সিফাত’র মানব বন্ধনে মানুষের ঢল | Amader Nangalkot
শিরোনাম...
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ জমকালো আয়োজনে বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র ওমান শাখার কমিটি গঠন ◈ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ কুমিল্লা দক্ষিণ জেলার কমিটিতে ভোলাকোটের দুই রতন ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ

For Advertisement

সিফাত’র মানব বন্ধনে মানুষের ঢল

20 October 2016, 3:26:45

স্টাফ রির্পোটার-

কুমিল্লা’র নাঙ্গলকোট উপজেলার জোড্ডা ইউনিয়নে গত ১৮ তারিখ সকাল দশটায় দৈনকি আমাদের নাঙ্গলকোট ও সচেতন নাগরিক সমাজ এক বিশাল মানব বন্ধনের ডাক দেয় আর এতে নানা পেশার মানুষ অংশ গ্রহনে জনসমুদ্রে পরিনত হয়।

সকলের একটাই দাবি শাহাদাত হোসেন সিফাত’র নির্মম হত্যাকারীদের বিচারের আওতায় এনে ফাঁসি কার্যকর করে ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠার।

20-10-16-2

উক্ত মানব বন্ধনে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ আ,লীগের নাঙ্গলকোট উপজেলা শাখার সম্মানিত সদস্য জনাব মো. আনোয়ার হোসেন মিয়াজী, মো. ওমর ফারুক লিটন, সভাপতি আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান নাঙ্গলকোট, দৈনিক আমাদের নাঙ্গলকোট’র সম্পাদক জনাব বাপ্পি মজুমদার ইউনুস,জনাব হুমায়ূন কবির দুলাল সভাপতি উপজেলা তাঁতিদল,হুমায়ূন কবির খোকন, আব্দুর রাজ্জাক জুলহাশ সভাপতি জোড্ডা সরকারী প্রা: বি:,জনাব আবু হানিফ অধ্যক্ষ আলিয়া মাদ্রাসা,জনাব নিজাম উদ্দিন,জামাল উদ্দিন মেম্বার,বদিউল আলম রাজু সম্ভাব্য চেয়ারম্যানপদপাথী,জনাব মাহবুল আলম,জনাব কাইয়ূম মাসুন সভাপতি জোড্ডা ইউপি ছাত্রলীগ,

20-10-16-3

ইঞ্জিনিয়ার মেহেদী হাসান মিলন তথ্য সম্পাদক আমাদের নাঙ্গলকোট,মানিক নিজাম উদ্দিন স্টাফ রির্পোটার,মাজাহার রনি,শহিদুল ইসলাম,মাইন উদ্দিন,জোবায়ের হোসেন,শাহ আলম,মো শামিম,আব্দুল বাতেন,কাজী ওহাব আলী প্রমুখ

20-10-16-4

উল্লেখ্য যে, স্কুল ছাত্র শাহাদাত হোসেন সিফাতকে (১৬) অজ্ঞাতনামা দুর্বৃত্তরা মাথা এবং দেহ দ্বি-খন্ডিতভাবে কেটে নৃশংশভাবে হত্যার ঘটনায় তার মা হাছিনা বেগমের বুক ফাটা আর্তনাদ গত শুক্রবারও যেন থামছেই না। ছেলের জন্য আর্তনাদ করতে-করতে বার-বার মুর্ছা যাচ্ছেন। আত্মীয়স্বজনরা শান্তনা দিয়েও তাকে থামিয়ে রাখতে পারছেন না। গত ৯অক্টোবর রবিবার রাত আনুমানিক ৮টায় কৈরাশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে সিপনের চা দোকানে বাংলাদেশ-ইংল্যান্ডের দ্বিতীয় ওয়ানডে ক্রিকেট খেলা দেখতে গিয়ে সিফাত নিখোঁজ হন। নিখোঁজের ৪দিন পর গত ১৩অক্টোবর বৃহষ্পতিবার সকালে কৈরাশ গ্রামের মাহবুবুল হক বিএসসির পুকুর থেকে প্রথমে সিফাতের মাথা এবং পুকুর থেকে ৫০গজ দুরে মাষ্টার শফিকুর রহমানের ধান ক্ষেতের আইল থেকে দেহ উদ্ধার করা হয়। শিফাতের মা হাছিনা বেগম কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন-সম্পত্তিই আমার ছেলের জীবনে কাল হলো। সম্পত্তিই আমার ছেলেকে কেড়ে নিয়েছে। হাছিনা বেগম বলেন, দেবর জাহাঙ্গীর আলম সম্পত্তির জন্য প্রকাশ্যে আমার ছেলেকে গলা কেটে হত্যা করার হুমকি দেয়ার প্রায় দু‘মাস পর আমার ছেলের গলাকাটা দ্বি-খন্ডিত লাশ উদ্ধার করা হলো। তিনি দেবর জাহাঙ্গীর আলম, তার সহযোগী চাচাতো ভাই হারুনুর রশিদ এবং ননদের স্বামী উপজেলার বিঞ্চপুর গ্রামের ইউছুফকে সিফাত হত্যার জন্য দায়ী করে তাদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবি করেন।

20-10-16-1শাহাদাত হোসেন সিফাতের লাশ ময়নাতদন্তের পর গত শুক্রবার দুপুর ৩টায় পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। সিফাত উপজেলার জোড্ডা ইউনিয়নের কৈরাশ পূর্বপাড়া গ্রামের নুরুল আমিনের দ্বিতীয় ছেলে। তার বড় ভাই শাফায়েত হোসেন শাহেদ। সিফাত জোড্ডা বাজার পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণীর শিক্ষার্থী ছিলেন। সিফাতকে হত্যার ঘটনায় তার মা হাছিনা বেগম বাদি হয়ে অজ্ঞাতনামাদের আসামী করে থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। সিফাতের মাথা এবং দেহ উদ্ধারের পর থেকে তার চাচা জাহাঙ্গীর আলম সহ তার সহযোগীরা পলাতক রয়েছে বলে এলাকাবাসী জানান।

সরেজমিনে শাহাদাত হোসেন সিফাতের মা হাছিনা বেগম, এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে ও পুলিশ সুত্রে জানা যায়, উপজেলার জোড্ডা ইউনিয়নের কৈরাশ গ্রামের মফিজুর রহমানের ৫ছেলের মধ্যে নুরুল আমিন সবার বড়। দীর্ঘ ১৬বছর প্রবাস জীবনের পর গত তিন বছর পূর্বে নুরুল আমিন ওমান থেকে দেশে আসেন। ওমানে থাকাকালীন চার ভাইকে বিভিন্ন বিদেশে পাঠান। দেশে ফিরে এসে নুরুল আমিন মানসিক ভারসাম্যহীন হয়ে পড়েন। বিদেশে থাকাকালীন নুরুল আমিন এবং তার স্ত্রী হাছিনা বেগম নিজেদের নামে এলাকার বিভিন্ন লোকজন থেকে কিছু সম্পত্তি ক্রয় করেন। এতে নুরুল আমিনের উপর ভাইদের হিংসাত্বক মনোভাব সৃষ্টি হয়। এতে করে নুরুল আমিনের ভাই জাহাঙ্গীর আলম তার পিতা মফিজুর রহমানকে ফুসলিয়ে নুরুল আমিনকে বঞ্চিত করে অন্য চার ভাইয়ের নামে পৈত্তিক সম্পত্তি কবলা করে নেন। এর মধ্যে আবার জাহাঙ্গীর আলমের নুরুল আমিনের ক্রয়কৃত সম্পত্তির উপর লোলুপ দৃষ্টি পড়ে। একপর্যায়ে জাহাঙ্গীর আলম তার সহযোগী চাচাতো ভাই হারুনুর রশিদ এবং ভগ্নিপতি ইউছুফ যড়যন্ত্রমূলকভাবে নুরুল আমিনের বিভিন্ন দাগের ক্রয়কৃত সম্পত্তি অবৈধভাবে দখলে নেন। এনিয়ে গত প্রায় তিন বছর থেকে জাহাঙ্গীর আলম তার সহযোগীদের নিয়ে এবং তার অপর ভাইদের মাধ্যমে নুরুল আমিন এবং তার স্ত্রী হাছিনা বেগমকে শারিরীক নির্যাতন করে আসছিলেন। কিন্তু নুরুল আমিন এবং হাছিনা বেগম কোন উপায়ন্তর না দেখে জাহাঙ্গীর আলম এবং তার সহযোগীদের নির্যাতন থেকে বাঁচতে গত রোজার সময় বর্ষাকালে কৈরাশ পূর্বপাড়ায় এসে নিজস্ব সম্পত্তিতে নতুন বাড়ি করেন। পরে জাহাঙ্গীর আলমের দখলকৃত সম্পত্তি নিয়ে এলাকায় সালিশ বৈঠক বসলে নুরুল আমিন কিছু সম্পত্তি জাহাঙ্গীর আলম থেকে উদ্ধার করেন। কিন্তু আরো ৭শতাংশ সম্পত্তি জাহাঙ্গীর আলম নিজের দখলে রেখে অন্যজনের নিকট বন্ধক দেন। নুরুল আমিন কোনভাবে জাহাঙ্গীর আলম থেকে এ সম্পত্তি উদ্ধার করতে পারছিলেন না। গত প্রায় দুই মাস পূর্বে জাহাঙ্গীর আলম নুরুল আমিনের ছেলে শাহাদাত হোসেন সিফাত এবং শাফায়েত হোসেন শাহেদকে প্রকাশ্য দিবালোকে তাঁর দখলকৃত ৭শতাংশ সম্পত্তির আইলে গেলে তাদের মাথা কেটে নেয়ার হুমকি দেন।

শাহাদাত হোসেন সিফাতের মা হাছিনা বেগম বলেন-গত ৯অক্টোবর রবিবার সন্ধ্যায় সিফাত কৈরাশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে শিপনের চা দোকানে টিভিতে ক্রিকেট খেলা দেখার জন্য গিয়ে দু‘বার ঘরে ফিরে আসেন। সে আমার নিকট স্কুলের পরীক্ষার ফি‘র জন্য টাকা দিতে বলেন। পরে সে তার কবুতরকে খাবার দিয়ে তাঁর স্কুল ব্যাগে কাগজ-কলম রেখে সাদা প্যান্ট এবং টিশার্ট পরে খেলা দেখার জন্য আবার বের হয়ে যান। রাত ৩টায় তার বাবা নুরুল আমিন ঘুম থেকে জেগে উঠে বলেন সিফাততো ঘরে আসে নাই। হাছিনা বেগম ধারণা করছেন, সিফাত তার বন্ধু রবিউল, তুহিন এবং পারভেজের ঘরে থাকতে পারে বলে শুয়ে পড়েন। কিন্তু ১০অক্টোবর সোমবার সকাল থেকে বাড়ির আর্শ্বে-পার্শ্বে এবং বন্ধুদের বাড়িতে খুঁজে সিফাতকে খুঁজে পান নাই। পরে গত চারদিন ধরে উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে আত্মীয় স্বজনদের বাড়িতে খুঁজেও সিফাতকে পান নাই। এর মধ্যে সিফাতের বন্ধুরা ফেজ বুকের মাধ্যমে সিফাতের নিখোঁজের খবর প্রচার করে।

গত ১৩অক্টোবর বৃহষ্পতিবার সকালে কৈরাশ গ্রামের মাহবুবুল হক বিএসসির পুকুরে একটি মানুষের মাথা ভাসতে দেখে বাড়ির মহিলারা চিৎকার করতে থাকেন। এর কিছু দুরে এলাকাবাসী মাষ্টার শফিকুর রহমানের ধান ক্ষেতের আইলে মাথা বিহীন একটি দেহ দেখতে পান। এসময় লাশের মাথা এবং দেহে পচন ধরে। এখবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে সিফাতের মামাতো ভাই বিলাস ঘটনাস্থলে পৌঁছে পুকুরে ভাসমান মাথাকে সিফাতের মাথা বলে চিহিৃত করেন এবং ক্ষেতের আইলে পাওয়া মাথাবিহীন দেহও সিফাতের বলে চিহিৃত করেন। এসময় সিফাতের পিঠে এবং হাতে একাধিক চুরিকাঘাতের চিহৃ দেখতে পাওয়া যায় বলে তারা জানান। পরে খবর পেয়ে থানা পুলিশ মাথা এবং দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠান। সিফাতের মামাতো ভাই বিলাস সহ এলাকার তার বন্ধুরা বলেন সিফাত খুব ভালো ছেলে ছিল। সে সবার সাথে ভালো ব্যাবহার করতো। নাঙ্গলকোট থানার উপ-পরিদর্শক (এস আই) আশ্রাফুল ইসলাম বলেন-শিফাতের মা হাছিনা বেগম অজ্ঞাতনামাদের আসামী করে থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

For Advertisement

Unauthorized use of news, image, information, etc published by Amader Nangalkot is punishable by copyright law. Appropriate legal steps will be taken by the management against any person or body that infringes those laws.

Comments: