মিরাজের রেকর্ডময় বাংলাদেশের টেস্ট জয় | আমাদের নাঙ্গলকোট
সর্বশেষ সংবাদ
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ বিশ্ব পর্যটন দিবস ও আমাদের সম্ভাবনা ◈ মোল্লা নিয়ে আলোচনা -সমালোচনা- এ,কে,এম মনিরুল হক ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ
প্রচ্ছদ / খেলাধুলা / বিস্তারিত

মিরাজের রেকর্ডময় বাংলাদেশের টেস্ট জয়

30 October 2016, 6:15:08

ঐতিহাসিক। গৌরবের। আনন্দের। বাংলাদেশের ক্রিকেটে নতুন দিগন্ত এনে দেওয়ার কি নয়? তারা ক্রিকেটের সবচেয়ে আদি দল, সবচেয়ে অভিজাত ইতিহাসের। সেই ইংল্যান্ডকে আজ টেস্টে হারিয়ে দিল বাংলাদেশ। দ্বিতীয় ইনিংসে ইংল্যান্ডকে ১৬৪ রানে অল আউট করে মিরপুর টেস্ট জিতল ১০৮ রানে। এর আগে জিম্বাবুয়ে, ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে জিতলেও এই জয়ের মাহাত্ম্য অন্য রকম। এ সময়ের অন্যতম সেরা দলকে হারানো বাংলাদেশকে টেস্ট ক্রিকেটেও এনে দেবে নতুন আত্মবিশ্বাস।

এর আগে ৯টি টেস্টে মুখোমুখি হয়েছিল দুই দল। এতো একবারও জয়ের দেখা পায়নি বাংলাদেশ। তবে ১০তম টেস্টে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ঐতিহাসিক জয়ের স্বাদ পেয়েছে বাংলাদেশ ।

চলমান সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টে সফরকারী ইংল্যান্ডকে ১০৮ রানের বিশাল ব্যবধানে হারিয়ে প্রথমবারের মতো ইংলিশদের বিপক্ষে টেস্টে জয় তুলে নিয়েছে টাইগাররা। এতে ১-১ সমতায় শেষ হলো টেস্ট সিরিজ।

অপরদিকে চট্টগ্রামে অভিষেক টেস্টেই চিনিয়েছিলেন নিজের জাত চিনিয়েছেন সাবেক যুবা অধিনায়ক মেহেদী হাসান মিরাজ। প্রথম ইনিংসেই তিনি তুলে নেন ছয়টি উইকেট।

ওই টেস্টেই হয়তো পেতেন প্রথম ১০ উইকেটের দেখা। তবে সিনিয়র সতীর্থ বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান জ্বলে ওঠায় দ্বিতীয় ইনিংসে পার্শ্ব নায়ক হয়েই থাকতে হয় এই অলরাউন্ডারকে। তবে ঢাকা টেস্টে সে আক্ষেপ ঘুচিয়েছেন অনূধ্ব-১৯ দলের সাবেক এই অধিনায়ক।

১৯ বছর বয়সি এই ক্রিকেটার অভিষেকের পর দ্বিতীয় টেস্টেই তুলে নিলেন প্রথম ১২ উইকেট। একই সঙ্গে অভিষেকের পর প্রথম দুই টেস্টে সর্বাধিক উইকেট নেবার রেকর্ডকে ছুয়ে ফেলেন এ নবীন। প্রথম চার ইনিংসের তিনটি ৫ উইকেট পাওয়া তৃতীয় বোলার তিনি।

প্রথম দুই টেস্টে এ পর্যন্ত ১৯টি উইকেট নিয়েছেন মিরাজ। তার থেকে ১ উইকেট কম নিয়ে বিশ্বরেকর্ডটি এতোদিন একার ছিল অস্ট্রেলিয়ান জন জেমস ফ্যারিসের। ১৮৮৭ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম টেস্টে ১১ উইকেট নেওয়ার পর দ্বিতীয় টেস্টে নিয়েছিলেন ৭ উইকেট। তবে এ রেকর্ডটি এবার একান্তই নিজের করে নিলেন মিরাজ।

শুরুটা করেছিলেন মেহেদী মিরাজ। শেষটা টেনে দিলেন সাকিব আল হাসান। এই দুইয়ের ঘূর্ণিতে পড়েই আর দাঁড়াতে পারল না ইংল্যান্ড। ৭৭ রানে ৬ উইকেট মিরাজের। ৪৯ রানে ৪ উইকেট নিয়েছেন সাকিব। বিনা উইকেটে ১০০ রান তুলে ফেলা ইংল্যান্ড শেষ পর্যন্ত আর ৬৪ রান যোগ করতেই অল আউট হয়ে গেল। এক সেশনেই ইংল্যান্ডের ১০ উইকেট তুলে নিল বাংলাদেশ।
অথচ চা বিরতির আগ পর্যন্তও কী অসহায় না লাগছিল বাংলাদেশ দলকে। ‘একটা উইকেট লাগবে, একটা উইকেট’। স্টাম্পের মাইক্রোফোন থেকে বারবার ভেসে আসছিল মুশফিকের আকুতি। একটা উইকেট পড়লেই যে ছন্দটা কেটে যায়। যে ছন্দে অনায়াসে বিনা উইকেটে ১০০ তুলে ফেলল ইংল্যান্ড!
সেই একটা উইকেট যখন পড়ল, শুরু হয়ে গেল উইকেটের বৃষ্টি; যা আর থামাতে পারেনি ইংল্যান্ড। দুই ইংলিশ ওপেনার ফিফটি করেছেন। অ্যালিস্টার কুক ৫৯, বেন ডাকেট ৫৬। এ ছাড়া দুই অঙ্ক ছুঁয়েছেন কেবল বেন স্টোকস (২৫)। বাকি আট ব্যাটসম্যান মিলে যোগ করেছেন মাত্র ১৮ রান!
একটা উইকেট পড়লেই ছন্দ যে কেটে যেত, সেটা বোঝা গেল চা বিরতির পর করা বাংলাদেশের দুই ওভারের প্রথম দুই বলে। প্রথমে মিরাজ, এরপর সাকিব। এই জোড়া আঘাতেই আশা জাগল বাংলাদেশের। কুকের সঙ্গে ওপেনিংয়ে ১০০ রান এনে দেওয়া ডাকেট ফিরলেন, খানিক পরে জো রুটও (১)। এরপর নিজের ১৫তম ওভারে মিরাজ একাই জোড়া আঘাত হানলেন। গ্যারি ব্যালেন্স (৫) ও মঈন আলী (০) ফিরলেন পরপর। মিরাজের পরে ওভারে আবারও উইকেট! এবার ফিরলেন একপ্রান্ত আগলে রাখা কুক।
শুরুতে কুক আর ডাকেট মিলে কিন্তু বেশ ভোগাচ্ছিলেন। ২৭৩ রানের কঠিন লক্ষ্যটা তখন মনে হচ্ছিল কী সহজ! বিশেষ করে ডাকেট সুইপ ও রিভার্স সুইপে বাংলাদেশি স্পিনারদের লাইন-লেংথ এলোমেলো করে দিয়েছেন। তাঁর কারণেই থিতু হতে পারেনি স্পিনাররা। মাহমুদউল্লাহ তখন হাত কামড়াচ্ছিলেন ইনিংসের পঞ্চম ওভারেই ডাকেটের সহজ ক্যাচ ফেলেছিলেন বলে।
কিন্তু ওই ‘একটা উইকেটে’র আঘাতই ডমিনো এফেক্ট এনে দিল। বিনা উইকেটে ১০০ থেকে ৫ উইকেটে ১২৭। মাত্র ২৭ রানের মধ্যে প্রথম ৫ ব্যাটসম্যানকে হারাল ইংল্যান্ড।
বারবার উদ্ধার করা ইংলিশ লোয়ার-মিডল অর্ডার এবারও ভোগানোর ইঙ্গিত দিচ্ছিল। স্টোকস আর বেয়ারস্টো মিলে যখন ২২ রান তুলে ফেললেন সপ্তম উইকেট জুটিতে। বেয়ারস্টোকে ফিরিয়ে চার ইনিংসে তৃতীয়বারের মতো পাঁচ উইকেট পূর্ণ করলেন।
এখান থেকেই শুরু সাকিবের জাদু। সাকিবের এক ওভারেই ফিরলেন স্টোকস, আদিল রশিদ ও আনসারি। মিরাজ শেষটা টেনে দিলেন স্টিভেন ফিনকে এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলে। উৎসবে মাতোয়ারা বাংলাদেশ!
চট্টগ্রাম টেস্টের ২২ রানের আক্ষেপ কি ঘুচল? ১৩ বছর ধরে পুষে রাখা মুলতানের সেই কষ্টও? চট্টগ্রামে ২৩ রানের দূরত্বটা ঘুচিয়ে দিতে পারলে কিন্তু সিরিজের ফলটা ২-০ হতো!

 

মোহাম্মদ ইব্রাহিম খলিল, ক্রীড়া প্রতিবেদক, দৈনিক আমাদের নাঙ্গলকোট

Amader Nangalkot'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকা তথ্য মন্ত্রনালয়ের তালিকাভক্তি নং- ১০৫।

পাঠকের মন্তব্য: