১০ জনেও মুক্তিযোদ্ধার জয় | আমাদের নাঙ্গলকোট
সর্বশেষ সংবাদ
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ বিশ্ব পর্যটন দিবস ও আমাদের সম্ভাবনা ◈ মোল্লা নিয়ে আলোচনা -সমালোচনা- এ,কে,এম মনিরুল হক ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ
প্রচ্ছদ / খেলাধুলা / বিস্তারিত

১০ জনেও মুক্তিযোদ্ধার জয়

27 September 2016, 9:33:50

মোহাম্মদ ইব্রাহিম খলিল মজুমদার: ম্যাচ শেষের সংবাদ সম্মেলনে মুক্তিযোদ্ধার কোচ আবদুল কাইয়ুমের মুখে হাসি। দুর্বল উত্তর বারিধারার সঙ্গে অনুমিত জয়ই পেয়েছেন। কিন্তু সেটি এসেছে দল ১০ জনের হয়ে পড়ার পর। কোচের আনন্দটা তাই একটু বেশিই। সিলেট স্টেডিয়ামে কাল উত্তর বারিধারাকে আলমগীর কবিরের একমাত্র গোলে হারিয়েছে মুক্তিযোদ্ধা। এই জয়ে ৮ ম্যাচে ১৫ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে উঠে এসেছে মুক্তিযোদ্ধা। সমান ম্যাচে ৩ পয়েন্ট নিয়ে উত্তর বারিধারা ১১তম।
ম্যাচের ৫৭ মিনিটে থ্রোয়ের সময় মুক্তিযোদ্ধার মিডফিল্ডার মোবারক হোসেন সামনে দাঁড়ানো উত্তর বারিধারার মিডফিল্ডার সেন্টু চন্দ্র সেনের মুখে বল দিয়ে আঘাত করেন। আঘাত পেয়েই মাঠে পড়ে যান সেন্টু। রেফারি ভরত চন্দ্র গৌড় লাল কার্ড দেখান মোবারককে।
১০ জনের মুক্তিযোদ্ধাকে আরও কোণঠাসা করার বদলে উত্তর বারিধারা ব্যস্ত হয়ে পড়ে নিজেদের গোলমুখ সামলাতে। কিন্তু পারেনি। ম্যাচের ৬৭ মিনিটে বক্সের বাইরে থেকে আলমগীর কবিরের জোরালো শটে এগিয়ে যায় মুক্তিযোদ্ধা। বাকি সময় চেষ্টা করেও কোনো দল গোল পায়নি। জিতে ম্যাচ শেষ করায় ফুটবলারদের প্রশংসা ঝরল সেন্টুর মুখে, ‘হেরে যাওয়ার ভয় ছিল আমাদের। তবে একজন লাল কার্ড দেখার পরও যে ম্যাচটা বের করতে পেরেছি এতেই আল্লাহর কাছে শুকরিয়া।’
মোহামেডান – আরামবাগ গোলশূন্য: লিগে আগের সাত ম্যাচে একটিও জয় পাননি। সিলেটে এসে ভাগ্য ফেরাতে চেয়েছিলেন মোহামেডান কোচ জোসিমউদ্দিন জোসি। কিন্তু দুর্ভাগ্যই তাঁদের, ইসমাইল বাঙ্গুরা ও ইউসুফ সিফাতের দুটি শট লাগে ক্রসবারে ও সাইডপোস্টে। স্ট্রাইকার রাশেদুল ইসলামও আরামবাগের গোলরক্ষক মিতুল হাসানকে একা পেয়ে গোল করতে পারেননি। দুর্বল শটটি ঠেকিয়ে দেন মিতুল। গোলের বেশ কিছু সুযোগ নষ্ট করেছেন আরামবাগের জাফর ইকবাল ও কেস্টার আকন। শেষ পর্যন্ত আরামবাগের সঙ্গে গোলশূন্য ড্র করেই ম্যাচ শেষ করেছে মোহামেডান।
এই ড্রয়ে ৮ ম্যাচে ৮ পয়েন্ট নিয়ে আটে আরামবাগ। আর ৬ পয়েন্ট পাওয়া মোহামেডান দশেই রইল। ড্র করেই সন্তুষ্ট আরামবাগের কোচ সাইফুল বারী টিটু, ‘নিজেকে ভাগ্যবানই ভাবছি যে শেষ পর্যন্ত ১ পয়েন্ট পেয়েছি।’ জিততে না পেরে মোহামেডানের কোচ জোসি দুষলেন ভাগ্যকেই, ‘ছেলেরা যথেষ্ট চেষ্টা করেছে, কিন্তু ভাগ্য আমাদের পক্ষে ছিল না।’

Amader Nangalkot'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকা তথ্য মন্ত্রনালয়ের তালিকাভক্তি নং- ১০৫।

পাঠকের মন্তব্য: