সৌন্দর্যের মোহনীয় মায়াজাল তেরখাদার ভুতিয়ার বিল | আমাদের নাঙ্গলকোট
সর্বশেষ সংবাদ
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ বিশ্ব পর্যটন দিবস ও আমাদের সম্ভাবনা ◈ মোল্লা নিয়ে আলোচনা -সমালোচনা- এ,কে,এম মনিরুল হক ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ
প্রচ্ছদ / সারাদেশ / বিস্তারিত

সৌন্দর্যের মোহনীয় মায়াজাল তেরখাদার ভুতিয়ার বিল

14 September 2018, 2:53:54

রাসেল আহমেদ, বিশেষ প্রতিবেদক :

“জলে ভাসা পদ্ম আমি, শুধুই পেলাম ছলনা/ ও আমার সহেলি, আমার নাই তো কোথাও কোনো ঠাঁই/ বুকের জ্বালা কোথায় যে জুরাই!” কর্মব্যস্ত এক ঘেঁয়েমী যান্ত্রিক জীবনে জ্বালা জুড়াতে একবার হলেও ঘুরে আসতে পারেন আবহ বাংলার অপরূপ প্রকৃতির প্রতিচ্ছবি খুলনার তেরখাদা উপজেলার ভূতিয়ার বিলে। শিবদাস বন্দ্যোপাধ্যায়ের কথায় ভূপেন হাজারিকার সুরে আর প্রতিমা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কালজয়ী গানের মতো; যারা ছলনার ছলে আবিষ্ট তারা তো বটেই আর প্রকৃতি ও ভ্রমণ পিপাসুদের তেরখাদার ভুতিয়ারবিলের অপূর্ব সৌন্দর্য যেন হাত নেড়ে ডাকছে তাদের। নীল আকাশের ছাউনিতে ২০ হাজার একর জমির জলাবদ্ধ বিশাল বিলে পদ্মপাতার জলে নিজেকে বিলিয়ে দিতে পারবেন নিশ্চিত। আর সঙ্গে একটু রোদ, মেঘ-বৃষ্টির খেলা হলে তো জবাব নেই। আর যদি নগর বাউলের কণ্ঠে গান বাজতে থাকে “কবিতা, তুমি স্বপ্নচারিণী হয়ে খবর নিও না/ কবিতা, এই নিশাচর আমায় ভেবোনা সুখের মোহনা/ দেখবে আমাদের ভালবাসা হয়ে গেছে কখন যেনো; পদ্ম পাতারও জল”। গানের তালে তালে আনাবৃত আকাশের নিচে বিশাল জলরাশিতে ছোট্ট ডিঙ্গি নৌকায় বসে পদ্ম ফুল ও সবুজের সমারোহে প্রকৃতির এক মোহময় মায়াজালে ফেঁসে যেতে পারেন আপনিও। খুলনার জেলখানা ঘাট পার হয়ে সেনেরবাজার। এরপর বাস-ভাড়ায় চালিত মোটরসাইকেল বা স্থানীয় যানবাহন অটোতে চড়ে তেরখাদা বাজারে পৌঁছে ভ্যান যোগে ভূতিয়ার বিলে পৌঁছানো যায়। তারপর নৌকা নিয়ে পদ্ম পাতার জল পেরিয়ে আকাশের কাছাকাছি মিলে যেতে পারবেন দর্শনার্থীরা। ভার্চুয়াল জগতে ডুব দিয়ে থাকা মানুষগুলোকে ঘুরিয়ে আনতে পারেন এই অকৃত্রিম জাগতিক স্বপ্নসুধা থেকেও। খাবার ও বিশুদ্ধ পানি, ছাতাসহ প্রয়োজনীয় সামগ্রী নিতে ভুলবেন না যেনো; কারণ বিলের আশেপাশে আপনার প্রয়োজনীয় কিছু নাও পেতে পারেন। আঠারবেকি নদীর তলদেশ ভরাট হয়ে খুলনার তেরখাদা উপজেলা ও নড়াইল জেলার অংশ বিশেষ নিয়ে প্রাকৃতিকভাবে গড়ে উঠেছে ভূতিয়ার বিল। ২০০৩ সাল থেকে ভূতিয়ার বিলের ২০ হাজার একর জমিতে স্থায়ী জলাবদ্ধতা ও অনাবাদী। বিলের উপর নির্ভরশীল অর্ধাহারে-অনাহারে পরিবারগুলোর জীবিকা চলে মাছ ধরে, শাপলা, পদ্ম ও শাক-সবজি বিক্রি করে। ২০১১ সালে খুলনা খালিশপুরের জনসভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ বিলের জলাবদ্ধতা দূরকরণের প্রতিশ্রুতি দিয়ে ছিলেন। প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতিতে ২০১৩ সালে একনেকে অনুমোদিত প্রকল্পে ২৮১ কোটি ৯০ লাখ টাকা ব্যয়ে ৩৩টি খাল ৮৯ কি.মি এবং আঠারবেকি ও চিত্রা নদীর সাড়ে ৬৭কি.মি খননকার্য চলছে। তাই এ বছরেই ভূতিয়ার বিলে না গেলে বিশাল পদ্মকাননের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য দেখা থেকে বঞ্চিত হতে পারেন আপনি।

Amader Nangalkot'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকা তথ্য মন্ত্রনালয়ের তালিকাভক্তি নং- ১০৫।

পাঠকের মন্তব্য:

x