ভোটারদের আগ্রহ নেই নাঙ্গলকোট ও দাউদকান্দি উপনির্বাচনে | আমাদের নাঙ্গলকোট
সর্বশেষ সংবাদ
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ বিশ্ব পর্যটন দিবস ও আমাদের সম্ভাবনা ◈ মোল্লা নিয়ে আলোচনা -সমালোচনা- এ,কে,এম মনিরুল হক ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ

ভোটারদের আগ্রহ নেই নাঙ্গলকোট ও দাউদকান্দি উপনির্বাচনে

20 June 2014, 10:36:25

Upo_Nirbaconনিজস্ব প্রতিবেদক: কয়েক দিন পরেই জেলার নাঙ্গলকোট ও দাউদকান্দি পৌরসভার মেয়র পদে উপনির্বাচন৷ প্রার্থীরা সেভাবে গণসংযোগ ও প্রচারণা চালাচ্ছেন না৷ গত মঙ্গল ও বুধবার ওই দুই এলাকা ঘুরে এ চিত্র দেখা গেছে৷

উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোট ডাকাতি ও হামলার ঘটনা ঘটায় এ নির্বাচনও সুষ্ঠু হবে না—এমন আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন ভোটাররা৷ এ কারণে তাঁরা এ নির্বাচনের ব্যাপারে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছেন৷

জেলা নির্বাচন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, গত ১৫ মার্চ নাঙ্গলকোট পৌরসভার মেয়র মো. সামছুদ্দিন কালু নাঙ্গলকোট উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে অংশ নিয়ে বিজয়ী হন৷ এরপর পদটি শূন্য হয়৷ এদিকে দাউদকান্দি পৌরসভার মেয়র নাছির উদ্দিন আহমেদ গত ২৫ এপ্রিল হৃদ্রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান৷ এ কারণে পদটি খালি হয়৷ এ অবস্থায় নির্বাচন কমিশন গত ২৫ মে ওই দুই পৌরসভার মেয়র পদে উপনির্বাচনের জন্য তফসিল ঘোষণা করে৷ তফসিল অনুযায়ী ২৫ জুন নাঙ্গলকোট ও ২৬ জুন দাউদকান্দি ভোট গ্রহণ করা হবে৷

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, নাঙ্গলকোট পৌরসভায় মেয়র পদে আওয়ামী লীগ-সমর্থিত এ কে এম মনিরুজ্জামান, উপজেলা বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক তৌহিদুর রহমান মজুমদার ও পৌর বিএনপির অর্থবিষয়ক সম্পাদক মাইনউদ্দিন নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন৷ গত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে কেন্দ্র দখল, প্রিসাইডিং কর্মকর্তাকে মারধর ও বিএনপির জ্যেষ্ঠ নেতাদের হয়রানি করেছিলেন ক্ষমতাসীন দলের লোকজন৷ এ কারণে বিএনপির নেতা-কর্মীরা মনে করছেন, এবারও চাপাচাপি করে ক্ষমতাসীন দলের লোকজন সিল পিটিয়ে ভোট নিয়ে যাবেন৷ তাই এ নির্বাচন নিয়ে তাঁরা কোনো আগ্রহ দেখাচ্ছেন না৷

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পৌর এলাকার হরিপুর, গোত্রশাল ও বেতাগাঁও এলাকার একাধিক ভোটার জানান, নাঙ্গলকোটে সুষ্ঠু নির্বাচন হবে কি না, তা নিয়ে সংশয় আছে৷ বিগত কয়েকটি নির্বাচনে কেন্দ্র দখলের ঘটনা থেকে শিক্ষা নিয়ে ভোটাররা সংশয় প্রকাশ করেছেন৷ এ কারণে নির্বাচন নিয়ে তেমন মাতামাতি নেই৷

বিএনপির দুই নেতা সুষ্ঠু নির্বাচন নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন৷ তবে আওয়ামী লীগ-সমর্থিত প্রার্থী এ কে এম মনিরুজ্জামান বলেছেন, নির্বাচন শান্তিপূর্ণ হবে৷

নাঙ্গলকোট উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. সুহৃদ সালেহীন বলেন, প্রশাসন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করবে৷
অপর দিকে, দাউদকান্দি পৌরসভায় মেয়র পদে প্রার্থী হয়েছেন ছয়জন৷ এর মধ্যে আওয়ামী লীগ থেকে আহসান হাবীব চৌধুরী, মো. শাহজাহান খন্দকার ও শাহ আলম চৌধুরী এবং বিএনপি থেকে কে এম আই খলিল, আব্দুছ ছাত্তার ও কাউছার আলম প্রার্থী হয়েছেন৷ আওয়ামী লীগের সমর্থন পেয়েছেন আহসান হাবীব চৌধুরী৷ বিএনপির কেউ এখন পর্যন্ত দলীয় সমর্থন পাননি৷

আহসান হাবীব চৌধুরী বলেন, নির্বাচনের আরও সময় রয়েছে৷ তখন জমজমাট প্রচারণা হবে৷

দাউদকান্দি উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ফারুক হোসেন বলেন, আচরণবিধি মেনে চলে প্রার্থীদের গণসংযোগ করতে বলা হয়েছে৷ জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা রাশেদুল ইসলাম বলেন, উভয় পৌরসভায় কেবল মেয়র পদে নির্বাচন হবে৷ নির্বাচনে কোনো ধরনের অনিয়ম বরদাশত করা হবে না৷

Amader Nangalkot'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকা তথ্য মন্ত্রনালয়ের তালিকাভক্তি নং- ১০৫।

পাঠকের মন্তব্য: