে জানতে চাইলে তারা বলেন, আমরা বিদ্যুৎ এর নিকট থেকে সাড়ে ৭ শ টাকায় প্রতি বস্তা ধান ক্রয় করেছি। এ সময় মেম্বর ১২ বস্তা ধানসহ ৪জনকে আটক করে স্হানীয় পুলিশ, সাংবাদিক ও এলাকা বাসীদের খবর দেয়। বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ কামরুজ্জামানকে অবহিত করলে তার নির্দেশে ঐ ডিলারের সকল গোডাউনের বীজ ধান চীচ করে এলাকা বাসি মধ্যে সরকারের নির্ধারিত মুল্যে উপজেলা কৃষি অফিসের প্রতিনিধি, ক্যাস্প ইনচার্য সোহাগ, প্রেসক্লাব সভাপতি মহিদুল ইসলাম শাহীন, মেম্বর জাহিদুর রহমান,সাবেক চেয়ারম্যান হেমায়েত আলি, ওয়াহিদুর রহমান, প্রদীপ কুমার মন্ডল, আমিনুর শেখ, হাফিজুর রহমান, কামরুলসহ শত শত লোকের উপস্হিতিতে কৃষকের মাঝে ৭২ বস্তা বীজ ধান নেয্যমুল্যে বিক্রি করা হয়। অন্যদিকে একই ডিলারের ২৫ বস্তা ধান ট্রলার থেকে ক্যাম্পের দারোগা চীচ করে মেম্বরের জিম্মাদায় রাখা হয়। ঐ ধান পাইকগাছায় যাচ্ছিল। ঐ ডিলার দির্ঘ দিন যাবৎ মেয়াদ উওীর্ন কীটনাশক, বীজধান দিগুণ মুল্যে বিক্রি করার শত শত প্রমান রয়েছে। এলাকা বাসীরা তার ডিলারশীপ বাতিলের জন্য মামলা করার প্রস্তুতি চলছে। এ বিষয় বিদ্যুৎ মল্লিকের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি বাজারের ডিলার যে কোন জায়গায় আমি ধান বিক্রি করতে পারি। তিনি আরও বলেন বেশি দামে বীজধান ক্রয় করেছি যে কারনে একটু বেশি দামে বিক্রি করছি। সার্বিক বিষয় উপজেলা নির্বাহী অফিসার  মোঃ কামরুজ্জামান বলেন, আমি বেশিদামে ধান বিক্রি হচ্ছে এমন খবর পাওয়ার সাথে গোডাউন চীচ করে নেয্যমুলে কৃষকের কাছে বিক্রি করার অনুমিত দিয়েছি তবে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ সত্য প্রমানিত হলে তার ডিলারশীপ বাতিল হবে। এলাকা বাসীরা বিদ্যুৎতের ডিলারশীপ বাতিলের জোর দাবী জানান।

Amader Nangalkot'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকা তথ্য মন্ত্রনালয়ের তালিকাভক্তি নং- ১০৫।

পাঠকের মন্তব্য: