বাবুই পাখির দৃষ্টিনন্দন বাসা আগের মত আর চোখে পড়ে না | আমাদের নাঙ্গলকোট
সর্বশেষ সংবাদ
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ ◈ অনুকূল পরিবেশ হলে এইচএসসি পরীক্ষা ◈ কুমিল্লায় বিপুল ইয়াবাসহ দম্পতি আটক!
প্রচ্ছদ / সারাদেশ / বিস্তারিত

বাবুই পাখির দৃষ্টিনন্দন বাসা আগের মত আর চোখে পড়ে না

14 January 2017, 8:15:36

মুহম্মদ নাঈমুজ্জামান শরীফ, খুলনা সংবাদদাতা
আজ আমাদের পরিবেশের মাঝ থেকে হারাতে বসেছে বাবুই পখির বাসা। খুলনা জেলাসহ আশপাশ এলাকার বিভিন্ন গ্রামে এখন আর আগের মত বাবুই পাখির নিপুন তৈরি করা দৃষ্টিনন্দন বাসা চোখে পড়ে না। মানুষকে মানবিকভাবে জাগ্রত করার জন্য,রজনীকান্ত সেন বাবুই পাখিকে নিয়ে রচনা করেন কবিতা, “বাবুই পাখিরে ডাকি বলিছে চড়াই,কুঁড়ে ঘরে থেকে কর শিল্পের বড়াই! আমি থাকি মহা সুখে অট্রালিকা পরে, তুমি কত পাও কষ্ট রোদ বৃষ্টি ঝড়ে। পাকা হোক তবু ভাই পরের বাসা,নিচ হাতে গড়া মোর কাঁচা ঘর খাসা”। আজ অনেকটা স্মৃতির অন্তরালে বিলীন হয়ে যাচ্ছে বাবুই পাখির বাসা। ১০-১৫ বছর আগে ও গ্রাম-গঞ্জে নারকেল সুপারি ও তাল গাছে দেখা যেত নিপুণ কারু কাজের তৈরি দৃষ্টিনন্দন বাবুই পাখির বাসা। খড়, তাল গাছের কচি ঝাউ ও কাশবনের লতা-পাতা দিয়ে উচু তাল-পাতা দিয়ে উচু তালগাছে চমৎকার বাসা তৈরি করতো বাবুই পখি। বাবুই পাখির অন্যতম বৈশিষ্ট হলো রাতের বেলায় ঘরকে আলোকিত করতে জোনাকি পোকা ধরে নিয়ে বাষায় রাখতো এবং সকাল হলে ছেড়ে দেয়। একটি বাসা তৈরি করার পর পুরুষ বাবুই পাখির সঙ্গীর খোঁজে নামে। সঙ্গী পছন্দ হলে স্ত্রী বাবুই পাখিকে সাথী বানানোর প্রয়োজনে পরুষ বাবুই নিজেকে আকর্ষণীয় করতে খাল,বিল ও ডোবায় ফুর্তিতে নেচে গেয়ে বেড়ায় গাছের এ ডালে ও ডালে। বাবুই পাখি সাধারণত খেজুর,নারকেল,তাল ও আখ ক্ষেতে বাসা বাঁধে। ধান,চাল,গম ও পোকা-মাকড় ইত্যাদি তাদের প্রধান খাবার। একসময় খুলনা জেলার ভিবিন্ন এলাকার গ্রাম গুলতে দেখা যেত শ’ শ’ বাবুই পাখির বাসা। পূর্বে যখন গাছপালা বেশী ছিল তখন বাবুই পাখিরা গাছে বাসা বাঁধতো, কত না ভালো লাগত।বর্তমানে যেমন তালগাছসহ বিভিন্ন গাছ নির্বিচারে নিধন করা হচ্ছে,তেমনি হারিয়ে যাচ্ছে বাবুই পাখিও। বাবুই পাখির এ শৈল্পিক নিদর্শনকে টিকিয়ে রাখার জন্য সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহন করা দরকার।

Amader Nangalkot'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকা তথ্য মন্ত্রনালয়ের তালিকাভক্তি নং- ১০৫।

পাঠকের মন্তব্য: