বিরহের চিঠি :: মো:শাহাদাত ইসলাম সবুজ | আমাদের নাঙ্গলকোট
সর্বশেষ সংবাদ
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ বিশ্ব পর্যটন দিবস ও আমাদের সম্ভাবনা ◈ মোল্লা নিয়ে আলোচনা -সমালোচনা- এ,কে,এম মনিরুল হক ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ

বিরহের চিঠি :: মো:শাহাদাত ইসলাম সবুজ

7 March 2017, 10:37:08

বিরহের চিঠি
মো:শাহাদাত ইসলাম সবুজ

 
‘এই’ অবেলার মাঠে কি আর আসবে-
কণ্ঠ স্তব্ধ করে নয়নে ডেকে-ডেকে,
আজো কি আমায় ভালবাসবে?
বয়ে যাওয়া মুহুর্ত গুলোর স্মৃতি,
হঠাৎ বৃষ্টিতে ভিজে,মেঠু পথে ছোটা-ছোটি!
কোনো এক সময় ক্লান্তি দেহে ঘরে ফেরা,
ওরকম এক আবদার কি আর করবে?
গভীর রাত পর্যন্ত কি আর বসে থাকবে,
আর কি তেমন বায়না ধরবে-
আমার দুর্বলতার পিছু ছোটে?
আমায় কি আর শাসন করতে পারবে?
সেদিন নানান প্রশ্ন করেছিলে আমায়,
না জানি,কত প্রশ্ন হৃদয়ে জমা –
সময় হবে কি জানিনা,’না হয়’ সময় হলে বলবে?
আকাশের আলো জেলে,না পাওয়ার হৃদয় মেলে-
না’ জানি কত ভালবাসা দিয়েছ তারে?
যা’ ‘হয়’ত’ শুধু আমায় দিতে,’খুব’ গোপনে!
‘তবে’ আমার জীবনে সয়না এই সবে!
তুমি বোঝতে পেড়েছ আমার জীবন টুকু,
‘তাই’ত’ খুব পূর্বে কেটে পড়েছ নিরবে!
আমায় জানতে দাওনি কি কারণ,
আমি জেনে নিয়েছি ‘বলে আর কি হবে’?
জানো ‘প্রিয়’, আজো তোমায় মনে পড়ে-
না পাওয়ার স্বপ্ন আজো হৃদয় দেখে!
আমার শাসন-বারণ একদম শোনেনা!
হৃদয় সারাক্ষণ তোমায় নিয়ে ভাবে!
‘জানি’না’ তোমায় ভুলতে পারবো কি?
‘তবে’ যেদিন তোমায় ভুলতে পারবো-
সেদিন এই পৃথিবী আমার থাকবে না!
তুমি কি আজো মনে করো আমায়-
না সব ভুলে গেলে সংসার ব্যস্ততায়?
আজ তুমি নেই,’কিন্তু’ চোখের দেখা সবি আছে।
এই সবের মাজে তোমায় খোঁজে পাই,
তুমি’ত আর আমায় খোঁজবে না!
খোঁজবেই বা’ কেনো,তুমি যে অন্যর ললনা!
‘কিন্তু’আমি কাউকে ঠাই দিতে পারছিনা,
বিরহের জ্বালা যেন আমায় কাঁদায়!
সারাটি রাত-নিশি প্রতিক্ষণ,
কেবল তোমায় মনে পড়ে-যেদিক নয়ন পড়ে!
এই’ত এলে পাশে-চলে গেলে অদূরে-
তবু যেন খুব নিকট,খুব পাশে!
‘কারণ’ তুমি’ত পৃথিবীর বাহিরে নয়,
পৃতিবীর মধ্য বা’ শেষ প্রান্তে আছ।
আলো-বাতাস,ছাঁয়া-মেঘ,চন্দ্র-সূর্য-
এই গুলো স্পর্শের রশ্মি দিয়ে ছোঁয়ে যায়।
এ’ অনুভুতি যেন তোমার হাতের ছোঁয়া!
এই’ত এমন হয়,আমার রাত-তোমার দিন-
এমন এলো-মেলো হয়ে সময় কাটে!
‘তবু’যে আমরা এক পৃথিবীর বন্ধনে আছি,
বেঁচে আছি এমন অনুভূতির পড়শে!
আমার আলো-বাতাস গুলো বারবার-
‘শুধু’ তোমায় মনে করে দেয়!
এই বুজি তুমি এলে আমার সামনে-
এই বুজি আমায় ডাকছ ভালবাসা দিয়ে!
চলে যেতে-যেতে কি বলেছ মনে পড়ে?
বলেছিলে’,’আমি যেন সুখে থাকি’!
খুব হেসে বিদায় নিলে,হা!হা!হা!!
‘সুখ’এই শব্দ জীবন হতে হারিয়ে গেছে-
যেদিন আমায়,তোমায় ভুলতে বলেছ!
তুমি হয়’ত দেখনি,ওই সময়ের অনুভুতিয

Amader Nangalkot'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকা তথ্য মন্ত্রনালয়ের তালিকাভক্তি নং- ১০৫।

পাঠকের মন্তব্য: