২ মাসের বিয়ে ৮ মাসের গর্ভবতী! | আমাদের নাঙ্গলকোট
সর্বশেষ সংবাদ
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ ◈ অনুকূল পরিবেশ হলে এইচএসসি পরীক্ষা ◈ কুমিল্লায় বিপুল ইয়াবাসহ দম্পতি আটক!

২ মাসের বিয়ে ৮ মাসের গর্ভবতী!

1 July 2014, 5:41:08

rap2

 

 

 

 

 

 

 

এ,এইচ,এম আবুল খায়ের নাঙ্গলকোট প্রতিনিধি:01-07-2014 (দৈনিক আমাদের নাঙ্গলকোট)


কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলার হেসাখাল ইউপির উরুকচাইল গ্রামের আবদুল বাতেনের মেয়ে জোস্না আক্তার (১৭) ২ মাস পূর্বে বিয়ে হলে ও তার ৮ মাসের অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এলাকার বিভিন্ন মহল থেকে জানা যায়, জোস্না আক্তারের চাচাতো ভাই লম্পট সুজনের(২৩) সাথে তার প্রেমের সম্পর্ক চলে গত ৩ বছর ধরে।

প্রাইভেট পড়ানোর সুযোগ নিয়ে তার সাথে আরও বেশী ঘনিষ্ঠ ও অন্তরঙ্গ হয়। সে একই গ্রামের একই বাড়ির আনোয়ার হোসেনের ছেলে। লাকসাম সরকারী ফয়েজুন্নেছা কলেজের অনার্স ২য় বর্ষের ছাত্র সুজন। এ গভীর সম্পর্ক ক্রমান্বয়ে অবৈধ দৈহিক সম্পর্কে চলতে থাকে। এ দৈহিক সম্পর্ক প্রায় ২ বছর যাবত চলে। কথায় বলে পাপ বাপকেও ছাড়ে না। জোস্নার  অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে। প্রথমে সুজন বিয়ে করার আশ্বাস দিলেও অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার পর লাপাত্তা হয়ে যায় সুজন। অতিগোপনে মেয়ের মা-বাবা অন্তঃসত্ত্বার ৬ মাসের মাথায় তাকে চরবাড়িয়া জনৈক ছেলের নিকট বিয়ে দেয়। বিয়ের ২ মাস পর শ্বশুর বাড়ির লোকদের সন্দেহ হলে তারা তাকে লাকসাম ডাক্তার রোকেয়ার নিকট পরীক্ষা করতে গেলে ৮ মাসের অন্তঃসত্ত্বার ঘটনাটি ধরা পড়ে।

স্বামীর বাড়ি চরবাড়িয়া এনে জিজ্ঞেস করলে  ৮ মাস পূর্বের অপগর্ভের ঘটনাটি স্বীকার করে। তারা তার মা-বাবাকে সংবাদ দিয়ে বিষয়টি অবহিত করেন এবং এর সত্যতা পাওয়া গেলে মেয়েটিকে তালাকের পয়সালা হয়। এ ঘটনার কারনে তার স্বামী তাকে তালাক দেয়। মেয়েটি এখন স্বামী সংসার হারিয়ে লম্পট সুজনের বিচার চেয়ে এলাকার চেয়ারম্যান,মেম্বার, প্রভাবশালীদের দ্বারে দ্বারে ঘুরে বিচার না পেয়ে কুমিল্লা নারী ও শিশু নির্যাতন আদালতে মামলা করে।

এ সুযোগে আলা উদ্দিন মেম্বার সহ কিছু অর্থলোভী মামলার রায়কে লম্পট সুজনের পক্ষে নেয়ার জন্য বিভিন্ন ভাবে তদবির করে যাচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। চক্রটি মেয়েটিকে সুজনের সাথে নামে মাত্র বিয়ে দিয়ে পূনরায় তালাক দিয়ে আরেক সর্বনাশ করার চক্রান্তে লিপ্ত রয়েছে। মামলা থেকে ছেলেকে অব্যহতি দেয়ার জন্য আলাউদ্দিন মেম্বার সহ ষড়যন্ত্র করে যাচেছ বলে অভিযোগ উঠেছে। এ ব্যপারে অভিযুক্ত সুজনকে জিজ্ঞেস করলে সে বলে আমি ছাড়াও মেয়েটির সাথে একাধিক ছেলের সম্পর্ক রয়েছে, গর্ভের সন্তানটি যে আমার তা নিশ্চিত করে বলতে পারবো না।


এ ব্যপারে হেসাখাল ইউপি চেয়ারম্যান মাহফুজুল হক মোল্লাকে জিজ্ঞেস করলে তিনি দৈনিক আমাদের নাঙ্গলকোটকে  বলেন আমি বিষয়টি জানি। আমার সহযোগিতা চাইলে আইনানুগ ভাবে তা করবো। এটা অসামাজিক কাজ। আমি এর ঘৃনা ও নিন্দা জানাই। ঘটনাটি  এলাকার প্রতিটি ঘরে ঘরে ও চায়ের দোকানে আলোচনার বিষয় বস্তু হিসেবে সবার মুখে মুখে এবং এলাকায় কৌতুক ও চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

 

Amader Nangalkot'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  আমাদের নাঙ্গলকোট পত্রিকা তথ্য মন্ত্রনালয়ের তালিকাভক্তি নং- ১০৫।

পাঠকের মন্তব্য: