মিঠু হত্যার প্রতিবাদে খুলনায় আজ অর্ধদিবস হরতাল পালিত । | আমাদের নাঙ্গলকোট
সর্বশেষ সংবাদ
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ বিশ্ব পর্যটন দিবস ও আমাদের সম্ভাবনা ◈ মোল্লা নিয়ে আলোচনা -সমালোচনা- এ,কে,এম মনিরুল হক ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ
প্রচ্ছদ / সারাদেশ / বিস্তারিত

মিঠু হত্যার প্রতিবাদে খুলনায় আজ অর্ধদিবস হরতাল পালিত ।

27 May 2017, 8:49:09

খুলনা সংবাদদাতা ঃ
খুলনা জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক সরদার আলাউদ্দিন মিঠু হত্যার প্রতিবাদে হরতাল চলছে। শনিবার ভোর ৬টা থেকে শুরু হওয়া এ হরতাল । চলবে দুপুর ১২টা পর্যন্ত হরতাল শুরুর পর থেকে খুলনায় ভারী যানবাহন চলাচল করতে দেখা যাচ্ছে না।  কিছু রিকশা ও ইজিবাইক ছাড়া কোনো যানবাহন চলাচল করছে না, গণপরিবহনও বন্ধ রয়েছে।  বৃহস্পতিবার রাত ১০ টায় দুর্বৃত্তরা নিজ অফিসে খুলনা জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক আলাউদ্দিন মিঠুকে মাথায় অস্ত্র ঠেকিয়ে গুলি করে হত্যা করে।একই সময় তার দেহরক্ষী নওশের গাজী গুলিবিদ্ধ হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় হাসপাতালে মারা যান। শুক্রবার দুপুরে মহানগরীর কে ডি ঘোষ রোডের মহানগর বিএনপি কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলন থেকে হরতালসহ কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। নিহত আলাউদ্দিন মিঠু ফুলতলা উপজেলার প্রাক্তন চেয়ারম্যান ও ফুলতলা উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। এ ভাবে ফিল্মি স্টাইলে সাবেক জন প্রতিনিধিকে খুন করে নিবিঘেœ পালিয়ে যাওয়ার ঘটনা কোনভাবে মেনেনিতে পাড়ছে মানুষ। এ দিকে বিএনপি নেতাকর্মী ভেঙ্গে পড়েছে দারণভাবে। তারা বলছেন, ডুমরিয়া ফুলতলায় অনেক নেতা থাকলেও মিঠুর মতো শক্তভাবে নেতাকর্মীদের সংগঠিত করতে পারেনি কেউ । গতকাল দুপুরে খুলনা মেডিকেল কলেজ ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়। বিকেল ৫ টা ১৫ মিনিটে মিঠুর মরদেহ নতুন হাটস্থ তার বাড়ি সামনে এসে পৌছালো এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের অবতারনা হয়। এ সময় হাজার ও পুরুষ মহিলা নেতাকর্মী স্বজনেরা কেঁদে ওঠে। সকলের আহাজারিতে ভারী হয়ে উঠে পরিবেশ। নিহত মিঠুর মাতা, স্ত্রী ও সন্তানেরা কাঁদতে কাঁদতে বাকরুদ্ধ হয়ে পরে। আসর বাদ তার বাড়ি সামনে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। যশোর খুলনা মহসড়কে জানাজায় অংশ্ নেয় হাজার হাজার মানুষ। গত ১৯ বছরে তিন বার রক্তে ভিজেছে এই চেয়ারম্যানের বাড়ি। এমনটাই বলছিলেন সোহেল সরদার, সাংবাদিক ভাইয়েরা আমাদের বাচাঁন এত রক্ত, এতো গুলি আমরা সহ্য করতে পারছি না। কান্না আর আহাজারির মাঝে থেমে থেমে এ কথা বলেন তিনি। ১৯৯৮ সালে বাড়ির কর্তা চেয়ারম্যান আবুল কাশেমকে হত্যার পর যার শুরু।  গ্রামবাসী জানান, ১৯৯২ সালে ফুলতলার দামোদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়াম্যান নির্বাচিত হন সরদার আবুল কাশেম। এলাকায় জনপ্রিয় ছিলেন তিনি। ১৯৯৮ সালে ১৮ আগস্ট দুপুরে ফুলতালা উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তার কক্ষেই মাথা ও বুকে গুলি করে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা। পরে ওই ইউনিয়নে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন বড় ছেলে আবু সাঈদ বাদল। তিনি ও বাবার মত জনপ্রিয় ছিলেন। ২০১০ সালের ১৬ আগস্ট দুপুরে ইউনিয়ন পরিষদে যাওয়ার সময় তাকে ও গুলি করে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা। পরে উপ-নির্বাচনে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন পরিবারে বাদলের স্ত্রী জাকিয়া হাসিন বিনা। ২০১১ সালে ইউপি নির্বাচনে ও তিনি দামোদরের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। অবশ্য ২০১৬ সালের নির্বাচনে তিনি আওয়ামী লীগের প্রার্থী শিপলু ভূইয়ার কাছে পরাজিত হন। এই শিপলু ভূইয়াকে সরদার আবুল কাশেম হত্যা মায়লায় যাবজ্জীবন সাজা দিয়েছিলো নিম্ন আদালত। ২০০৯ সালে ফুলতলা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন সরদার বাড়ির সেজ ছেলে আলাউদ্দিন মিঠু। ২০১৪ সালের নির্বাচনে হেরে যান। ২০১০ সালে ৬ মার্চ মিঠুর ওপর ও বোমা হমালা চালানো হয়। এতে আহত হয়ে ছিলেন মিঠু। ২০১৫ সালে মিঠু লক্ষ্য করে গুলি ছোড়া হয়। সেবার ও তিনি প্রাণে বেঁচে যান। পরিবারে সদস্যরা জানান পরপর দুই বার মৃত্যুর হাত থেকে বেঁচে যাওয়ায় ব্যক্তিগত নিরাপত্তায় সতর্ক হন মিঠু। নিজের নিরাপত্তায় কাছে সার্বক্ষনিক লাইসেন্স করা অস্ত্র রাখতেন। ছিলো ব্যক্তিগত দেহরক্ষী। কিন্তু কোন সতর্কতাই কাজে আসেনি তার। সস্ত্রাসীরা ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ঢুকেই মাথা লক্ষ্য করে গুলি করায় ঘটনাস্থলে নিহত হন মিঠু। আর প্রতিরোধ গড়ার আগেই গুলিতে মারা যান তার দেহরক্ষী।

Amader Nangalkot'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকা তথ্য মন্ত্রনালয়ের তালিকাভক্তি নং- ১০৫।

পাঠকের মন্তব্য: