‪মানবাধিকার‬‬‬‬‬‬‬‬‬‬ পর্যবেক্ষণ প্রতিবেদন প্রকাশ করলো শিবির | Amader Nangalkot
শিরোনাম...
◈ বঙ্গবন্ধুর মানবিক গুনাবলী ও ধর্মীয় চেনতা-মোহাম্মদ হেদায়েত উল্লাহ ◈ সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল! ◈ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়া সেই লিগ্যাল নোটিশ প্রত্যাহার ◈ জমকালো আয়োজনে বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র ওমান শাখার কমিটি গঠন ◈ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ কুমিল্লা দক্ষিণ জেলার কমিটিতে ভোলাকোটের দুই রতন ◈ বাইয়ারা প্রবাসী কল্যাণ ইউনিট’র বাহারাইন শাখা কমিটি গঠন ◈ পাই যে কৃপার ভাগ – মোঃ জহিরুল ইসলাম। ◈ কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে জুতা পেটা খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার ◈ সামাজিক সংগঠন ”খাজুরিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার” ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন ◈ দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মজুমদার ◈ শিক্ষকদের মূল্যায়ন কতক্ষণ করবে- জহিরুল ইসলাম ◈ শুধু ভুলে যাই- গাজী ফরহাদ

For Advertisement

‪মানবাধিকার‬‬‬‬‬‬‬‬‬‬ পর্যবেক্ষণ প্রতিবেদন প্রকাশ করলো শিবির

4 March 2017, 7:27:14

বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির
মাসিক ‪মানবাধিকার‬‬‬‬‬‬‬‬‬‬ পর্যবেক্ষণ প্রতিবেদন
ফেব্রুয়ারী-২০১৭

প্রেস বিজ্ঞপ্তি:

মানবাধিকারের সার্বজনীন ঘোষনা অনুযায়ী, মানবাধিকার হচ্ছে মানুষের জন্মগত অধিকার, যা জাতি, গোত্র, ধর্ম, বর্ণ, নারী-পুরুষ নির্বিশেষে সকলের জন্য সমানভাবে প্রযোজ্য। সার্বজনীন ঘোষনার ৩ নং অনুচ্ছেদে প্রত্যেকরই জীবনধারণ, স্বাধীনতা ও ব্যক্তি নিরাপত্তার অধিকার, ৭ নং অনুচ্ছেদে আইনের কাছে সকলেই সমান এবং কোনরূপ বৈষম্য ব্যতিরেকে সকলেরই আইনের দ্বারা সমভাবে সূরক্ষা পাওয়ার অধিকার, ১৮ নং অনুচ্ছেদে প্রত্যেকেরই চিন্তা, বিবেক ও ধর্মের স্বাধীনতার অধিকারের কথা বলা হয়েছে। সার্বজনীন মানবাধিকার ঘোষনার সাথে মিল রেখে বাংলাদেশ সংবিধানের ৩৬ নং অনুচ্ছেদে প্রত্যেকটি মানুষের স্বাধীনভাবে চলাফেরার অধিকার, ৩৭ নং অনুচ্ছেদে সমাবেশের স্বাধীনতা, ৩৮ নং অনুচ্ছেদে সংগঠনের স্বাধীনতা ও ৩৯ নং অনুচ্ছেদে চিন্তা ও বিবেকের স্বাধীনতা এবং বাক স্বাধীনতার কথা বলা হয়েছে। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য যে বাংলাদেশের কোন নাগরিকই পরিপূর্ণভাবে উপরোক্ত অধিকারগুলি ভোগ করতে পারছেনা। অথচ রাষ্ট্রেরই দায়িত্ব নাগরিকের এই অধিকারগুলি পরিপূর্নভাবে বাস্তবায়ন করা।

ফেব্রুয়ারী মাসে বাংলাদেশ ইসলামী ‎ছাত্রশিবিরের‬ কেন্দ্রীয় মানবাধিকার বিভাগ কর্তৃক দৈনিক সংবাদপত্রে প্রকাশিত তথ্যের ভিত্তিতে মাসিক মানবাধিকার পর্যবেক্ষণ প্রতিবেদনে মানবাধিকারের ভয়াবহ চিত্র ফুঠে উঠেছে।

ফেব্রুয়ারী মাসে সারা দেশে ১১৮ জন লোক হত্যার শিকার হয়েছে। এ মাসে প্রতিদিন গড়ে প্রায় ০৪ জন মানুষ হত্যার শিকার হয়েছে। ১৩ টি বিচার বহির্ভূত হত্যাকান্ডে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী কর্তৃক ২০ জন নিহত হয়| ৭৭ টি সহিংস_হামলার ঘটনায় নিহত হয়েছে ৩৬ জন, আহত হয়েছে ৫৭ জন এবং গুলিবিদ্ধ হয়েছে ১৭ জন। এছাড়াও ১৪ টি গণপিটুনির ঘটনায় নিহত হয়েছে ১১ জন এবং আহত হয়েছে ১১ জন।

এ মাসে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী কর্তৃক গুম করা হয়েছে ০২ জনকে। অপহরণ হয়েছে ৫২ জন, অপহরণের পর জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে ৫৩ জনকে এবং হত্যার পর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে ০৩ জনের। ‎রাজনৈতিক সহিংসতার‬‬‬‬‬‬‬‬ ২৯ টি ঘটনায় নিহত হয়েছে ০৫ জন, আহত হয়েছে ৩০৫ জন এবং গুলিবিদ্ধ হয়েছে ০৭ জন। বিভিন্ন অভিযানের নামে ২৫ টি গ্রেফতারের ঘটনায় সাধারণ জনগণ, বিরোধী দলীয় নেতাকর্মীসহ ২২২ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

ভারতীয় সীমান্ত রক্ষী বাহিনী ‘‪বিএসএফ‬‬‬‬‬‬‬‬‬‬’ কর্তৃক ০৭ টি হামলার ঘটনায় নিহত হয়েছে ০২ জন, আহত হয়েছে ০৭ জন ও গ্রেফতার করা হয়েছে ০৩ জন। এছাড়া মায়ানমার সীমান্ত রক্ষী বাহিনী “বিজিপি” কর্তৃক ০১টি হামলার ঘটনায় ০১ জন নিহত হয়েছে এবং ০১ জন আহত হয়েছে।

নারী নির্যাতনের ক্রমবর্ধমান ঘটনায় যৌতুকের জন্য নির্যাতনে নিহত হয়েছে ০৯ জন নারী এবং শারীরিক নির্যাতনের শিকার হয়েছে ১০ জন নারী, পারিবারিক কলহে নিহত হয়েছে ১৯ জন এবং আহত হয়েছে ০৫ জন, ধর্ষণের শিকার হয়েছে ৪২ জন নারী, ধর্ষনের পর হত্যা করা হয়েছে ০৩ জনকে, এসিড নিক্ষেপের শিকার হয়েছেন ০১ জন নারী এবং যৌন হয়রানীর শিকার হয়েছে ১৬ জন শিশু ও নারী। এছাড়াও ২০ টি শিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে এবং ‪‎গণধর্ষণের‬‬‬‬‬‬‬‬‬‬‬ শিকার হয়েছে ০৭ জন নারী। শিশু নির্যাতনের ১৯ টি ঘটনায় নিহত হয়েছে ১১ জন এবং আহত হয়েছে ১২ জন।

সরকার দলীয় নেতাকর্মী ও আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর হামলায় নির্যাতনের ০৪ টি ঘটনায় নিহত হয়েছে ০১ জন সাংবাদিক ও আহত হয়েছে ০৩ জন সাংবাদিক। এছাড়া ‪‎সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের‬‬‬‬‬‬‬‬‬‬‬ উপর ০৫ টি হামলার ঘটনায় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ০৫ টি উপাসনালয়ে হামলা করা হয়েছে।

সরকার দলীয় ও আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর হামলায় নির্যাতনের ০৪ টি ঘটনায় নিহত হয়েছে ০১ জন সাংবাদিক ও আহত হয়েছে ০৩ জন সাংবাদিক। এছাড়া ‪‎সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের‬‬‬‬‬‬‬‬‬‬‬ উপর ০৫ টি হামলার ঘটনায় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ০৫ টি উপাসনালয়ে হামলা করা হয়েছে।

ক্ষমতাশীন দলের ছাত্র সংগঠনসহ অন্যান্য ছাত্র সংগঠনের আধিপত্য বিস্তার ও দলীয় কোন্দলকে কেন্দ্র করে ‪শিক্ষাঙ্গনে সহিংসতার‬‬‬‬‬‬‬‬‬‬ ০৯ টি ঘটনায় আহত হয়েছে ৪১ জন এবং গুলিবিদ্ধ হয়েছে ০২ জন। এ মাসে বিভিন্ন স্থান থেকে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী ৫০ টি লাশ উদ্ধার করেছে যার মধ্যে ১৫ টি লাশ অজ্ঞাত।

ইসলামী ছাত্রশিবির কেন্দ্রীয় মানবাধিকার বিভাগ মনে করে, সংবিধান স্বীকৃত মানুষের মৌলিক অধিকার নিশ্চত করা না গেলে, মানুষের জীবনের নিরাপত্তা দিতে না পারলে এবং সাধারণ মানুষ মত প্রকাশের স্বাধীনতা না পেলে শুধু কাগজে কলমে গণতন্ত্র শব্দটি ব্যবহার করলেই সেটিকে গণতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থা বলা যায় না। রাষ্ট্র পরিচালনার সকল ক্ষেত্রে জনগণ নিজেদেরকে নাগরিক ভাবতে ও অংশগ্রহন করতে না পারলে সেখানে প্রকৃত গণতন্ত্র গড়ে উঠবেনা। এজন্য সাম্য, ন্যায় ও ইনসাফের ভিত্তিতে সমাজ ও রাষ্ট্রীয় কাঠামো প্রণয়ন অতীব গুরুত্বপূর্ন একটি বিষয়। রাষ্ট্রের দায়িত্বশীল ব্যক্তি থেকে শুরু করে প্রতিটি ক্ষেত্রে জবাবদিহিতা ও সুশাসন নিশ্চিত করতে না পারলে কোনদিনই মানুষের মৌলিক অধিকার প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব নয়। রাষ্ট্রের পৃষ্ঠপোষকতায় বিচার বহির্ভূত হত্যাকান্ড, প্রশাসনের হেফাজতে নির্যাতন, সাংবাদিকদের উপর আক্রমণ, সীমান্তে বিএসএফ কর্তৃক নিরীহ বাংলাদেশী হত্যা ও নির্যাতন, নারীর প্রতি সহিংসতা ও ধর্মীয় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের উপাসনালয়ে হামলা দিন দিন বেড়েই চলছে। বিশেষ করে দেশের সাম্প্রতিক সময়ে আইন শৃঙ্খলা-বাহিনী কর্তৃক কথিত জঙ্গি দমনের নামে বিচার বাহির্ভূত হত্যাকান্ড ১৬ কোটি মানুষের নিরাপত্তা আজ হুমকির মুখে পড়েছে।

আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে বৃহত্তম জাতীয় ঐক্য তৈরির মাধ্যমে জনগনের মৌলিক ও সাংবিধানিক অধিকার নিশ্চিত করতে না পারলে দেশের সার্বিক মানবাধিকার পরিস্থিতি আরো অবনতির দিকে যাবে। তাই ইসলামী ছাত্রাশিবিরের কেন্দ্রীয় মানবাধিকার বিভাগের পক্ষ থেকে দেশের সকল সচেতন নাগরিক, সাংবাদিক, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও দেশি-বিদেশী মানবাধিকার সংগঠনগুলোকে ঐক্যবদ্ধভাবে সন্ত্রাসী ও জঙ্গী হামলা রোধ ও জনগণের মানবাধিকার সূরক্ষায় আরো সোচ্চার হওয়ার আহবান জানাচ্ছি।

কেন্দ্রীয় মানবাধিকার বিভাগ
বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির

For Advertisement

Unauthorized use of news, image, information, etc published by Amader Nangalkot is punishable by copyright law. Appropriate legal steps will be taken by the management against any person or body that infringes those laws.

Comments: