মুক্তিযোদ্ধা ভাতা কর্তনের অভিযোগে নাঙ্গলকোটের সেই কমান্ডার জেল হাজতে | আমাদের নাঙ্গলকোট
সর্বশেষ সংবাদ
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ বিশ্ব পর্যটন দিবস ও আমাদের সম্ভাবনা ◈ মোল্লা নিয়ে আলোচনা -সমালোচনা- এ,কে,এম মনিরুল হক ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ

মুক্তিযোদ্ধা ভাতা কর্তনের অভিযোগে নাঙ্গলকোটের সেই কমান্ডার জেল হাজতে

6 May 2014, 3:40:52

arast2

নিজস্ব প্রতিনিধি:–০৫-০৫-২০১৪ ইং

মঙ্গলবার কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে মুক্তিযোদ্ধার ভাতার টাকা কর্তনের অভিযোগে উপজেলা কমান্ডারকে আটক করে আদালতে পাঠিয়েছে থানা পুলিশ। ওইদিন দুপুরে কুমিল্লার চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আ.স.ম শহীদুল্লাহ কায়সার তাকে জেল হাজতে প্রেরনের আদেশ দেন এবং তার বিষয়ে তদন্ত করে ৮মের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দেওয়ার নির্দেশ প্রদান করেন।
পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত রবিবার উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ইছহাক মিয়াসহ কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধা পরিকল্পনা মন্ত্রী আ.হ.ম মোস্তফা কামাল (লোটাস কামাল) কে সংবর্ধনা দিতে মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতার টাকা কর্তনের অভিযোগ পত্রিকায় প্রকাশিত হওয়ার পর ওই কমান্ডারকে  আটক করে থানা পুলিশ।
উল্লেখ্য যে, মুক্তিযোদ্ধাদের বিগত ৬মাসের ভাতা বাবত ১৮হাজার টাকা উত্তোলনকালে প্রতি মুক্তিযোদ্ধা থেকে সাতশ টাকা হারে কর্তন করে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ইছহাক মিয়াসহ কয়েকজন নেতৃবৃন্দ। ওইদিন সোনালী ব্যাংক নাঙ্গলকোট শাখায় ৩৯৮জন মুক্তিযোদ্ধার ভাতার টাকা উত্তোলন করেন। মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার প্রতি জন থেকে সাতশ টাকা হারে ২লক্ষ ৭৮হাজার ৬‘শ টাকা কর্তন করেন।
এ বিষয়ে নাঙ্গলকোট থানা অফিসার ইনচার্জ নজরুল ইসলাম জানান, মুক্তিযোদ্ধাদের থেকে চাঁদা নেয়ার বিষয়টি বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত হলে তাকে ৫৪ ধারায় গ্রেফতার করে আদালতে হাজির করা হয়। আদালত তার বিষয়ে তদন্ত করে ৮মে এর মধ্যে প্রতিবেদন জমা দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।
এ ঘটনার সংবাদ পত্রিকায় প্রকাশিত হওয়ায় ওই এলাকায় পত্রিকার কপি তড়িৎ গতিতে শেষ হয়ে যাওয়ায় ফটো বিক্রির হিড়িক পড়ে।

Amader Nangalkot'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকা তথ্য মন্ত্রনালয়ের তালিকাভক্তি নং- ১০৫।

পাঠকের মন্তব্য: