স্বপ্ন দেখান জহিরুল ইসলাম | আমাদের নাঙ্গলকোট
সর্বশেষ সংবাদ
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ বিশ্ব পর্যটন দিবস ও আমাদের সম্ভাবনা ◈ মোল্লা নিয়ে আলোচনা -সমালোচনা- এ,কে,এম মনিরুল হক ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ

স্বপ্ন দেখান জহিরুল ইসলাম

20 February 2020, 1:52:33

সবাই তাকে এক নামে চেনে। সদা হাস্যোজ্জ্বল ছেলেটি স্কুল জীবন থেকেই সংস্কৃতিমনা ও সাংগঠনিক নেতৃত্বে গুণাবলী সম্পন্ন। অল্পতেই বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডার প্রাণকেন্দ্র হয়ে ওঠে সে। যেন তাকে ছাড়া আড্ডা বা কোন কিছুই সম্পন্ন হয় না। নাম জহিরুল ইসলাম। তবে সবাই তাকে জহির নামেই ডাকতে ভালবাসেন। বর্তমানে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের স্নাতকোত্তরে পড়াশোনা করছেন। ছেলেবেলা থেকে বেড়ে উঠেছেন কুমিল্লা জেলার নাঙ্গলকোট উপজেলার রায়কোট উত্তর ইউনিয়নের দাসনাইপাড়া গ্রামে। নিজ এলাকার মাহিনী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়ে উত্তীর্ণ হন। পরে ঢাকার নটর ডেম কলেজ থেকে ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগ থেকে এইচএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়ে ঢাকা বোর্ডে নবম স্থান অর্জন করেছিলেন।

প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে পড়ালেখা করায় বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির স্বপ্ন ছিল অধরা। তারপরেও পিছপা হয়নি তিনি। ২০১৪-১৫ সেশনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন। বর্তমানে শুধু স্বপ্ন দেখতে নয়, সবাইকে স্বপ্ন দেখাতেও ভালবাসেন জহির। বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি হওয়ার পর থেকে গরিব ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের বিশ^বিদ্যালয়ের স্বপ্ন দেখাতে শুরু করেন। সম্প্রতি গত বছরের ২৮ ডিসেম্বর নাঙ্গলকোট উপজেলার ৫০ জন মেধাবী শিক্ষার্থীদের ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়, বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয় ও ঢাকা মেডিক্যাল কলেজে শিক্ষা সফরে নিয়ে আসেন। এর আগে ২০১৭ সালেও একই স্থানে ৩৫ শিক্ষার্থীদের শিক্ষা সফরে নিয়ে আসেন। এতে শিক্ষার্থীরা শুধু বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করার স্বপ্ন নয় বরং বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কে জানার আগ্রহ বাড়বে বলে মনে করেন জহির। বন্ধের সময় বাড়িতে বেড়াতে গেলে এলাকার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে ক্লাস নিতেন ও উচ্চশিক্ষার স্বপ্ন দেখাতে মোটিভেশনাল প্রোগ্রামের আয়োজন করেন। প্রায় সাত শ’ শিক্ষার্থীর মাঝে বঙ্গবন্ধুর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ বইটি বিতরণ করেন।

ছেলেবেলা থেকেই দেশপ্রেমী একজন শিক্ষার্থী হয়ে ওঠেন তিনি। স্কুলের নতুন ভবন তৈরি করার জন্য একমাত্র শহীদ মিনারটি ভেঙ্গে ফেলা হয়। ভাষা শহীদদের চরণে শ্রদ্ধা জানানোর জন্য এটি ছিল শিক্ষার্থীদের একমাত্র স্মৃতি। তাই নিজ উদ্যোগে ২০১৬ ও ’১৭ সালের ২১ ফেব্রুয়ারির আগের দিন শিক্ষার্থীদের জন্য শহীদ মিনার তৈরি করে। পরের দিন শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

নিজ জন্মস্থানের প্রতি ভালবাসার কমতি নেই তার মনে। শুধু নিজের জন্যই নয় ভাবেন সাধারণ মানুষের কথাও। সাংগঠনিক প্রজ্ঞা ও নেতৃত্বের গুণাবলীকে কাজে লাগিয়ে বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন জহির। এলাকার শিক্ষার্থীদের কল্যাণে কাজ করার লক্ষ্যে পাবলিক বিশ^বিদ্যালয়ে পড়‍ুয়া শিক্ষার্থীদের নিয়ে তৈরি হয় ইউনিভার্সিটি স্টুডেন্টস এ্যাসোসিয়েশন অব রায়কোট ইউনিয়ন (উসারু)। সে সংগঠনটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছিলেন। এছাড়া নাঙ্গলকোট উপজেলার শিক্ষার্থীদের আঞ্চলিক সংগঠন ‘ঢাকা ইউনিভার্সিটি স্টুডেন্ট’স ইউনিয়ন অব নাঙ্গলকোট (ডিউসান)’ এর বর্তমান সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছে। সংগঠনের সদস্যদের নিয়ে বাল্যবিবাহ, যৌতুক, মাদক ও ইভটিজিং বিরোধী সাইকেল র‌্যালি ও মানববন্ধন এবং জনসচেতনতার লক্ষ্যে বিভিন্ন লিফলেট বিতরণ করেন। এছাড়া দুটি বাল্য বিয়ে বন্ধ করতেও সক্ষম হয়েছেন। শীতে অসহায় শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করেন। সম্প্রতি জহির তাঁর এলাকায় একটি পাঠাগার গঠনের উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন। এই সব কিছুর পিছনে যাদের উৎসাহ বা অবদান তা সম্পূর্ণ বন্ধু-বান্ধব, স্কুলের শিক্ষক এবং পরিবারের। সমাজকে আলোকিত করার লক্ষ্যে শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষার আলো প্রসারের জন্য কাজ করার পরিকল্পনা রয়েছে তার।

Amader Nangalkot'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকা তথ্য মন্ত্রনালয়ের তালিকাভক্তি নং- ১০৫।

পাঠকের মন্তব্য:

x