সর্বশেষ সংবাদ
◈ রুপগঞ্জে ভলেন্টিয়ার ফর দ্যা আর্থের ফ্রি ডেন্টাল ক্যাম্প ◈ টি-টেন ক্রিকেট টুর্নামেন্ট চ্যাম্পিয়ন হাসানপুর স্পোর্টিং ক্লাব ◈ নাঙ্গলকোট দৌলখাঁড় ইউনিয়নে চলছে বিধবা, বয়স্ক, প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের শতভাগ ভাতার আওতায় আনার তথ্য সংগ্রহ ◈ বসন্তের গান-মোঃ ফজলুল করিম ◈ নাঙ্গলকোটে মাদক মামলায় সাজাপ্রাপ্ত-৩ ◈ নাঙ্গলকোট থানার নবনিযুক্ত ওসি বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরীর সাথে সৌজন্য সাক্ষাত ও ফুলেল শুভেচ্ছা সাংবাদিক সমিতির  ◈ ক্যান্সার আক্রান্ত ইসমাইলের চিকিৎসার জন্য সবাইকে এগিয়ে আসার আহবান ◈ নাঙ্গলকোটে সাংবাদিকের উপর সন্ত্রাসী হামলার তীব্র প্রতিবাদ ◈ একটি শোক-সংবাদ ◈ নাঙ্গলকোটে এডুকেয়ার স্কুলের এসএসসি পরীক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্ঠান- ২০২০ অনুষ্ঠিত

বাপ্পি মজুমদার ইউনুস’র বিরুদ্ধে প্রচারিত সংবাদের চ্যালেঞ্জ ও প্রতিবাদ

29 December 2019, 4:50:29

স্টাফ রিপোর্টার।।
দৈনিক আমাদের নাঙ্গলকোট প্রকাশক ও সম্পাদক, নাঙ্গলকোট সাংবাদিক সমিতির সভাপতি বাপ্পি মজুমদার ইউনুসের বিরুদ্ধে প্রচারিত সংবাদের প্রতিবাদ, নিন্দা ও চ্যালেঞ্জ করেছেন তিনি। গত ২৭ ডিসেম্বর ২০১৯ কুমিল্লা ডট টিভি নামে একটি ফেসবুক পেজে “নাঙ্গলকোটে স্কুলে তালা দেওয়ার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল” শিরোনামে তার বিরুদ্ধে মিথ্যা সংবাদ ভিডিও আকারে প্রচারিত হয়। সে সংবাদে তার বিরুদ্ধে একটি কুচক্রীমহল উদ্দেশ্য প্রণোদিত ভাবে, স্থানীয় সংবাদকর্মীদের ভুল তথ্য প্রদানের মাধ্যমে একটি সংবাদ প্রচার করে। উক্ত সংবাদে তাকে (কান্দাল ইসলামিয়া কিন্ডারগার্টেন)  স্কুলে তালা দেওয়া, রাজনৈতিক দলের নেতা, স্কুলের পাশে অন্য একটি স্কুল চালু করা, চাঁদা দাবি করাসহ নানা অভিযোগ আনা হয় তার বিরুদ্ধে। যা সম্পূর্ণ মিথ্যা, বানোয়াট, ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্য প্রণোদিত। যার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন তিনি। সংবাদে প্রচারিত সংবাদিক ও স্থানীয়দের বক্তব্যের প্রমাণ করার জন্য চেলেঞ্জ দিয়েছেন তিনি, অন্যথায় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের হুশিয়ারি উচ্চারণ করেন বাপ্পি মজুমদার ইউনুস।

এ বিষয়ে বাপ্পি মজুমদার ইউনুস বলেন, মহামন্য আদালতের নোটিশ অনুযায়ী গত ২২ ডিসেম্বর পি. আর. মামলা ১৭২৮/১৯ অনুযায়ী নালশী ভূমিতে উভয় পক্ষের সকল প্রকার কার্যক্রম স্থগিত রাখার নির্দেশ দিয়েছেন। বর্তমানে সে ভূমিটি অভিযুক্তদের নিকট কান্দাল ইসলামিয়া কিন্ডারগার্টেন নামে একটি প্রতিষ্ঠান পরিচালিত হয়ে আসছে। তারাই তালা লাগিয়ে রেখেছে স্কুলে, আমি থাকি কুমিল্লায়। আমি নাঙ্গলকোট গিয়ে অন্যের স্কুলে তালা দেবো কিভাবে? তিনি আরো বলেন, চাঁদা, দাবি, স্কুলে তালা দেওয়াসহ যে অভিযোগ আনা হয়েছে সব মিথ্যা। বছরের পর পর ওয়াকফ জমি দখল করে ব্যক্তিমালিকানাদীন কিন্ডারগার্টেন চালিয়ে আসছে একটি গোষ্ঠী। মূলত, শিক্ষার নামে কাঁচা টাকার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান তৈরি করছে তারা। এছাড়া ওয়াকফ জমিতে তারা বাণিজ্যিক দোকান চালু করে ভাড়া ভোগ করছে স্কুল কতৃপক্ষ। এছাড়া এ সংবাদের রিপোর্টার শরীফ আহামেদ মজুমদার আমাকে কল ও ক্ষুদে বার্তা (এসএমএস) পাঠিয়েছে বলে যে দাবি করেছে তা মিথ্যা। প্রকৃত পক্ষে আমার ব্যক্তিগত মোবাইল নম্বর (০১৯৩০১০৬২৬৩) যা ২০০৭ সাল থেকে ব্যবহৃত হয়ে আসছি। এতে কোন কল, এসএমএস আসেনি। আদালতে যে বিষয়টি উপস্থাপিত হয়েছে তা সামাজিক বিষয়,কিন্তু নিউজে এককভাবে আমার নামে মিথ্যা অপপ্রচার চালানো হয়েছে।আমি এর তীব্র প্রতিবাদ ও ধিক্কার জানাচ্ছি এবং এ বিষয়ে প্রতিপক্ষ যথাযথ পদক্ষেপ না নিলে, আমি আইনের আশ্রয় নিতে বাধ্য থাকিব।

মাহামান্য আদালতের আদেশ উপেক্ষা করে, সাজানো এ সংবাদে বক্তব্য দেওয়া, এ সংবাদ প্রচার করা আদালত অবমননা করা। কল লিষ্ট ও এসএমএসনের বিষয়টি প্রমাণসহ কোর্টে জমা দেওয়া হবে। সে রিপোর্টারকে আইসিটি আইনে মামলা দেওয়া হবে। এ সংবাদে এক পক্ষের বক্তব্য রয়েছে। প্রশাসনের বক্তব্য নেই, সরকারের দায়িত্ব প্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানের বক্তব্য নেই। কোন প্রকার যাচাই বাচাই ছাড়া সংবাদটি প্রচার করা হয়েছে। যা একজন মানুষের জন্য মানহানিকর। আদালতের নির্দেশে উক্ত প্রতিষ্ঠানসহ সকল কার্যক্রম বন্ধ করে দেয় নাঙ্গলকোট থানা পুলিশ। আদালতের র্নিদেশ না আসা পর্যন্ত এখানে কোন কার্যক্রম চালানো যাবে না।

মো. হেদায়েত উল্লাহ মজুমদার বলেন, আমার ছেলেকে ফাঁসাতে  তারা কিছু ভাড়া টিয়া সাংবাদিক নিয়ে আসে এলাকায়। যারা সত্যকে মিথ্যা হিসাবে তুলে ধরেছে। একটা মানুষের বিরুদ্ধে যদি অভিযোগ থাকে উভয় পক্ষের বক্তব্য দিয়ে সংবাদ প্রচার হবে। এক পক্ষের কথা দিয়ে তো কোন সংবাদ হতে পারে না। এটা সংবাদের ধর্ম নয়।

কান্দালা গ্রামের বাসিন্দা আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, ফোরকানিয়া হাফিজিয়া মাদ্রাসা ১৯৮৮ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে মৌকারা দরবারের মরহুম পীর সাহেব এ মাদ্রাসায় বার্ষিক মাহফিল করতেন ও ইসলামি জলসার আয়োজন হতো কিন্তুু কিছু অর্থলোভী লোকের কারণে এ পবিত্র ভূমিতে কিন্ডারগার্টেন তৈরি করে বছর বছর গানের কনসার্ট করা হয়। অথচ আমরা প্রতি বছর এখানে ঈদের নামাজ আদায় করি। আমরা চাই এখানে আবার হাফিজিয়া মাদ্রাসা চালু হোক, কোরআনের আওয়াজ আবার মুখরিত হোক সমাজে। আমাদের মুরব্বিরা এ জমিটা ওয়াকফ করে দিয়েছেন হাফিজিয়া মাদ্রাসার নামে।

প্রধান সাক্ষী মাওলানা মহিউদ্দিন জানান: ১৯৯১ সনে এই সম্পত্তি ফোরকানিয়া হাফিজিয়া মাদ্রাসার নামে খতিয়ানভুক্ত হয়। আমাদের মুরুব্বিগণ উক্ত সম্পত্তি দান করেছেন ফোরকানিয়া মাদ্রাসা পরিচালনার জন্য কিন্তু দ্বিতীয় পক্ষ জোরপূর্বক ভাবে দীর্ঘদিন যাবৎ কিন্টারগার্ডেন স্কুল চালাচ্ছেন। সামাজিকভাবে অনেকবার মীমাংসা করার জন্য বসা হলো তার সমাধান করা যায়নি।

স্থানীয় ইউপি সদস্য আইয়ূব আলী মজুমদার জানান, এ বিষয়টি নাঙ্গলকোর্ট থানার এস আই ফয়েজ উদ্দিন চৌধুরীর নেতৃত্বে উভয় পক্ষের উপস্থিতিতে মহামান্য আদালতের আদেশটি জানানো হয়েছে। উক্ত ভূমিতে পরবর্তী ঘোষণা না আসা পর্যন্ত সকল কার্যক্রম বন্ধ ঘোষণা করেছেন।

স্থানীয় ইউপি সদস্য মহিনুদ্দিন মেজ নাম্বার বলেন: আমাদের দুই মেম্বারকে এবং ইউনিয়ন যুবলীগের সম্মানিত সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের সামনে আদালতের নির্দেশক্রমে প্রতিষ্ঠানটির এবং উভয় পক্ষের সকল কার্যক্রম স্থগিত করেছে এবং জানিয়ে দেওয়া হয়েছে শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখার। কিন্তু সোশ্যাল মিডিয়ায় যেসব বক্তব্য উঠে এসেছে সে সকলের কোন ভিত্তি নেই। আমরা আইনকে শ্রদ্ধা করি, আমি আশা করব উভয়পক্ষে সে বিষয়টি লক্ষ্য রাখবে এবং মহামান্য আদালতের আদেশ মেনে চলবে।

Amader Nangalkot'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকা তথ্য মন্ত্রনালয়ের তালিকাভক্তি নং- ১০৫।

পাঠকের মন্তব্য: