সুদ, ঘুষ ও দরিদ্রদের অর্থ আর কোরবানি | আমাদের নাঙ্গলকোট
সর্বশেষ সংবাদ
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ বিশ্ব পর্যটন দিবস ও আমাদের সম্ভাবনা ◈ মোল্লা নিয়ে আলোচনা -সমালোচনা- এ,কে,এম মনিরুল হক ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ

সুদ, ঘুষ ও দরিদ্রদের অর্থ আর কোরবানি

4 September 2016, 10:09:08
মোহাম্দ ইসমাইল শিশির 
আল্লাহ রাব্বুল আলামিন মানব জাতিকে সৃষ্টি করেছেন শুধু তার এবাদত করার জন্য। আর এ এবাদতের একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল আল্লাহর উদ্দেশ্যে পশু জবেহ করা। এ কাজটি তিনি শুধু তার উদ্দেশ্যে করার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। ইসলম এর ভাষায় যাকে বলা হয় কুরবানি, অর্থাত্ অতিশয় নিকটবর্তী হওয়া । মহান আল্লাহ তায়ালা মুসলিম জাতির পিতা হযরত ইব্রাহিম (আঃ) ও তার পুত্র ইসমাইল (আঃ) কে কুরবানি-র মহা পরীক্ষা দেন। সেই সফল পরীক্ষার পর থেকেই শুরু হলো কোরবানীর মহান বিস্ময়কর ইতিহাস। যা অন্ততকাল ধরে সুন্নতে ইব্রাহীম হিসেবে বিশ্বের সকল মুসলমানের কাছে আজও স্মরণীয় হয়ে আছে এবং কিয়ামত পর্যন্ত থাকবে।
সেই পেক্ষিতে আমাদের মুসলিম সমাজের প্রত্যেকে আল্লাহর রাস্তায় কুরবানি দেওয়ার আর্পন চেষ্টা করে। কিন্তু তাঁর কি জানে, তাদের কুরবানি আল্লাহ দরবারে কতটুকু গ্রহণিয় হচ্ছে । কেননা আমরা নানাভাবে আমাদের অর্থ উপার্জন করে থাকি। তার মধ্যে সুদ,ঘুষ, এবং দরিদ্রদের হক ইত্যাদি নানাভাবে জড়িত। তথাপি দেখা যায়  অনেকেই এই অর্থ দিয়ে কুরবানির পশু খরিদ করি। এবং এই পশু আল্লাহর উদ্দেশে কুরবানি করা হয়। কুরআন ও হাদিস এর আলোকে যাহা কখনও আল্লাহর দরবারে গ্রহণিয় নয়।
কেননা রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেনঃ-
সুদ হল সত্তর প্রকার পাপের সমষ্টি । তার মাঝে সবচেয়ে নিম্নতম হল-আপন মায়ের সাথে ব্যভিচার করা । {ইবনে মাজাহ/২২৭৪-আবূ হুরাইরা (রাঃ))         পক্ষান্তরে দরিদ্রদের অধিকার নিয়ে বলেন মহান আল্লাহ তায়ালা বলেছেন:-
 তোমরা নিজেদের মধ্যে একে অন্যের সম্পদ অন্যায়ভাবে গ্রাস করোনা । এবং মানুষের ধন-সম্পত্তির কিছু অংশ জেনে বুঝে অন্যায়ভাবে গ্রাস করার উদ্দেশ্যে বিচারককে উৎকোচ দিও না । (সূরা-বাকারা,আয়াত-১৮৮)
অতএব উপরোক্ত কোরআন ও হাদিসের আলকে এটা প্রমান করে যে, সুদ, ঘুষের ও দরিদ্রের হক (অর্থাত্ যাকাত এবং রাষ্ট্রীয় ভাবে দরিদ্রের জন্য নির্ধারিত অর্থ) ইত্যাদি অর্থ কুরআন ও হাদীসের দৃষ্টিতে বৈধ নয়, তাই এ টাকায় কুরবানী করাও কোন রকমবৈধ হতে পারেনা। তাই সকল মুসলিম ভাইদের সতর্ক হয়ে কুরবানী দেয়া উচিত। আর যারা সুদ ও ঘুষের সাথে জড়িততাদের পশুর সাথে শরিক হয়ে কুরবানী করাও বৈধ হতে পারেনা।

Amader Nangalkot'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকা তথ্য মন্ত্রনালয়ের তালিকাভক্তি নং- ১০৫।

পাঠকের মন্তব্য: