ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ২ সন্তানসহ গৃহবধূর আত্মহত্যা! | আমাদের নাঙ্গলকোট
সর্বশেষ সংবাদ
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ বিশ্ব পর্যটন দিবস ও আমাদের সম্ভাবনা ◈ মোল্লা নিয়ে আলোচনা -সমালোচনা- এ,কে,এম মনিরুল হক ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ২ সন্তানসহ গৃহবধূর আত্মহত্যা!

17 May 2014, 7:52:15

dath-9

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি :–

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় স্বামীর অবহেলা ও অত্যাচার পরকীয়া প্রেম এই সব সইতে না পেরে অবশেষে দুই সন্তানসহ এক গৃহবধূ আত্মহত্যা করেছেন। বৃহস্পতিবার রাতে শহরের মেড্ডা মৌবাগ এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। গৃহবধূর নাম নারগিস আক্তার। এ ঘটনায় তার স্বামী ছেলু মিয়াকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে।ছেলু মিয়া ওই এলাকার মৃত সহিদ মিয়ার বড় ছেলে। তার পরকীয়ার কারণে এমন মর্মান্তিক ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সহকারি পুলিশ সুপার তাপস চন্দ্র ঘোষ জানান, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে বিষ মেশানো খাবার খেয়েই তাদের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনার সঙ্গে কারা জড়িত তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।


পুলিশ জানিয়েছে, বিষ খাইয়ে সন্তানদের হত্যার পর নারগিস নিজেও আত্মহত্যা করে। নারগিসের নিহত দুই সন্তান হল মেয়ে তারিন ও  ছেলে সাফি।
পুলিশ ও এলাকাবাসী জানান, শুক্রবার সকালে মৌবাগ এলাকায় ছেলু মিয়ার বাড়ির শয়ন কক্ষে দরজা বন্ধ থাকায় বাড়ির লোকজন ডাকাডাকি করে। কোনো সাড়া না পেয়ে দরজা ভেঙ্গে ফেলা হয়। সেখানে নারগিস ও তার দুই সন্তানের মরদেহ পাওয়া যায়। লাশ উদ্ধারের পরপর  ছেলু মিয়া বাড়ি থেকে পালিয়ে যায়। পরে তার স্বজনরা কৌশলে তাকে শুক্রবার দুপুরে শহরের পশ্চিম মেড্ডা শরীফপুর এলাকায় ডেকে পুলিশের হাতে তুলে দেয়।

নারগিসের মা মোমেনা বেগম আমাদের নাঙ্গলকোট জানান, ১০/১২ বছর আগে চিলিকুট গ্রামের শাহজাহান মিয়ার মেয়ে নারগিসে সঙ্গে ছেলু মিয়ার বিয়ে হয়। বেশ কয়েক বছর যাবৎ তাদের সংসার ভালোই চলছিলো। ২ বছর যাবত ছেলু মিয়া অন্য এক মহিলার সাঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে। এ নিয়ে তাদের মধ্যে দাম্পত্য কলহ দেখা দেয়। ছেলু মিয়া নারগিসকে  প্রায় সব সময় মারধর করতো।

Amader Nangalkot'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকা তথ্য মন্ত্রনালয়ের তালিকাভক্তি নং- ১০৫।

পাঠকের মন্তব্য: