সর্বশেষ সংবাদ
◈ মারছে মানুষে মানুষ!- মোঃ: জহিরুল ইসলাম ◈ নাঙ্গলকোট উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদকের নামে ভূয়া আইডি খুলে প্রতারনার ফাঁদ ◈ “কাজী জোড়পুকুরিয়া সমাজকল্যাণ পরিষদ” কমিটি গঠন ◈ ছাত্রদলের সভাপতি পদে জনপ্রিয়তার শীর্ষে বাগেরহাটের ছেলে হাফিজুর রহমান ◈ চৌদ্দগ্রাম থানার ওসির নির্দেশে কবরে রেখে যাওয়া বৃদ্ধ মহিলাকে হাসপাতালে ভর্তি করলো পুলিশ ◈ নাঙ্গলকোটে ইভটিজিংয়ে প্রতিবাদ করায় সন্ত্রাসী হামলা প্রতিবাদে মানববন্ধন ◈ আজ টাইগারদের দায়িত্ব বুঝে নেবেন ডোমিঙ্গো ◈ জাতীয় দিবসগুলো শিক্ষকদের ছুটি হিসেবে গণ্য করা হচ্ছে কেন? ◈ কুমিল্লা মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় বাড়ছে লাশের সারি; নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৮ জনে; পরিচয় মিলেছে সবার ! ◈ কুমিল্লার লালমাই উপজেলায় বাসের সঙ্গে সিএনজিচালিত অটোরিকশার সংঘর্ষে ৭ যাত্রী নিহত

সুন্দরবনে বারবার কেন আগুন

৬ মে ২০১৬, ৯:০৯:০২

Bappy Mozumder Younus

বাপ্পি মজুমদার ইউনুস
সুন্দরবন আমাদের জাতীয় সম্পদ,আমাদের অহংকার। এ যাবৎ সুন্দর বনের উপর দিয়ে চলে গেলো অসংখ্যা বিপদ। জানিনা কোন অপশক্তির ছাঁয়া পড়েছে সুন্দরবনের উপর। এ জাতীয় সম্পদ আমাদের কে রক্ষা করতে হবে, এটি যেন আমাদের সকলের মানবিক দায়িত্ব হয়। নৌ পরিবহনমন্ত্রী শাহজান খানের তেলের জাহাজ ডুবে যাওয়া আজ অবদি শুধু সুন্দর বনের উপর দিয়ে যাচ্ছে মহা বিপদসূমহ। নানান বিপদে আক্রান্ত সুন্দরবনের নতুন উপদ্রব হয়ে উঠেছে ‘আগুন’। গত এক মাসেই অন্তত চারবার আগুন লাগার ঘটনা ঘটে। মূলত পূর্ব সুন্দরবনের শরণখোলা ও চাঁদপাই রেঞ্জেই এ ঘটনা সবচেয়ে বেশি ঘটছে। একটি ঘটনায় বন বিভাগ স্থানীয় ছয়জনের নামে মামলাও করেছে। বন বিভাগকে অবশ্যই আগুন লাগার জন্য দায়ী ব্যক্তিদের ও কারণগুলোর বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে হবে।
অভিযোগ রয়েছে, আসন্ন বর্ষা মৌসুমে মাছ শিকারের জন্য উপযোগী এলাকা তৈরির জন্য আগুন লাগানো হচ্ছে। এক মাসেই চারবার আগুন লাগার ঘটনা থেকে প্রতীয়মান হয়, এর পেছনে স্বার্থান্বেষী মহলের হাত রয়েছে। এসব দুর্ঘটনা নয়। বর্ষা মৌসুমে মাছ ধরার সুবিধার জন্য নিচু এলাকা মাছ চাষের উপযোগী করা এ আগুনের একটা হেতু হতে পারে। স্থানীয় আওয়ামী লীগের যে নেতাদের নাম আগুনের অভিযোগ সূত্রে এসেছে, সে বিষয়ে সুষ্ঠু তদন্ত হওয়া দরকার। সুন্দরবনে আগুনের ঘটনায় এই প্রথম মামলা হলো। কিন্তু দুঃখজনকভাবে ১৪ বছর ধরে বন বিভাগ সুন্দরবনের এই আগুন লাগার ঘটনার কোনো সুষ্ঠু তদন্ত ও ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে পারেনি।


সুন্দরবন বহুভাবেই বিপন্ন অবস্থায় আছে এবং কমপক্ষে দুটি কয়লাবিদ্যুৎ প্রকল্প বড় আকারের হুমকি সৃষ্টি করেছে। সরকারের বন বিনাশী প্রকল্প, বারবার তেল ও কয়লাবাহী জাহাজডুবি, বনের ভেতর দিয়ে বাণিজ্যিক জাহাজ চলাচল এবং বন্য প্রাণী বাণিজ্যের মতো বিষয় সুন্দরবনের ক্ষতি করে আসছে। বিশেষজ্ঞ থেকে শুরু করে পরিবেশবাদী ও সচেতন নাগরিকেরা বারবার সুন্দরবনের প্রাকৃতিক ও পরিবেশগত বৈশিষ্ট্য রক্ষায় সরকারের উদাসীনতা এমনকি সচেতন ভুল পদক্ষেপের সমালোচনা করে আসছেন। বারবার আগুন লাগার ঘটনা সার্বিকভাবে সুন্দরবনের অরক্ষিত দশার দিকেই ইঙ্গিত করছে।


সুন্দরবনের প্রাকৃতিক ও প্রাণবৈচিত্র্য বাংলাদেশের অমূল্য জৈব সম্পদ। প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের বিরুদ্ধে এটা দক্ষিণাঞ্চলের পরীক্ষিত রক্ষাকবচ। সুন্দরবনকে বাঁচাতেই হবে। সুন্দরবনের আগুন–সন্ত্রাসীদের শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে।

আসুন আমরা আমাদের নিজ নিজ অবস্থা থেকে এর প্রতিবাদ জানাই।
পরিবেশ বাঁচলে আমরা বাঁচবো-পরিবেশ রক্ষায় আমরা এক হই।

তথ্য সংযুক্তকরণ।
প্রথম আলো

Amader Nangalkot'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকা তথ্য মন্ত্রনালয়ের তালিকাভক্তি নং- ১০৫।

পাঠকের মন্তব্য: