যে কারণে ইতালিতে মৃত্যু হার বেশি | আমাদের নাঙ্গলকোট
সর্বশেষ সংবাদ
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ ◈ অনুকূল পরিবেশ হলে এইচএসসি পরীক্ষা ◈ কুমিল্লায় বিপুল ইয়াবাসহ দম্পতি আটক!

যে কারণে ইতালিতে মৃত্যু হার বেশি

29 March 2020, 11:42:40

কালান্তর ডেস্ক: মহামারি করোনাভাইরাস মৃত্যুপুরী বানিয়ে ফেলেছে ইতালিকে। এই ভাইরাসে দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছে ৯২ হাজার ৪৭২ জন। প্রাণ হারিয়েছে রেকর্ড ১০ হাজার ২৩ জন। শনিবার একদিনেই মারা গেছে ৮৮৯ জন।
১৫ ফেব্রুয়ারি ইতালিতে প্রথম করোনা রোগী সনাক্ত হয়। ২১ ফেব্রুয়ারি সেখানে প্রথম মৃতের ঘটনা ঘটে। এরপর মাত্র ৩৬ দিনের ব্যবধানে ১০ হাজার মৃত্যুবরণ করেছে। শুক্রবার দিন রেকর্ড ৯১৯ জন মারা যায় সেখানে।
করোনাভাইরাস বিশ্বের ১৯৯টি দেশে ছড়িয়েছে। কিন্তু ইতালিতে মৃতের হার এতো বেশি কেন? এর পেছনে বেশ কিছু কারণ রয়েছে।
প্রথমত, ইতালি বিশ্বের দ্বিতীয় দেশ যেখানে সবচেয়ে বেশি বয়স্ক মানুষ বাস করে। এক্ষেত্রে জাপানের পরেই তাদের অবস্থান। আর করোনাভাইরাস বয়স্ক মানুষদের জন্য সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিপূর্ণ। ইতালির মানুষের গড় বয়স ৭৮ (সূত্র : স্বাস্থ্যসংস্থা)! সে কারণে আক্রান্তদের বাঁচানো সম্ভব হচ্ছে না। যদিও ব্যতিক্রম কিছু ঘটনাও রয়েছে। ১০২ বছর বয়সী ইতালিকা গ্রোন্দোনা করোনা জয় করে বাড়ি ফিরেছেন। ১০১ বছর বয়সে আরো একজন করোনা জয় করেছেন সেখানে।
দ্বিতীয়ত, ইতালি ছয় সপ্তাহ আগে লকডাউন করলেও সেখানকার মানুষ সেটা মানেনি। চীনের মতো তারা কড়াকড়িভাবে লকডাউন করতে পারেনি। আক্রান্তের সংখ্যা দিন দিন বাড়তে থাকায় একটা সময় লকডাউন না মানায় জরিমানা শুরু হয়। জরিমানার পরিমাণ বাড়তে বাড়তে এখন প্রায় সাড়ে ৩ হাজার ডলারে ঠেকেছে (প্রায় ৩ লাখ টাকা)। তবুও তাদের ঘরে রাখা যাচ্ছে না। বর্তমানে কেউ বিনা প্রয়োজনে বাইরে বের হলে তাকে সরাসরি জেল-হাজতে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।
তৃতীয়ত, ভয়ঙ্কর তথ্য হচ্ছে ইতালিতে আক্রান্ত ও মৃতের পরিমাণ আরো অনেক বেশি। যে সংখ্যাটা প্রকাশ পাচ্ছে সেটা প্রকৃত নয়। ইতালি এখন কেবল সবচেয়ে খারাপ অব্স্থা যাদের তাদের পরীক্ষা করছে। সবাইকে করতে পারছে না। সে কারণেও বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যা। প্রতিদিন ৫ হাজারের মতো টেস্ট করে তারা। যা প্রয়োজনের তুলনায় খুবই কম। হাজার হাজার ইতালিয়ান পরীক্ষার অপেক্ষায় ঘরে বসে আছেন। একটা সময় স্বাস্থ্যকর্মীদের পর্যাপ্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থা ছিল না। ছিল না প্রয়োজনীয় লোকবল। সে কারণে তারা বাড়ি বাড়ি গিয়ে টেস্ট করতেও পারেনি। তাতে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে হু হু। বেড়েছে মৃতের সংখ্যাও। তবে আশার বিষয় হচ্ছে দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা কমে আসছে। হয়তো চলতি সপ্তাহের শেষ দিকে মৃতের সংখ্যাও উল্লেখযোগ্য হারে কমে আসবে। কারণ, ইতালিতে করোনাভাইরাস পিক পয়েন্টে আছে। এখান থেকে নিম্নমুখী হবে।

Amader Nangalkot'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকা তথ্য মন্ত্রনালয়ের তালিকাভক্তি নং- ১০৫।

পাঠকের মন্তব্য: