রূপসায় স্ত্রীর পরকিয়ার জের ধরে  স্বামীকে পিটিয়ে হত্যা, স্ত্রী ও শ্বাশুড়ীসহ আটক-৬ | আমাদের নাঙ্গলকোট
সর্বশেষ সংবাদ
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ বিশ্ব পর্যটন দিবস ও আমাদের সম্ভাবনা ◈ মোল্লা নিয়ে আলোচনা -সমালোচনা- এ,কে,এম মনিরুল হক ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ
প্রচ্ছদ / সারাদেশ / বিস্তারিত

রূপসায় স্ত্রীর পরকিয়ার জের ধরে  স্বামীকে পিটিয়ে হত্যা, স্ত্রী ও শ্বাশুড়ীসহ আটক-৬

13 February 2017, 7:21:44

 

 

খুলনা প্রতিনিধি : বিবাহের মাত্র ২৫ দিন পর স্ত্রীর পরকিয়া প্রেমে বলি হতে হলো স্বামী খায়রুল ইসলাম পরাগকে (২৮)। গত ১৩ ফেব্রুয়ারী সকালে একটি বাথরুমের সেফটি ট্যাংকির ভিতর থেকে তার লাশ উদ্ধার করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে রূপসা উপজেলার তিলক গ্রামে। পারবারিক, এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, রূপসা উপজেলার দক্ষীণ খাজাডাঙ্গা গ্রামের খতিবুল ইসলাম সরদারের পুত্র সরদার খায়রুল ইসলাম পরাগ এর সাথে চলতি বছরের ১৯ জানুয়ারী তিলক গ্রামের তোফাজ্জেল হোসেন মুরাদের কন্যা ফাহিমা হোসেন তামান্নার সাথে বিবাহ হয়। খায়রুল ফকিরহাট উপজেলার লকপুর এলাকায় একটি দোকানে ফিস ফিড বিক্রয়ের ব্যবসা করতো। গত ১২ ফেব্রুয়ারী সন্ধ্যায় পরাগের শ্বাশুড়ী মোবাইল ফোনে তাকে শ্বশুরবাড়ীতে বেড়াতে আসতে বলে। একই ভাবে রাত সাড়ে ১০ টায় পুরনায় তার স্ত্রী তামান্না (১৯) স্বামী পরাগকে শ্বশুরালয়ে বেড়াতে আসতে বলে। তারপর খায়রুল ইসলাম পরাগ মোটর সাইকেল যোগে তিলক এলাকায় শ্বশুরবাড়ীর সন্নিকটে পৌছালে পূর্ব থেকে ওৎ পেতে থাকা সন্ত্রাসীরা তার মোটর সাইকেলের গতি রোধ করে তাকে বেধড়ক পিটিয়ে হত্যা করে। এরপর দুর্বৃত্তরা খায়রুল ইসলামের লাশ তিলক গ্রামের নজরুল ইসলাম তরফদারের বাড়ীর বাথরুমের সেফটি টেঙ্কিতে লুকিয়ে রাখে। হত্যাকান্ডের পর রাত আনুমানিক ১২ টার দিকে শ্বাশুড়ী নিহতের পিতাকে ফোন করে জানায় পরাগ তাদের বাড়ীতে আসেনি। বিষয়টি নিহতের পরিবার থেকে পুলিশকে অবহিত করা হয়। তারপর রাতেই পুলিশ ও এলাকাবাসী বিভিন্ন স্থানে পরাগের সন্ধানের জন্য খোজা-খুজি করতে থাকে। সকালে পুলিশ ও খাজাডাঙ্গা গ্রামের জনতা তিলক এলাকায় তল্লাশী চালিয়ে উক্ত এলাকার নজরুল ইসলাম তরফদারের বাড়ীর বাথরুমের সেফটি টেঙ্কিতে থেকে যুবকের লাশ উদ্ধার করে। এ সময় খাজাডাঙ্গা গ্রামের জনতা বিক্ষোভে ফেটে পড়ে। খাইরুল ইসলামের মৃত্যুতে খাজাডাঙ্গা গ্রামে শোকের ছায়া নেমে আসে। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে প্রথমে থানায় ও পরে ময়না তদন্তের জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে নিহত যুবকের শ্বাশুড়ী শামসুন্নাহার জোৎসা (৩৮), স্ত্রী ফাহিমা হোসেন তামান্না (১৯), স্ত্রীর প্রেমিক শাকিল (২৫) ও তিলক এলাকার নাজিম সরদার (২১), হোসেন আলী (৫৫), রফিকুল ইসলাম ভুইয়া (৩০) কে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে। ঘটনার সময় পরাগের কাছে নগদ ২ লক্ষ ৮৪ হাজার টাকা, ২টি মোবাইল ফোন ও ১ টি মোটর সাইকেল ছিল বলে পারিবারিক সূত্র জানায়। পরবর্তীতে পুলিশ অভিযান চালিয়ে মটর সাইকেলটি উদ্ধার করেছে বলে থানা অফিসার ইনচার্জ মো. রফিকুল ইসলাম জানান। ঘটনার পর জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নাইমুজ্জামান, এসপি সার্কেল বদিউজ্জামান, খুলনা ডিবি পুলিশের ওসি আক্কাস আলী শিকদার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মামলার প্রস্তুতি চলছে।

Amader Nangalkot'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকা তথ্য মন্ত্রনালয়ের তালিকাভক্তি নং- ১০৫।

পাঠকের মন্তব্য: