সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম বদলে যাচ্ছে! | Amader Nangalkot
শিরোনাম...
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ জমকালো আয়োজনে বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র ওমান শাখার কমিটি গঠন ◈ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ কুমিল্লা দক্ষিণ জেলার কমিটিতে ভোলাকোটের দুই রতন ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ

For Advertisement

সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম বদলে যাচ্ছে!

7 January 2017, 6:51:38

যাত্রা শুরুর পরপরই সৌন্দর্য আর ব্যবস্থাপনায় সবার প্রশংসা কুড়োয় সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম। যদিও আন্তর্জাতিক মান হওয়ার জন্য সব শর্ত পূরণ করার পরও টি-২০ বিশ্বকাপের পর আর কোনো আন্তর্জাতিক ম্যাচের অংশ হতে পারেনি স্টেডিয়ামটি।

এজন্য অবশ্য দায়ী করা হয় স্টেডিয়ামের কম ধারণক্ষমতাকে। ‘হোম অব ক্রিকেট’ খ্যাত মিরপুরের শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়াম (২৬ হাজার) কিংবা চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের (২২ হাজার) তুলনায় সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামের ধারণক্ষমতা খুবই কম (সাড়ে ১৩ হাজার)। টিকেট বিক্রি থেকে আয়ের ব্যাপারটা মাথায় আসলেই তাই বড় ম্যাচের ভেন্যু হওয়ার দৌড়ে পিছিয়ে পড়ে চা বাগানের মনোরম পরিবেশ বেষ্টিত এই স্টেডিয়ামটি।

২০১৪ সালে ঘরের মাঠে অনুষ্ঠিত টি-২০ বিশ্বকাপের জন্য তড়িঘড়ি করে প্রস্তুত করা হয় সিলেট আন্তর্জাতিক এয়ারপোর্ট থেকে স্বল্প দূরত্বে অবস্থিত স্টেডিয়ামটিকে। আগে থেকে গ্যালারী থাকলেও বিশ্বকাপের জন্য সবকিছু নতুন করে প্রস্তুত করা হয়, সাথে হয় ব্যাপক আধুনিকায়ন। টি-২০ বিশ্বকাপে পুরুষ ইভেন্টের মূল পর্বের ৬টি ম্যাচ আয়োজনের পাশাপাশি মহিলা ইভেন্টের মূল স্টেডিয়াম ছিল এটিই। সফলভাবে টি-২০ বিশ্বকাপ আয়োজনের পর সিলেটবাসীর প্রত্যাশা ছিল, এখন থেকে ঘরের পাশেই নিয়মিত আন্তর্জাতিক ম্যাচ দেখতে পাবেন তারা। কিন্তু একাধিকবার বিসিবির পক্ষ থেকে সিলেটকে আন্তর্জাতিক ম্যাচের ভেন্যু করার প্রতিশ্রুতি দিলেও শেষপর্যন্ত তা রক্ষা হয়নি।

মূলত এই ব্যাপারটিকে মাথায় রেখেই এবার ঢেলে সাজানো হচ্ছে সিলেটবাসীর প্রাণের স্টেডিয়ামকে। স্টেডিয়ামটির অবকাঠামোগত কোনো ত্রুটি না থাকায় মূল মনোযোগ তাই আসনসংখ্যা বাড়ানোয়। ইতিমধ্যে পূর্বপাশের গ্যালারীর উপর স্টিলের কাঠামো বসিয়ে দোতলা গ্যালারী বানানো হয়েছে, যেখানে বসানো হবে পাঁচ হাজারেরও বেশি চেয়ার। অবশ্য অন্য পাশের গ্যালারীর অধিকাংশ চেয়ারও এখন নেই; তার কারণ- সম্পূর্ণ প্রস্তুতির পর স্টেডিয়ামের চারপাশে ঝকঝকে-তকতকে চেয়ার বসবে নতুন গ্যালারীর সাথে।

স্টেডিয়াম ও বিসিবি কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, গ্রীন গ্যালারীর সম্প্রসারণ নিয়েও আছে তাদের ব্যাপক পরিকল্পনা। টি-২০ বিশ্বকাপের জন্য তাড়াহুড়ো করে প্রস্তুত করতে গিয়ে টিলা কেটে বানানো গ্রীন গ্যালারীর সিঁড়িগুলো স্বাভাবিকের চেয়ে কিছুটা উঁচু হয়ে আছে। নতুন করে সিঁড়ি বানানোর পাশাপাশি টিলাটিকে আরও আকর্ষণীয় করে তোলা হবে বলে জানান স্টেডিয়ামের কর্মকর্তারা। এতে গ্রীন গ্যালারীতেও বৃদ্ধি পাবে আরও দুই হাজার আসন।

সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে আগামী মার্চ মাসের মধ্যেই সম্পূর্ণ প্রস্তুত হয়ে উঠবে ২০ হাজারেরও বেশি আসন বিশিষ্ট সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম। পূর্বপাশের পাঁচ হাজার আসন বিশিষ্ট দোতলা গ্যালারী ইতিমধ্যে দাঁড়িয়ে গেছে। এটি শেষ করার পর শুরু হবে গ্রীন গ্যালারীর সংস্কারকাজ। কর্মকর্তারা আশা করছেন, পাকিস্তানের বাংলাদেশ সফর বাস্তবে রূপ নিলে ঐ সিরিজ আয়োজনের দায়িত্ব পাবে উপমহাদেশের অন্যতম সুন্দর এই স্টেডিয়ামটি।

For Advertisement

Unauthorized use of news, image, information, etc published by Amader Nangalkot is punishable by copyright law. Appropriate legal steps will be taken by the management against any person or body that infringes those laws.

Comments: