সেই চাপ থেকে অদলকে উদ্ধার করেন মাহমুদউল্লাহ ও মুশফিকুর! | আমাদের নাঙ্গলকোট
সর্বশেষ সংবাদ
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ বিশ্ব পর্যটন দিবস ও আমাদের সম্ভাবনা ◈ মোল্লা নিয়ে আলোচনা -সমালোচনা- এ,কে,এম মনিরুল হক ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ
প্রচ্ছদ / খেলাধুলা / বিস্তারিত

সেই চাপ থেকে অদলকে উদ্ধার করেন মাহমুদউল্লাহ ও মুশফিকুর!

25 May 2017, 9:45:58

লক্ষ্যটা ছিল চ্যালেঞ্জিং। শুরুতে সৌম্য সরকারকে হারানোর ধাক্কা সামাল দেন তামিম ইকবাল ও সাব্বির রহমান। কিন্তু মিডল অর্ডারের ব্যাটসম্যানরা দ্রুত ফিরে গেলে চাপে পড়ে যায় বাংলাদেশ। সেই চাপ থেকে অদলকে উদ্ধার করেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও মুশফিকুর রহিম। তাদের অসাধারণ জুটিতে জয়ের হাসি হেসেছে বাংলাদেশ। এ জয়ের সুবাদে আইসিসি র‍্যাঙ্কিংয়ে টাইগাররা এখন ছয়ে।

ইনিংসের প্রথম বলেই ডাউন দ্যা উইকেট এসে ছক্কা হাঁকান তামিম। তবে বাংলাদেশের এমন দারুণ শুরুর রেশ বেশিক্ষণ ছিল না। এক বল পরেই কোরি অ্যান্ডারসনের হাতে ক্যাচ তুলে দেন সৌম্য। আগের দুই ম্যাচে অর্ধশতক হাঁকানো এ ব্যাটসম্যান ফিরে যান ০ রান করে। এরপর হাল ধরেন তামিম ইকবাল ও সাব্বির রহমান।

প্রাথমিক বিপর্যয় সামাল দেওয়ার পর দলের ভিত গড়ে দেন দুজন। লক্ষ্যটাকে ধরাছোঁয়ার মধ্যেই রাখে তাদের জুটি। দুজনেই তুলে নেন অর্ধশতক। বেশ স্বছন্দে ব্যাটিং করেন তামিম ও সাব্বির। তাদের ১৩৬ রানের জুটিতে ম্যাচ বাংলাদেশের অনূকূলে চলে আসে।

৬ চার ও ১ ছক্কায় ৬৫ রানের ইনিংস খেলে স্যান্টনারের বলে উড়িয়ে মারতে গিয়ে বেননেটের হাতে ধরা পড়েন তামিম। এরপর সাব্বিরের সাথে যোগ দেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। ভুল বোঝাবুঝি হয় তাদের মাঝে। রান নেওয়ার সময় দুইজনই চলে আসে একপ্রান্তে। ফলাফল সাব্বিরের রান আউট। ৮৩ বলে ৬৫ রান করে বিদায় নেন সাব্বির। মোসাদ্দেকও ফিরে যান পরের ওভারে। জিতান পেটেলের ভেতরে ঢোকা বলে বিভ্রান্ত হয়ে লেগ বিফোরের ফাঁদে পড়েন মোসাদ্দেক।

সাকিব আল হাসানকে নিয়ে ৩৯ রান যোগ করেন মুশফিকুর রহিম। কিছুটা ধীরলয়ে ব্যাটিং করছিলেন সাকিব। খোলস থেকে বের হতে বেননেটকে হুক করেন তিনি। কিন্তু বাউন্ডারির কাছে ধরা পড়ে বিদায় নেন ৩২ বলে ১৯ রান করে। সাকিবের বিদায়ের পর ৬৮ বলে ৭২ রান প্রয়োজন ছিল টাইগারদের।

উইকেট আগলে রেখে এগিয়ে যান মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও মুশফিকুর রহিম। দলের প্রয়োজনে বাউন্ডারি হাঁকিয়ে খেলাও নিজেদের অনুকূলে রাখে এ জুটি। বল আর রানের ব্যবধানে রানকে বাড়তে দেননি মুশফিক ও রিয়াদ। তাদের অনবদ্য ৭২ রানের জুটিতে ১০ বল হাতে রেখেই জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে টাইগাররা। ৬ চার ও ১ ছক্কায় ৩৬ বলে ৪৬ রানের এক অসাধারণ ইনিংস খেলেন রিয়াদ। ৪৫ বলে ৪৫ রানের দুর্দান্ত ইনিংস খেলেন মুশফিক।

এর আগে ব্যাট করতে নেমে ২৭০ রানের পুঁজি গড়েছিল কিউইরা। প্রথম ওভারেই নাসিরের ক্যাচ ফসকালে জীবন পায় ওপেনার টম লাথাম। জীবন পেয়ে করেন ৮৯ রান।

দলীয় ২৩ রানের মাথায় মুস্তাফিজুর রহমানের বলে সাকিবের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরেন লুক রঞ্চি। এরপর ব্রুম ও লাথাম মিলে ১৩৩ রান যোগ করেন। যেই নাসিরের হাতে জীবন পেয়েছিলেন, তার হাতেই বধ হন লাথাম। দলীয় ১৬৭ রানের নাসিরের বলে বোল্ড হন তিনি। এর আগে ১৫৬ রানের মাথায় ব্রুমকেও ফেরান নাসির। বোলাররা উইকেটের বেশ কিছু সুযোগ সৃষ্টি করলেও ফিল্ডারদের ব্যর্থতায় জীবন পেয়ে যাচ্ছিল নিউ জিল্যান্ডের ব্যাটসম্যানরা।

কোরি অ্যান্ডারসন ৩২ বলে ২৪ রান করে সাকিবের বলে ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে ফিরে যান রিয়াদের ক্যাচে পরিণত হয়ে। কোরির বিদায়ের পর কিউইদের চেপে ধরে টাইগাররা। দ্রুত ফিরে যান নিশাম। মাশরাফির বলে উড়িয়ে মারতে গিয়ে ধরা পড়েন রিয়াদের হাতে। এরপর সান্টনারকে বোল্ড করেন সাকিব। পরের ওভারে ১ রান করা মুনরো মাশরাফির শিকার হন। দ্রুত উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে নিউ জিল্যান্ড। এক প্রান্ত আগলে রাখা রস টেলর ৫৬ বলে ৬০ রান করে অপরাজিত থাকেন। ২৭০ রান করে থামে তারা।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ নিউ জিল্যান্ড ২৭০/৮, ৫০ ওভার
লাথাম ৮৪, ব্রুম ৬৩, টেলর ৬০
সাকিব ২/৪১, নাসির ২/৪৭, মাশরাফি ২/৫৫

বাংলাদেশ ২৭১/৫, ৪৮.২ ওভার

তামিম ৬৫, সাব্বির ৬৫, রিয়াদ ৪৬, মুশফিক ৪৫
প্যাটেল ২/৫৫, বেননেট ১/৪৭, স্যান্টনার ১/৫৩

Amader Nangalkot'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকা তথ্য মন্ত্রনালয়ের তালিকাভক্তি নং- ১০৫।

পাঠকের মন্তব্য: