মনোহরগঞ্জে আ.লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষ ‘ছাত্রলীগ কর্মীর পা কর্তন | আমাদের নাঙ্গলকোট
সর্বশেষ সংবাদ
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ বিশ্ব পর্যটন দিবস ও আমাদের সম্ভাবনা ◈ মোল্লা নিয়ে আলোচনা -সমালোচনা- এ,কে,এম মনিরুল হক ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ

মনোহরগঞ্জে আ.লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষ ‘ছাত্রলীগ কর্মীর পা কর্তন

3 May 2014, 4:53:21

Songhosho

আবদুর রহমান:০৩-০৫-২০১৪

মনোহরগঞ্জে বাজারে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে স্থানীয় আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের মধ্যে কয়েক দফা রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে অন্তত ২০ জন আহত হয়েছে। সংঘর্ষ চলাকালে এক ছাত্রলীগ কর্মীর পা কেটে ফেলার ঘটনা ঘটে।

বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার সকালে উপজেলার হাসনাবাদ বাজার-আশিয়াদারী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে ২ জনকে আটক করেছে বলে জানা গেছে।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত বুধবার বিকেলে উপজেলার হাসনাবাদ বাজারে একটি চা দোকানে বসাকে কেন্দ্র করে স্থানীয় আশিয়াদারী গ্রামের দক্ষিন পাড়া ও উওর পাড়ার (ভূইঁয়া বাড়ী) আওয়ামী লীগ কর্মীদের মধ্যে প্রথমে কথা কাটা-কাটি হয়।

এক পর্যায়ে ঘটনাটি নিয়ে ওইদিন সন্ধ্যায় বাজারে আশিয়াদারী দক্ষিন পাড়া ও উওর পাড়ার আওয়ামী লীগের লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। সংষর্ঘ চলাচালে দক্ষিন পাড়ার লোকের উওর পাড়ার আওয়ামী লীগের অন্তত ৫ জনকে পিটিয়ে আহত হয়। ঘটনার পরদিন বৃহস্পতিবার দুপুরে আশিয়াদারী দক্ষিন পাড়া এলাকার ছাত্রলীগ কর্মী জুয়েল রানা ও দুখু মিয়া উওর পাড়ার উপর দিয়ে বাজারে রওনা দেয়।

এ সময় ওই ঘটনার জের ধরে উওর পাড়া এলাকার আওয়ামী লীগের কর্মীরা জুয়েল ও দুখু মিয়াকে আটক করে এলোপাতাড়ি পিটাতে থাকে। এক পর্যায়ে ওই আওয়ামী লীগ কর্মীরা কুপিয়ে জুয়েলের একটি পা কেটে ফেলে।

পরে স্থানীয় এলাকাবাসী জুয়েলকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধান করে প্রথমে লাকসাম এবং পরে আশংকাজনক অবস্থায় কুমিল্লার একটি হাসপাতালে পাঠায়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে শুক্রবার সকালে ফের হাসনাবাদ বাজারে ওই দুই পক্ষের মধ্যে পূনরায় সংঘর্ষ বাধে। সংঘর্ষ চলাকালে দক্ষিন পাড়া এলাকার আওয়ামী লীগের কর্মীরা উওর পাড়া আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের সকল দোকান-পাট বন্ধ করে দিয়ে ভাংচুর করে। চলতে থাকে দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া।

এ সময় সংঘর্ষে উভয় পক্ষের আহত হয় অন্তত ১৩ জন। গুরতর আহতদের মধ্যে সেলিম মিয়া, আবু তাহের, রাকির, জুয়েল, শাওন মিয়া, শাহাদাত, কাউসারকে লাকসাম ও কুমিল্লার বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। খবর পেয়ে মনোহরগঞ্জ থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে দীর্ঘ চেষ্টার পর দুপুর ১ টার দিকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। পরে এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে ঘটনাস্থল থেকে দুই যুবকে আটক করে পুলিশ।

এ ব্যাপারে উপজেলা যুবলীগের সিনিয়র যুগ্ন-আহবায়ক ইব্রাহীম খলিল ভূইঁয়া মিন্টু বলেন, আমাদের উওর পাড়ার লোকেরা কোন ঘটনা ঘটায়নি। বুধবার থেকে দক্ষিন পাড়ার লোকেরা আমাদের লোকজনের উপর অতর্কিত হামলা চালিয়ে তাদের আহত করছে।

Amader Nangalkot'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকা তথ্য মন্ত্রনালয়ের তালিকাভক্তি নং- ১০৫।

পাঠকের মন্তব্য: